• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১৫ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮, ০৪:৩৭ পিএম

রাজাকার কখনো মুক্তিযোদ্ধা হতে পারে না: আবেদ খান

জাগরণ প্রতিবেদক
রাজাকার কখনো মুক্তিযোদ্ধা হতে পারে না: আবেদ খান
তিতুমীর কলেজে আয়োজিত মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন আবেদ খান; ছবি- জাগরণ

 

একজন মুক্তিযোদ্ধা যে কোনো সময় রাজাকার হয়ে যেতে পারে, কিন্তু একজন রাজাকার কখনো মুক্তিযোদ্ধা হতে পারে না।

রোববার সকালে রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজে মহান বিজয় দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানের মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে এ কথা বলেন প্রখ্যাত গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও দৈনিক জাগরণের সম্পাদক ও প্রকাশক আবেদ খান।

তিনি কলেজের ছাত্রছাত্রীদের নিকট মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে নিজের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ, মুক্তিযুদ্ধের পর পারিবারিকভাবে নির্যাতিত হওয়াসহ আইয়ূব বিরোধী আন্দোলনের বিষয়গুলো সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরেন। 

সরকারি তিতুমীর কলেজ আয়োজিত মহান বিজয় দিবস-২০১৮ উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ঢাকা-১১ আসনের সংসদ সদস্য একেএম রহমতুল্লাহ।

অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আশরাফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোসা. আবেদা সুলতানা, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক কামরুন নাহার।

এছাড়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর মালেকা আক্তার বানু, ঢাকা মহানগর (উত্তর) আওয়ামী লীগের সদস্য শফিকুল ইসলাম বাসেদ, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রিপন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল প্রমুখ।

সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে আবেদ খান আরো বলেন, ‘আগামী ৩০ ডিসেম্বর আরেকটি মুক্তিযুদ্ধ হবে। এই যুদ্ধেও আমাদের জিততে হবে। কারণ শেখ হাসিনার মতো একজন সৎ ও আদর্শবান ব্যক্তিকে আমরা রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে পেয়েছি এটা আমাদের সৌভাগ্য। বর্তমান বিশ্বে যে ৫ জন সৎ রাষ্ট্রনায়ক আছেন তাদের মধ্যে অন্যতম শেখ হাসিনা। তিনিই একমাত্র রাষ্ট্রনায়ক, যার ব্যক্তিগত সম্পত্তি বলে কোনো কিছু নেই’।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন পরবর্তী সময়ের ইঙ্গিত করে বলেন, নির্বাচনের পরপর অনেক ষড়যন্ত্র, হত্যা, মারামারি ও লুটপাট হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তাই তোমাদের এগুলো প্রতিরোধ করতে হবে খুব শক্ত হাতে। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের মতো করে যদি বলি তাহলে বলবো, ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো। মনে রাখবে, যে জাতির একটি স্বাধীনতা দিবস থাকে সে জাতির পরাধীনতা থাকে না’।

প্রধান অতিথি একেএম রহমতুল্লাহ বলেন, ‘পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ নামে একটি দেশ স্বাধীনতা পেয়েছে শুধু বঙ্গবন্ধুর কারণে। আর তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে। তার কল্যাণেই আমরা এখন খাদ্য, বিদ্যুৎ ও অন্যান্য অনেক সম্পদে স্বয়ংসম্পূর্ণ’।

এসজে/আরআই