• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: মে ১৮, ২০১৯, ০৬:৩২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ১৯, ২০১৯, ০৭:৩৪ পিএম

মুক্তিযোদ্ধার ভাষ্য

“অনেক মাদ্রাসায় দেখি বাংলাদেশের ফ্ল্যাগ ওড়ে না”

সালেক খোকন
“অনেক মাদ্রাসায় দেখি বাংলাদেশের ফ্ল্যাগ ওড়ে না”

“সত্তরের আগের কথা। আমরা তহন ছোডো। আইয়ুব খান ও ফাতেমা জিন্নার মধ্যে নির্বাচন। আইয়ুব খানের মার্কা ‘গোলাপফুল’। ফাতেমা জিন্নার ‘হেরিকেন’। বিকাল ইলেই ফাতেমা জিন্নার মিছিলে যাইতাম। আইয়ুব খানের পক্ষে ছিল সিরাজ আর মতি ভাইরা। নির্বাচনে আইযুবের দলই জিতে। ওরা তহন আমগোরে টিটকারি দিয়া মিছিলে গান ধরে– ‘পুবালের বাতাসে নিভিলো হেরিকেন। জয়, জয়, জয় — আইয়ুব খানের জয়।’ গান শুইনাই জিদ চাইপা যাইত। “বাপ-চাচাদের আলাপে শুনতাম দেশভাগের কথা , পাকিস্তান হওয়ার গল্প, তারপর পাকিস্তান অইলেও শান্তি অইলো না। পশ্চিম পাকিস্তানিরা আমাদের ভালো চোখে দেখতো না। আমাগো সম্পদ নিয়া তারা দেশ সাজাইত ।  আমাদের বাজারে চায়ের দোকানে  তখন পশ্চিম পাকিস্তান আর পূর্বপাকিস্তানের বৈষম্য নিয়ে আলোচনা হতো। আমগো দেশের ভালো জিনিস পশ্চিম পাকিস্তানে চইলা যায়। কাগজের দাম ছিল বেশি। বালাম চাল এখানে চাষ হইলেও আমরা খাইতে পারতাম না। এসব নিয়া যে দ্বন্দ্ব দেখা দিলো , তাতে দেশটার রাজনৈতিক পরিস্থিতি  দিন দিন কেমন যেন বদল হইয়া যচ্ছিলো। সবার আলোচনার মূল বিষয় তখোন বঙ্গবন্ধু। 

“আমগো এহানে আওয়ামী লীগের নেতা তহন নুরু জমারদার, সামাদ কাজী, রব খানসহ অনেকেই। আমি রাজনীতি বুঝতাম না। কিন্তু দেখতাম মাঝে-মইধ্যে বাজারের বাতি নিভাইয়া দিত। কেন? জিজ্ঞেস করলে বাবা কইত, যদি প্লেন থাইকা বোমা মারে! কতকিছু ভাবতাম তহন। বোমা ফালাইলে গ্রামের সব লোক তো মইরা শেষ অইয়া যাইবো। ওরা কেন নিরীহ মানুষ মারব? ওরা না মুসলমান! এসব প্রশ্ন দেখা দিতো মনে। কিন্তু কোন উত্তর পাইতাম না।

পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে শাখাওয়াতের বাঁ হাতের কনুইয়ের ওপরের হাড় গুঁড়ো হয়ে যায়

মুক্তিযুদ্ধের আগের ও মুক্তিযুদ্ধের সময়ের নানা ঘটনা নিয়ে নিজ বাড়িতে বসে কথা বলছিলেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এস এম শাখাওয়াত হোসেন।

আবুল হাশেম সরদার ও আছিয়া বেগমের বড় সন্তান শাখাওয়াত হোসেন। বাবা ছিলেন চালের ব্যবসায়ী। বাড়ি বরিশালের উজিরপুর উপজেলার বাবার খানা গ্রামে। লেখাপড়ায় তাঁর হাতেখড়ি ধামুরা প্রাইমারি স্কুলে। পঞ্চম শ্রেণি পাসের পর তিনি ভর্তি হন ধামুরা হাই স্কুলে। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ছিলেন ওই স্কুলেরই ক্লাস নাইনের ছাত্র।

