• ঢাকা
  • বুধবার, ০৮ এপ্রিল, ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০১৯, ০৩:১৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৩, ২০১৯, ০৩:১৬ পিএম

সুপেয় নয় ওয়াসার পানি : হাইকোর্টে বিশেষজ্ঞ প্রতিবেদন

জাগরণ প্রতিবেদক
সুপেয় নয় ওয়াসার পানি : হাইকোর্টে বিশেষজ্ঞ প্রতিবেদন

পানি সরবরাহ কর্তৃপক্ষের (ওয়াসা) সরবরাহকৃত পানি সুপেয় বলে দাবি করে সংস্থাটি। তবে তাদের এমন দাবি সঠিক নয় বলে হাইকোর্টকে প্রতিবেদন দিয়েছে বিশেষজ্ঞদের কমিটি।

সম্প্রতি পাঠানো এই প্রতিবেদনের ওপর বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে চলতি সপ্তাহে শুনানি হতে পারে। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নুর-উস সাদিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ সাঈদ উর রহমান স্বাক্ষরিত ৫ পৃষ্ঠার এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওয়াসার পানি সুপেয়- সংস্থাটির এমন দাবি অসত্য। ওয়াসার পানিতে মিলেছে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ও মলের জীবাণু।

প্রতিবেদনে নগরবাসীর জন্য সুপেয় পানি নিশ্চিতে ৪ দফা সুপারিশ করা হয়েছে। এগুলো হলো- 

১. পানিতে কোনো ধরনের দূষণ বা জীবাণুর সংক্রমণ ঠেকাতে ঢাকা ওয়াসার উচিত পানি সরবরাহ লাইনগুলোর মেরামত করা ও লাইনগুলো আধুনিক করা। এজন্য ঢাকা ওয়াসাকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাথে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।

২. ঢাকা শহরে সরবরাহকৃত পানির মান যাচাই ও মনিটরিং করার জন্য তৃতীয় কোনো পক্ষের মাধ্যমে ক্যাম্পেইন চালু করতে হবে। এছাড়া এ ক্যাম্পেইনের জন্য আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা নিশ্চিত করতে হবে। বছরজুড়ে এ ক্যাম্পেইন অব্যাহত থাকবে

৩. ভোক্তাদের মধ্যে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন চালাতে হবে যাতে তারা বাসা-বাড়িতে থাকা পানির ট্যাংকি ও হাউসগুলো পরিস্কার রাখে।

৪. অবৈধ পানির সংযোগ বন্ধ করতে হবে যাতে সুপেয় পানির সরবরাহ নিরাপদ থাকে ও পানি দূষণমুক্ত থাকে।

বিশেষজ্ঞ কমিটি তাদের মতামত তুলে ধরে বলেছেন, ওয়াসা ও দুই সিটি করপোরেশন সমন্বিতভাবে কাজ করলে ওয়াসার লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ব্যাকটেরিয়া কিংবা জীবাণু ঢুকতো না বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এর আগে, গত জুলাইয়ে হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত আগের কমিটি আদালতে দাখিল করা প্রতিবেদনে ঢাকা ওয়াসার ১০টি মডস জোনের মধ্যে চারটি জোন এবং সায়েদাবাদ ও চাঁদনিঘাট এলাকা থেকে সংগৃহীত ৮টি নমুনাতে পানিতে দূষণ পেয়েছে বলে আদালতকে জানান। এসব এলাকার পানিতে ব্যাকটেরিয়া, উচ্চমাত্রার অ্যামোনিয়া পাওয়া গেছে। এছাড়াও কিছু কিছু নমুনাতে মলের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে বলেও আগের প্রতিবেদনে বলা হয়।

কিন্তু তা মানতে চায়নি ওয়াসা। এমন বাস্তবতায় আরেকটি বিশেষজ্ঞ কমিটিকে পানি পরীক্ষায় দায়িত্ব দেন হাইকোর্ট। বিশেষজ্ঞ কমিটির দাখিল করা নতুন এ প্রতিবেদনেও ওয়াসার পানিতে ক্ষতিকর ই-কোলাই ও ব্যাকটেরিয়া পাওয়ার সত্যতা মিলেছে।

এমএ/একেএস

আরও পড়ুন