• ঢাকা
  • বুধবার, ২২ মে, ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: মে ৮, ২০১৯, ০৩:২৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ৯, ২০১৯, ১২:১৫ এএম

উদ্দীপ্ত পৌরষ্যের ঝলক যেখানে

এস এম সাব্বির খান
উদ্দীপ্ত পৌরষ্যের ঝলক যেখানে

দাড়িতে কুকুরের পশমের চেয়ে অধিক জীবাণু থাকে, বিজ্ঞানীদের এমন একটি সমালোচিত মন্তব্যকে গবেষণার অর্ধেক সত্য বলে দাবি করা যেতে পারে এমনই বলছে বৈজ্ঞানিক সাইটগুলোর সাম্প্রতিক এক অনুসন্ধানে প্রাপ্ত ফলাফল। পূর্ণ সত্য হচ্ছে, অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় রাখলে মানুষের দাড়ি বা মাথার চুল যে কোন ধরণের পশমের গোড়ায় সংক্রামিত হতে পারে জীবানু, ছড়াতে পারে রোগ।

সেক্ষেত্রে বলা যেতে পারে স্টেট রিসার্চ ইন্সটিউট অব ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পৃক্ত সেই বৈজ্ঞানিক গবেষনা কেন্দ্রের প্রকাশিত তথ্যটি ছিলো অনেকাংশেই উদ্দেশ্য প্রণোদিত।
বিশ্বের ৬৩টি বিজ্ঞান সাইটের তথ্য অনুসন্ধান শেষে প্রাপ্ত দৈনিক জাগরণের এই সংক্ষিপ্ত অনুসন্ধানি প্রতিবেদনটিতে তুলে ধরা হলো এমন কিছু তথ্য যা হয়তো সবাইকে এই অবান্তর ধারণা থেকে মুক্তি দেবে।

নন্দিত সায়েন্টেফিক লাইফ স্টাইল সাইট 'লাইফ হ্যাক' এর প্রতিবেদক হলি সেভেজ পুরুষদের মুখের দাড়ির প্রসঙ্গে মন্তব্য করেন, 'তার মুখের দাড়ির ঘনত্বের দিকে তাকাও, পোড় খাওয়া চেহারার উপর সাজানো সেই দাড়িতে উদ্দীপ্ত পৌরষ্যের ঝলক তোমাকে বিমোহিত করিবে।' 

আর বিজ্ঞান বলছে, পুরুষের দেহের মেইল ভার্সন সিস্টেম যথাযথ ভাবে হরমোনের সহায়তা পাচ্ছে কিনা এবং হরমোনের বৃদ্ধির মাত্রা সঠক আছে কিনা তা নিরুপনের সহজতম পথ মুখের দাড়ির বৃদ্ধির মাত্রা। মানব দেহের হরমোন তার বৃদ্ধি ও বিকাশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। মুখের ত্বক সবচেয়ে স্পর্শ কাতর আর সেখানে দাড়ি গজানোর উপরেই নির্ভর করে তার হরমোন বৃদ্ধি ও সঞ্চারণের সঠিক মাত্রা।

সাইটের তথ্যে আরো বলা হয়, মুখের দাড়ি সূর্যের ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মি থেকে মুখের নাজুক ত্বককে ঢালের মত রক্ষা করে। তাছাড়া মুখের দাড়ি ও।মাথার চুল হচ্ছে সবচেয়ে উন্নত মানের প্রোটিন ফাইবার যা দেহে প্রোটিনের মাত্রা নির্ধারণে সহায়ক। কারো দেহে প্রোটিন ঘাটতি বা গুরুত্বপূর্ন ভিটামিন ও মিনারেলের অভাব আছে কিনা সেটি বুঝতে অবুঝের মত অর্থ ব্যয় প্রয়োজন নেই। চুল বা দাড়ি ঝড়ে পরার মাঝেই একজন সাবধান হতে পারেন এ ব্যাপারে সঠিক সময়ে নিতে পারেন সঠিক পদক্ষেপও।

মুখের দাড়ি ত্বকের প্রায় শতাধিক প্রাণঘাতি স্কিন সক্রামন ব্যাধি থেকে রক্ষা করতে পারে। মুখের ত্বক নাজুক বলেই এসকল রোগ সচরাচর মুখের চামড়া থেকেই সংক্রামিত হয়। মুখের দাড়ি সীসার মত জীবাণুবাহী ধূলিকণা ও ময়লা থেকে ত্বককে রক্ষা করে। যার কারনে দাড়িকে ত্বকের প্রাকৃতিক ছাকনি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞানীরা মুখের দাড়িকে তুলোনা করছেন যৌবন ও সতেজতার অবিরাম ঝর্ণার সঙ্গে। পটেনশিয়াল এক্সেস অব প্রোটিন ফাইবার অব হিউম্যান হারমোনিক সিস্টেম-এর এক গবেষণায় জানা গেছে দাড়ি ত্বকের উপরিভাগে যেমন ব্রণের প্রবণতা কমিয়ে ঘা বা ক্ষত সৃষ্টি থেকে ত্বককে রক্ষা করে তেমনি ত্বকের ভেতরের কোষের স্তরবিন্যাসকেও নিয়ন্ত্রন করে। এতে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধি পায়, হয়ে উঠে যৌবন উদ্দীপ্ত। মুখের দাড়ি ত্বকের পেশির উপর সহনীয় একটি ভরের মত যা সার্বক্ষনিক একটি সহনীয় মাত্রার ভর উত্তলনের মত ব্যায়াম করা পেশিকে, রাখে সবল। শুধু তাই নয় মুখের দাড়ি ত্বককে ছায়া দেয় এবং বার্নিং এইক বা ত্বকীয় কোষের ঝলসে যাওয়া প্রতিরোধ করে। এর ফলে ত্বকের ক্যান্সার সৃষ্টির সম্ভাবনা ব্যাপক মাত্রায় হ্রাস পায়।

দাড়ির যত্নে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত ব্র্যান্ডেড যত প্রসাধনী সামগ্রি

মুখে দাড়ি রাখা ও তার সঠিক পরিচর্চা ত্বকে বলিরেখার প্রকপ হ্রাস করে যা বয়স ধরে রেখে ত্বকে আনে উজ্জীবিত রূপ। সে সঙ্গে এটি ত্বকে ডিহাইড্রেশনের মাত্রাও হ্রাস করে।

আরেকটি বিস্ময়কর তথ্য হচ্ছে, মুখ ব্রাশ করার সময় ভেতরের অংশে খুব কমই তা পৌছায় যেটিকে লায়ন'স শেয়ার বলা হয়। এর ফলে মাড়িতে ও চোয়ালের ভেতরের মাংস পেশিতে গাম ডিজিজ হবার প্রবণতা থাকে। যাদের মুখ ভর্তি দাড়ি তাদের ক্ষেত্রে এ রোগের ঝুকি ২০% কম।

তবে সৌন্দর্য বলুন বা স্বাস্থ্যগত কারণ, দুটি বিষয়ই নিশ্চিত করতে হলে আপনাকে থাকতে হবে পরিচ্ছন্ন ও টিপ টিপ। আর দাড়িকে দর্শনীয় করতে নিয়মিত ট্রিমিং ও টিউনিংয়ের কোনো ব্যতিক্রম নেই। আর অপরিচ্ছন্নতা আপনার এই জৌলুসে শুধু জীবাণু নয় দিতে পারে প্রাণঘাতি ব্যাধিও।

লেখক: সহ-সম্পাদক, দৈনিক জাগরণ

এসজেড

Space for Advertisement