শৈশবের নানা স্মৃতি আজও তাঁকে আন্দোলিত করে। শাখাওয়াতের ভাষায়:

“বন্ধু মানিক খা, শাহজাহান খা, ফারুক, ইসমাইল, জয়নালের লগে আড্ডা দিতাম। ভরদুপুরে মাইনষের জমির কলাইয়ের সিম তুলছি। লবন দিয়া সিদ্ধ কইরা, ওই সিম মজা কইরা খাইতাম বাগানবাড়িত বইসা। রসের সিজনডা ছিল অন্যরকম। মধ্যরাতে রসের গাছ থেকে রসের কলস পাইরা রাতেই রস শেষ করতাম। গ্রামে যাত্রা হইত বছরে একবার। ‘রহিম বাদশা’, ‘মা মাটি মানুষ’ পালা দুটি ছিল নামকরা। মাঝেমইধ্যে স্কুল মাঠে সার্কাস দেখাইতে আসত গৌরনদীর লক্ষণ দাসের দল। কী যে ভাল লাগত ওই সার্কাস! তহন মজা করছি যেমন আবার বাপ-মায়ের মাইরও খাইছি খুব।”

শাখাওয়াতের অনুকূলে সাব-সেক্টর কমান্ডারের প্রত্যয়ন

 ্কেম অস্থিতিশীল অবস্থার মধ্যে চলছিলো দেশ। কেমন গুমোট পরিস্থিতি কিছুই বোঝা যাচ্ছিলো না। এর মধ্যে শাখাওয়াত একদিন বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ শোনেন রেডিওতে। তিনি বলেন:

“ওইদিন ছিল হাটবার। মা আমারে পাঠায় ধামুরা বাজারে। মানুষ মরলে যেমন ভিড় লাগে, দেহি দোকানে দোকানে মানুষের তেমন ভিড়। একটা দোকানে গিয়া শুনলাম ভাষণডা। বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরও দেব, এ দেশকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ…।’ চেতনা তহন জাইগা ওঠে। বঙ্গবন্ধুর কথাগুলাই রক্তের লগে মিশা গেছিল।

২৫ মার্চ ১৯৭১। ঢাকায় পাকিস্তানি আর্মিরা গণহত্যা চালায়।  বরিশালেও আর্মি আসে । বরিশাল দখলে নিয়েই আর্মিরা গানবোট নিয়ে আশপাশের এলাকার বাঙালি হত্যার মিশনে নামে। একবার তারা ধামুরায় এসে বাজার জ্বালিয়ে দেয়। ওইদিনই হত্যা করে সরেন ডাক্তারসহ তিনজনকে। ষোলকগ্রামে ঢুকেও মেরে ফেলে কয়েকজনকে। এ সব দেখে ঠিক থাকতে পারেন না শাখাওয়াত। সিদ্ধান্ত নেন মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার। তিনি বলেন:

“মালেক, হাবিব, মোজাম্মেল, শফিকুল ও আমি– পাঁচজন একত্রিত হই। আমাদের মধ্যে বড় ও চৌকস ছিল মালেক। খোঁজ নিয়ে ওই-ই ট্রেনিংয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। কিন্তু সঙ্গে নিতে হবে দুই কেজি চিড়া, আধা কেজি গুড়, নগদ কিছু টাকা। দোকান থাইকা আব্বা নামাজে গেলে সে সুযোগটা নিই। দোকানের চাল বেইচা পাই ২২ টাকা। বাড়িতে কৌটায় রাখা ছিল আম্মার একটা স্বর্ণের হার। ওইটা নিয়া পরে ভারতে বেইচা দেই দেড় শ টাকায়।

শাখাওয়াতের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালের চিঠি

“শ্রাবণ মাসের এক ভোরে আমরা নৌকায় রওনা হই। ধামুরা বাজার থেকে সোজা পশ্চিম দিকে। পরে যশোরের বাগদা বর্ডার দিয়ে চলে যাই ভারতের হাসনাবাদ ক্যাম্পে। সেখান থেকে পাঠানো হয় প্রথমে জোড়পুকুর পাড় এবং পরে পিপা ক্যাম্পে। ছয়-সাত দিন চলে লেফট-রাইট সেখানে। অতঃপর হায়ার ট্রেনিংয়ের জন্য আমগো ১২৫ জনকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বীরভূম পাহাড়ের ক্যাম্পে।”

