• ঢাকা
  • সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: মার্চ ১১, ২০২০, ০৬:২৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ১১, ২০২০, ০৬:২৩ পিএম

শিশুদের বঙ্গবন্ধুর গল্প শোনালেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

জাগরণ প্রতিবেদক
শিশুদের বঙ্গবন্ধুর গল্প শোনালেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
প্রতিমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে নেতৃত্ব দেন ● জাগরণ

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী শিশুদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে আমাদের বঙ্গবন্ধুর কথা উচ্চারণ করতে দেয়া হয়নি। বঙ্গবন্ধুর কথা স্কুলে-কলেজে বলতে দেয়া হতো না। তোমরা সৌভাগ্যবান শিশু। বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শিক্ষকরা তোমাদের ধানমন্ডিতে নিয়ে এসেছেন।

বুধবার (১১ মার্চ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ‘কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা’ সংগঠন আয়োজিত ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শিশুদের উদ্দেশে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

খালিদ মাহ্মুদ বলেন, আমরা বিজয়ী জাতি। ৩০ লাখ শহীদের রক্ত ও মা-বোনদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। ১৯৭৫ সনের ১৫ আগস্ট ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হয়। তখন বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের বয়স ছিল ১০ বছর। রাসেলকে মায়ের পাশে নিয়ে হত্যা করা হয়, যা ইতিহাসের একটি পৈশাচিক ঘটনা।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা এখন স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর কথা বলতে পারছি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। আলোকিত ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু ‘কুদরাত-ই-খুদা শিক্ষা কমিশন’ গঠন করেছিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সেটি আর আলোর মুখ দেখেনি।

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা সংগ্রামের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমাদের দাবাইয়া রাখতে পারবানা।’ পাকিস্তানিরা আমাদের দাবাইয়া রাখতে পারেনি। আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীন হয়েছি। বঙ্গবন্ধু ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে থাকতেন। তিনি এখান থেকেই স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতৃত্ব দেন। এ বাড়িতেই তাকে হত্যা করা হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুধু ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানালেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো হবে না। সেজন্য দেশপ্রেমিক সোনার মানুষ হতে হবে। সত্যিকার দেশপ্রেমিক সোনার মানুষ হয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানাতে তিনি শিশুদের প্রতি আহবান জানান।

প্রকৃত সোনার মানুষ হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠনে অবদান রাখতে প্রতিমন্ত্রী শিশুদের শপথবাক্য পাঠ করান।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। বঙ্গবন্ধুসহ শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ‘কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা’ সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। প্রতিমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে নেতৃত্ব দেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে সংগঠনের সভাপতি শিরিন আকতার মঞ্জু এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান জুয়েল উপস্থিত ছিলেন।

এএইচএস/এসএমএম