• ঢাকা
  • শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০১৯, ০৬:৩৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১৩, ২০১৯, ০৬:৪০ পিএম

অনলাইন ক্যাসিনো হোতা সেলিম ফের ৭ দিনের রিমান্ডে

জাগরণ প্রতিবেদক
অনলাইন ক্যাসিনো হোতা সেলিম ফের ৭ দিনের রিমান্ডে
সেলিম প্রধান -ফাইল ছবি

দেশে অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসার মূল হোতা সেলিম প্রধানের ফের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় এই রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

বুধবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

এর আগে, ৩ নভেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে তার রিমান্ড শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু অসুস্থতাজনিত কারণে তাকে আদালতে হাজির না করায় বিচারক বুধবার তার রিমান্ড শুনানির জন্য নতুন দিন ধার্য করেন।

গত ৩১ অক্টোবর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সেলিম প্রধানকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান। আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক আল মামুন তার উপস্থিতিতে রিমান্ড শুনানির জন্য ৩ নভেম্বর দিন ধার্য করেন। গত ২৮ অক্টোবর সেলিম প্রধানকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। আদালত তা শুনানির জন্যও একই দিন ধার্য করেন।

১২ কোটি ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৫৪ টাকা অবৈধভাবে অর্জনের অভিযোগে গত ২৭ অক্টোবর অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান। পরদিন গুলশান থানায় তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ও মুদ্রাপাচার প্রতিরোধ আইনে দুটি মামলা করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

৩০ সেপ্টেম্বর থাই এয়ারওয়েজের টিজি-৩২২ নম্বর ফ্লাইট ছাড়ার আগ মুহূর্তে সেলিম প্রধানকে আটক করা হয়। পরে সেলিম প্রধানের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার গুলশানের কার্যালয় ও বনানীর বাসায় অভিযান চালান র‌্যাব সদস্যরা। এ অভিযানে ৪৮ বোতল বিদেশি মদ, ২৯ লাখ টাকা, ২৩টি দেশের মোট ৭৭ লাখ সমমূল্যের বৈদেশিক মুদ্রা, ১২টি পাসপোর্ট, দুটি হরিণের চামড়া, তিনটি ব্যাংকের ৩২টি চেক ও অনলাইন গেমিং পরিচালনার একটি বড় সার্ভার জব্দ করা হয়। তিনি বাংলাদেশে অনলাইনে ক্যাসিনো ব্যবসার মূলহোতা বলে জানিয়েছে র‌্যাব। হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনায় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে সেলিম প্রধানকে ছয় মাসের কারাদন্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এইচএম/একেএস

আরও পড়ুন