বীরভূমের প্রথম ব্যাচে শাখাওয়াতরা ট্রেনিং নেন ২৯ দিন। জঙ্গল প্যারেড ছিল চারদিন। ভারতের শিখ সেনারা ট্রেনিং করাতো। সাইজে ছোট ছিলেন শাখাওয়াত। ফলে ক্রলিংয়ের সময় পেছনে পড়ে যেতেন। কষ্ট ছিল অনেক। তবু বুকে তাঁর দেশ স্বাধীনের বাসনা। সব কষ্ট মেনে নিয়ে শিখে নেন রাইফেল, এসএলআর, এলএমজি চালানো। শেষে ফায়ারিং স্কোর্য়াডে পাঁচ রাউন্ড ফায়ার করেন তিনি। “‘জুলুম করব না, অত্যাচার করব না, শক্রুকে ঘায়েল করব, দেশ স্বাধীন করতে মৃত্যুকেও মেনে নিব’— এমন শপথ করেছিলাম বেগুনদি ক্যাম্পে বসে। পরে অস্ত্র দিয়ে আমাদের ৫০ জনকে পাঠানো হয় ভোলায়। নৌকায় নৌকায় গিয়ে গেরিলা অপারেশ করতাম। ৯ নম্বর সেক্টরের দৌলত খাঁ থানা ও চরপাতা গ্রামে যুদ্ধ করেছি। কমান্ড করতেন আলি আকবর। ১০ জন করে গ্রুপও ছিল। আমার গ্রুপে কমান্ডার ছিলেন মজিবুল হক মন্টু।”

‘দৌলত খাঁ থানা অপারেশন’ ছিল মুক্তিযোদ্ধা শাখাওয়াতের প্রথম যুদ্ধ। সারা রাত ফায়ারিং হচ্ছিল। পেছন থেকে ছোড়া মর্টারগুলো ঠিক জায়গায় পড়ছিল না। ফলে বিপদে পড়ে যায় সবাই। থেমে থেমে গোলাগুলি চলছে। পাঞ্জাবিরা ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ বলে গুলি চালায়। ‘জয় বাংলা’ বলে শাখাওয়াতরাও প্রত্যুত্তর দেয়।

পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা শাখাওয়াত

রশিদ নামে এক মুক্তিযোদ্ধা ছিল শাখাওয়াতদের সঙ্গে। এক বাপের এক ছেলে। রসিকতা করে ক্যাম্পের সবাইকে মাতিয়ে রাখত। ওই অপারেশনে তাঁর পজিশন ছিল শাখাওয়াতের ডান পাশে, মরা একটি খেজুর গাছের পাশে। হঠাৎ গুলি এসে লাগে তাঁর মাথায়। ছিটকে পড়েন তিনি। ধীরে ধীরে নিথর হয়ে যায় তাঁর দেহ। চোখের সামনে সহযোদ্ধার এমন মৃত্যুতে শাখাওয়াতরা ঠিক থাকতে পারে না। মনে জাগে প্রতিশোধের আগুন। ওই অপারেশনেই তাঁরা থানা দখল করে নেয়। আত্মসমর্পন করান ২০-৩০ জন পাকিস্তানি সেনাকে। ওদের ওপর সাধারণ মানুষ এতই ক্ষুব্ধ ছিল যে, কয়েকজনকে একটি পুকুরে নামিয়ে পিটিয়ে মারে।এক অপারেশনে মারাত্মকভাবে রক্তাক্ত হন মুক্তিযোদ্ধা শাখাওয়াত। পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে তাঁর বাঁ হাতের কনুইয়ের ওপরের হাড় গুঁড়ো হয়ে যায়। ফলে হাতটি সারা জীবনের জন্য কর্মক্ষমতা হারায়। ব্যথা হয় এখনও। বললেন তিনি। তিনি সেই মরনপন যুদ্ধের স্মৃতিচারণ করে আরো বলেন,

