• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৪, ২০১৯, ১২:২৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১৪, ২০১৯, ১২:৪৭ পিএম

প্রতিটি পরিবারকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই : প্রধানমন্ত্রী

জাগরণ ডেস্ক
প্রতিটি পরিবারকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই : প্রধানমন্ত্রী
বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা -ছবি : সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা প্রতিটি পরিবারকে দারিদ্র্য থেকে মুক্ত করতে চাই। বর্তমানে দেশে দরিদ্রের হার ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। তা ১৫ শতাংশে নামিয়ে নিয়ে আসা আমাদের লক্ষ্য।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) উন্নয়ন মেলা-২০১৯ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, যেসব বহুমুখী কর্ম-পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে। যার সব গুলোর লক্ষ্য হলো দারিদ্র্য বিমোচন। আমরা দেশকে ক্ষুধামুক্ত করতে পেরেছি। আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য দারিদ্র্যমুক্ত করা। শুধু বর্তমান না আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ রেখে যেতে চাই। যাতে তারা সুস্থ ও সুন্দরভাবে বাঁচতে পারে।

ক্ষুদ্র ঋণের গণ্ডি পেরিয়ে পিকেএসএফ এখন সার্বিক উন্নয়নে সহায়তা করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোনও ধরনের সুবিধা পাবে না যদি কেউ তিন ফসলি জমি নষ্ট করে।

এ সময় ক্ষুদ্র ঋণের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে অনেকেই বাহবা কুড়ালেও তা ছিল ব্যক্তিগত অর্জন। এই ঋণ দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য নয়, বরং তা দারিদ্র্য লালন-পালন করার জন্য।

সরকারের প্রতিটি পদক্ষেপের লক্ষ্য টেকসই উন্নয়ন বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বর্গচাষী ঋণ পেতে বিনা জামানতে আমরাই তাদের ঋণ দিতে শুরু করি।
সহজেই কৃষি সরঞ্জাম পেতে কৃষকদের কৃষি উপকরণ কার্ড দিয়েছি। বহুমুখী পরিকল্পনার মাধ্যমে মানুষের জীবন মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

তিনি বলেন, এক সময় ক্ষুদ্রঋণ আমরা সমর্থন দিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম দারিদ্র বিমোচন হবে। পরে দেখলাম দারিদ্র বিমোচন না হয়ে দারিদ্র লালন পালন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা গৃহহীনদের ঘর দিয়ার পদক্ষেপ নিয়েছিলাম তারপর তাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছি। গৃহহারাদের ঘরবাড়ি করে দেয়ার কর্মসূচিও অব্যাহত রেখেছি। প্রতিটি পরিবারকে দারিদ্র থেকে মুক্ত করতে কাজ করে যাচ্ছি। প্রত্যেক পরিবারকে দারিদ্র থেক মুক্ত করতে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

এসএমএম

আরও পড়ুন