• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৩, ২০২১, ০৮:৪৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ১৪, ২০২১, ১১:১৮ এএম

কী করে এলো টুথপেস্ট ও টুথব্রাশ?

কী করে এলো টুথপেস্ট ও টুথব্রাশ?

সকাল ঘুম থেকে উঠেই প্রথম যে কাজটি করেন আপনি, তা হলো দাঁত ব্রাশ। দিনের শুরুতেই এই কাজটি না করলে দিনই চলে না আমাদের। আর এর জন্য চাই ভালো মানের টুথপেস্ট। বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নানা টুথপেস্টে সয়লাব।

কিন্তু কখনো ভেবেছেন কি, কী করে এই টুথপেস্ট আমাদের ঘরে এলো? আসুন, জেনে নেওয়া যাক টুথপেস্ট আবিষ্কারের ইতিহাস—

হাজার বছর আগে চীন, মিশর ও ভারতে প্রথম দাঁত মাজা ও সুস্থ থাকার চিন্তা-ভাবনা শুরু হয়। এক সময় মানুষ গাছের বাকল, লবণ ও ফুলের পাপড়ি মিশিয়ে এক ধরনের মিশ্রণ তৈরি করত। এরপর পারস্যের (বর্তমান ইরান) এক ব্যক্তি জিরইয়াব নতুন এক ধরনের মাজন তৈরি করেন। এটা ছিল পরিশোধিত ও সুগন্ধযুক্ত। তারপর নানা হাত ঘুরে আজকের মাজন ও পেস্ট চলে আসে আমাদের ঘরে।

টুথপেস্টের কথা আসলেই অবধারিতভাবে চলে আসবে টুথব্রাশের কথা। এই ব্রাশ ছাড়া তো টুথপেস্ট বলতে গেলে অচলই। তাই জেনে নেওয়া যাক টুথব্রাশ আবিষ্কারের গল্পও—

জানান যায়, ১৭৭০ সালে দুষ্কর্মের অভিযোগে ইংল্যান্ডের উইলিয়াম অ্যাডিস নামের এক ভদ্রলোককে জেলে যেতে হয়। সেসময় জেলের ভেতর মোটা কাপড় দিয়ে দাঁত মাজতে হতো। ব্যাপারটা মোটেই ভালো লাগত না তার। তিনি চিন্তা ভাবনা করে বের করেন চমৎকার একটি আইডিয়া। খাবার শেষে পড়ে থাকা একটি হাড়ের এক দিকে বেশ কিছু ফুটো করে জেলের সেপাইদের কাছ থেকে চেয়ে নেন ঘোড়ার লেজের কিছু চুল। তারপর কায়দা করে ফুটো গলিয়ে চুলগুলো বেঁধে দিয়ে তৈরি করেন ব্রাশ। তারপর জেল থেকে বেরিয়ে আরো সুন্দর করে বানালেন ব্রাশ। খুলে বসেন মস্ত একটি কারখানা। এরপরই আধুনিক ব্রাশের বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া।