“আমগো ক্যাম্প তহন চরপাতা গ্রামে, সুশীল ডাক্তারের বাড়িতে। ভোলার ওয়াপদা অফিসে ছিল পাকিস্তানি সেনাগো ক্যাম্প। সেখান থেকে ওরা আসবে চরপাতায়। ওই গ্রামের হিন্দুরাই ছিল ওগো টার্গেট। খবরটা পাই ওয়াপদা অফিসের এক ইলেকট্রিক মিস্ত্রির কাছে।“আগের দিনই আমরা ১০-১২টা বাংকার করি ঘুংগিয়ার হাটের মোড়ে। ওই পথেই ঢুকতে হয় চরপাতা গ্রামটিতে। মোহাম্মদ আলী টুনি নামে এক লোক ছিল ওখানে। বাংকার তৈরিতে সে আমগো সাহায্য করে। কাজ শেষে বাড়িতে নিয়া খাসি জবাই দিয়া খাওয়ায়। কিন্তু টুনি যে ভেতরে ভেতরে পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখত, আমরা তা জানতাম না।

“তখন শীতকাল। রাতের বেলায় তো আর্মি গ্রামে ঢুকবে না। টুনি আমগো ক্যাম্পে ফিরে যাওয়ার পরামর্শ দেয়। আমরাও তা-ই করি। কিন্তু রাতের মধ্যেই সে পাকিস্তানি আর্মিগো খবর দেয়। ওরা এসে আমগো বাংকারেই পজিশন নিয়া অপেক্ষায় থাকে।“মাঝখানে ফাঁকা মাঠ। এরপরই ছিল ক্যাম্প। নানা চিন্তায় সারা রাত আমগো ঘুম আসে না। আনুমানিক ৪ নভেম্বরের ঘটনা। খুব ভোরে একটা গ্রুপ রওনা হলাম। সবার সামনে রেইকিম্যান। মজিবুলই কমান্ডে। খুব কুয়াশা ছিল। কাছাকাছি কিছুই দেখা যায় না। বাজারের একদিকে পাকিস্তানি সেনারা টহল দিচ্ছে। অন্যদিক দিয়া ঢুকি আমরা। হঠাৎ ওরা সামনাসামনি হয়ে যায়। মুখোমুখি হতেই হাতাহাতি শুরু হয়।

“আমরা প্রস্তুুত ছিলাম না। আত্মা তখনই শুকিয়ে গেছে। পাকিস্তানি এক সেনা বন্দুক তাক করে আমার বুকে। টিগারে চাপ দেওয়ার আগেই ডানে সরে আসি। ফলে গুলি এসে লাগে আমার বাঁ হাতে, কনুইয়ের ওপরের হাড়ে। ছিটকে পরি রাস্তার পাশের নিচু জায়গায়। মনে হচ্ছিল কাঁটার গুঁতা খেয়েছি। পিলপিল করে রক্ত বেরুচ্ছে। আঙুলে স্পর্শ করতেই দেখি হাড়ের গুঁড়া বেরিয়ে আসছে। রক্ত গিয়ে ক্রমেই শরীর নিস্তেজ হয়ে যাচ্ছিল। প্যাক-কাদার ভেতর দিয়ে ক্রলিং করে সরে যেতে চাচ্ছিলাম। কিন্তু না, হাতের ব্যথায় তা-ও পারি না। হাড় গুঁড়ো হয়ে দুইভাগ হয়ে গেছে। চামড়ার সঙ্গে লেগে ছিল কোনো রকমে। নাড়া লাগলেই হাড্ডিতে হাড্ডি ঘষা লেগে জীবন বেরিয়ে যাচ্ছিল। রক্তাক্ত দেহ নিয়ে কাদার মধ্যেই পড়ে থাকি। মনে মনে জপি আল্লাহর নাম।

