• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭
প্রকাশিত: আগস্ট ২৫, ২০২০, ০১:৫৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ২৫, ২০২০, ০১:৫৮ পিএম

বীর মুক্তিযোদ্ধা সি আর দত্ত বীরউত্তমের চির প্রয়ান

জাগরণ প্রতিবেদক
বীর মুক্তিযোদ্ধা সি আর দত্ত বীরউত্তমের চির প্রয়ান

মহান মুক্তিযুদ্ধের এক অন্যতম দুঃসাহসী বীরযোদ্ধা, মুক্তিবাহিনীর ৪ নং সেক্টর কমান্ডার অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল চিত্ত রঞ্জন দত্ত বীরউত্তম চলে গেলেন না ফেরার দেশে। কাঁদিয়ে গেলেন তার বহু ভালোবাসার সোনার বাংলাদেশকে।

বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টায় বার্ধক্য জনিত বিভিন্ন জটিলতায় ভুগতে থাকা এই অকুতোভয় বীরযোদ্ধা  যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় অবস্থিত একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

চার সন্তানের জনক মেজর জেনারেল (অব.) সি.আর.দত্তের এক পুত্র ও এক কন্যা বাস করেন নিউইয়র্কে। আরেক কন্যা ফ্লোরিডায় এবং চতুর্থ কন্যা থাকেন কানাডায়। এই চার সন্তানের কাছে ঘুরেফিরে একজন সুখী পিতার মতই অবসর জীবন কাটাতেন সি.আর.দত্ত বীরউত্তম।

ঘনিষ্ঠ সূত্রের তথ্য মতে জানা যায়, মেজর জেনারেল (অব.)সি.আর.দত্ত বীরউত্তম গত ২০ আগস্ট বৃহস্পতিবার তার বাসভবনের বাথরুমে হঠাৎ পড়ে যান। এতে তার পা ভেঙে যায়। এরপর জেনারেল দত্তকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এরপর থেকেই  তার শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটতে থাকে।

সি. আর. দত্ত বীরউত্তম ছিলেন বাংলাদেশ রাইফেলসের (বর্তমানে বিজিবি) প্রথম ডিরেক্টর জেনারেল।

বাংলাদেশ  সড়ক পরিবহন করপোরেশনের সাবেক চেয়ারম্যান, ধর্মীয় বৈষম্যবিরোধী মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা।

মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য তাকে বীরউত্তম খেতাবে ভূষিত করে সরকার।

চিত্ত রঞ্জন দত্তের জন্ম ১৯২৭ সালের ১ জানুয়ারি আসামের শিলংয়ে। তার পৈতৃক বাড়ি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশি গ্রামে। তার বাবার নাম উপেন্দ্র চন্দ্র দত্ত এবং মায়ের নাম লাবণ্য প্রভা দত্ত। শিলংয়ের ‘লাবান গভর্নমেন্ট হাইস্কুল’-এ দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছিলেন।

পরবর্তী সময়ে তার বাবা চাকরি থেকে অবসর নিয়ে হবিগঞ্জে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন।

হবিগঞ্জ গভর্নমেন্ট হাইস্কুল থেকে ১৯৪৪ সালে তিনি মাধ্যমিক পাস করেন। পরবর্তী সময়ে কলকাতার আশুতোষ কলেজে বিজ্ঞান শাখায় ভর্তি হয়ে ছাত্রাবাসে থাকা শুরু করেন তিনি। পরে খুলনার দৌলতপুর কলেজের বিজ্ঞান শাখায় ভর্তি হন এবং এই কলেজ থেকেই বিএসসি পাস করেন। সি আর দত্ত পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন ১৯৫১ সালে। প্রায় ২০ বছর কাটিয়েছেন পশ্চিম পাকিস্তানে। মাঝে মাঝে আসতেন নিজের এলাকায়।

মেজর জেনারেল (অব.)সি. আর.দত্ত বীর উত্তমের আজন্ম লালিত স্বপ্ন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভাসিত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ। সেই স্বপ্নের বাস্তবায়নেই আমৃত্যু নিবেদিত ছিলেন তিনি।

এসকে