“গোলাগুলি থামতেই পাকিস্তানি সেনাগো চোখ পড়ে আমার ওপর। একজন বলল, ‘হামারে আদমি নেহি। শালাকো গুলি কর।’ আরেকজন বলে, ‘বাদ মারো। শালা মার গ্যায়া।’ আমি ওদের পায়ের আওয়াজ শুনছিলাম। ওরা চলে যেতেই পাশের একটা বাড়িতে গিয়া উঠি। প্রচণ্ড পানির পিপাসা। শরীরও কাঁপছে। কাসার বাটিতে করে এক হিন্দু লোক পানি এনে দিল। দুই ঢোক খাওয়ার পরই হাত থেকে বাটিটা পড়ে যায়। এরপর জ্ঞান হারাই।”

গুলি লাগার চেয়েও কষ্টের ছিল বীর এই মুক্তিযোদ্ধার চিকিৎসার সময়টা। সে কথা বলতে গিয়ে চোখ ভেজান তিনি। দেশের স্বাধীনতার জন্য এক যোদ্ধার কষ্টের অনুভূতি আমাদের স্পর্শ করে। তিনি বলেন:

“ওই কষ্টগুলার কথা ভুলতে পারমু না। হাতের দিকে তাকালেই সব জীবন্ত হয়ে ওঠে! দুই টুকরা হয়ে হাড় ঝুলে ছিল চামড়ার সাথে। চরপাতা গ্রামের কয়েকজন বলাবলি করছিল, হাতটা কেটে ব্যান্ডিজ করলে ভালো হবে। কথাটা কানে আসতেই চিৎকার দিয়ে উঠি। হাতে লাগা প্যাঁক কাদাগুলো ধোয়া হয় পানি ঢেলে। শরীরটা তখন কেঁপে কেঁপে জায়গাটাও ছ্যাচছ্যাচ করে ওঠে। কী যে কষ্ট পাইছি! ‘মাগো’, ‘বাবাগো’ বলে কত কাঁদছি!

“একদিন ভোলা হাসাপাতাল থেকে এক ডাক্তার এসে ইনজেকশন দিয়ে যায়। হাতে তখনও ঘা। কষ্টও বেড়ে গেছে। উঠতে পারতাম না। বিছানায় শুয়ে শুয়ে কলার খোলে পায়খানা করতাম। সেটা ফেলে দিত মান্নান নামের এক যুবক। ও আমারে ভাইয়ের মতো সেবা করছে।  আমার হাতে তহন পচন ধরা। কিন্তু  দেশ স্বাধীন অইছে এ কথা শুইনাই সব কষ্ট কইমা গেল। মনে হইছে ফাল দিয়া উইঠা যাই।”

স্বাধীনতার পর চিকিৎসার জন্য শাখাওয়াতকে পাঠানো হয় ঢাকায়। পরে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে হাতের অপারেশন করেন ডাক্তার গ্যাস্ট। বাঁ হাতের কবজিতে রড ঢুকিয়ে চারটা নাট-বল্টু লাগিয়ে, হাড়ের টুকরা দুটি জয়েন্ট দেওয়া হয়। ওই হাতে কোনো রগ নেই বলে জানালেন বীরমুক্তিযোদ্ধা শাখাওয়াত । হাতটা  এখনও  তেমন নাড়াতে পারেন না শাখাওয়াত।স্বাধীনতার পরের বাংলাদেশ প্রসঙ্গে এই যোদ্ধা অকপটে তুলে ধরেন নিজের মতামত। তাঁর ভাষায়:  মুক্তিযুদ্ধের পরে সঠিক মুক্তিযোদ্ধদের তালিকা হয়নি। তালিকার মাঝে অনেক অমুক্তিযোদ্ধা ঢুকে গেছে। এজন্য কষ্ট লাগে। জীবনডারে হাতে নিয়া দেশমাতৃকাকে রক্ষার জন্য যুদ্ধ করেছি।মুক্তিসংগ্রামে যুদ্ধ করতে পেরে গর্ববোধ করি। কিন্তু যারা মোটেই যুদ্ধ না করে আমাদের চেয়ে অনেক বেশী সুবিধা গ্রহণ করছে তাদের দেখলে বড় কষ্ট লাগে।

“আমার বাড়ির পাশেই সিরাজ নামে এক মুক্তিযোদ্ধা আছে। ওরে বাজারে আনেন। ও মুক্তিযোদ্ধা যদি প্রমাণ করতে পারে, আমি রাষ্ট্রী ভাতা নিমু না। সব হয় যোগযোগে। মুক্তিযোদ্ধার তালিকা কেন বাড়ে, এই কথা বললে তো অনেকেরই খারাপ লাগবে। স্বাধীনের পর মিলিশিয়া ক্যাম্প ভেঙে দেওয়াটা ভুল ছিল। তখনই একটা মুক্তিযোদ্ধাগো তালিকা করে গেজেট করা যেত। তালিকা বাড়ার দায় যেমন সরকারের, তেমনি মুক্তিযোদ্ধাগোও। ওসমানির সনদ পাওয়া গেছে পানির দরে। হেমায়েত বাহিনীর হেমায়েতের সনদ নিয়ে বহু অমুক্তিযোদ্ধাও মুক্তিযোদ্ধা হইছে।”

বঙ্গবন্ধু ও তাঁর মেয়ের শাসনামলের তুলনামূলক মূল্যায়ন করেন এই সূর্যসন্তান। তিনি মনে করেন, বঙ্গবন্ধু বড় নেতা ছিলেন, কিন্তু রাষ্ট্রক্ষমতা পরিচালনায় বাবার চেয়েও এগিয়ে শেখ হাসিনা। তাঁর ভাষায়:“শেখের মেয়ের সততা, বিবেক, বিচক্ষণতা, যোগাযোগ, সাহসিকতা অনন্য। নিজের জীবনের পরোয়া তিনি করেন না। চান গণমানুষের পাশে থাকতে। তাই দিন শেষে আমগোও ভরসা শেখ হাসিনায়।”

কী করলে দেশ আরও এগোবে?

‘অন্তর্কলহ থেকে বেরিয়ে আসতে হবে নতুবা দেশ এগোবে না। আমি ‘তাবলিগ জামায়াত’ করি। অনেক মাদ্রাসায় দেখি বাংলাদেশের ফ্ল্যাগ ওড়ে না। ওখানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসেরও কোনো বই নেই। তাহলে ওরা দেশ নিয়ে কী জানবে? এদের সংখ্যাও কিন্তু কম না। দেশ স্বাধীনের আগে কয়টা মাদ্রাসা ছিল, স্বাধীনের পরে দেখেন কতশ’ হয়েছে। তাই মাদ্রাসার শিশুদেরও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস জানাতে হবে। দেশের ইতিহাস না জানলে ওরা তো ভিন্নভাবে হবে বড় হবে। তাহলে প্রজন্মে প্রজন্মে ডিভাইডেশন তো আমরাই রেখে দিচ্ছি। সরকারের উচিত এই দিকে খেয়াল করা।’

স্বাধীন দেশে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ভালো লাগার অনুভূতি জানতে চাই আমরা। উত্তরে এই বীর মুক্তিযোদ্ধা বলেন:“মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার ক্ষমতায়। বাঙালি হিসেবে আজ আমরা নিজেদের পরিচয়টাই বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে পারি। এটাই ভালো লাগে।”

খারাপ লাগে কখন?

 স্বাধীনতাযুদ্ধ যে জন্য করেছিলাম ,যে স্বপ্ন দেখেছিলঅম তা পূরণ না হলে বেশী কষ্ট পাই। ১৯৭১-এ পাকিস্তানি সেনা ও স্বাধীনতাবিরোধী, রাজাকার, আলবদরদের হত্যাযজ্ঞের ইতিহাসসহ মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বের ইতিহাসটিও তুলে ধরতে হবে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে। দেশের ইতিহাস না জানালে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রজন্ম তৈরি হবে না– এমনটাই মনে করেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এস এম শাখাওয়াত হোসেন। পরবর্তী প্রজন্মের উদ্দেশ্যে তিনি বললেন:“মা, মাটি, দেশ– এই তিনটির প্রতি ভালোবাসা না থাকলে তোমরা এগোতে পারবে না। মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বের ইতিহাসই তোমায় পথ দেখাবে। তাই স্বাধীনতার ইতিহাসটি তোমরা ছড়িয়ে দিও।”

ডিজি

Space for Advertisement