• ঢাকা
  • রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০১৯, ০৫:১৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ২, ২০১৯, ০৬:১০ পিএম

‘দুর্নীতির ধরন পরিবর্তন হচ্ছে কমিশনকেও নতুন কৌশল নিতে হবে’

জাগরণ প্রতিবেদক
‘দুর্নীতির ধরন পরিবর্তন হচ্ছে কমিশনকেও নতুন কৌশল নিতে হবে’
দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেছেন, দুর্নীতিপরায়নরা যেভাবে তাদের অপরাধের ধরন পরিবর্তন করছে দুর্নীতি দমন কমিশনকেও তাদের ধরার জন্য নতুন নতুন কৌশল প্রয়োগ করতে হবে। 

সোমবার (২ ডিসেম্বর) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি তদন্ত টিমের প্রতিবেদেনের মানোন্নয়নে টিমের দলনেতা, বিশেষ তদন্ত অনুবিভাগের মহাপরিচালক ও পরিচালকদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মোজাম্মেল হক খান বলেন, জনশ্রুতি রয়েছে এমন ২৫টি প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতির উৎস চিহ্নিত করে তা কীভাবে দূর করা যায় এমন সুপারিশ সংবলিত প্রতিবেদন প্রণয়নের জন্যই কমিশন ২৫টি প্রাতিষ্ঠানিক টিম গঠন করেছিল। এরই মধ্যে ১৫টি প্রতিবেদন সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়-বিভাগে পাঠানো হয়েছে। কমিশন প্রত্যাশা করে প্রাতিষ্ঠানিক টিমের এসব প্রতিবেদন হতে হবে তথ্য-উপাত্ত, রেফারেন্স এবং কেসস্ট্যাডির সমন্বয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন। এসব প্রতিবেদন যাতে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে বাকি প্রতিবেদনগুলো প্রণয়ন করতে হবে। আর এটা শেষ করতে হবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে।

দুদক কমিশনার বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নিয়ম-কানুন, বার্ষিক প্রতিবেদন, অডিট রিপোর্ট, অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময়, স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে আলোচনা, গণমাধ্যমের তথ্য, কমিশনের নিজস্ব গোয়েন্দ তথ্য বিশ্লেষণ করে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রণয়ন করতে হবে।  

তিনি আরও বলেন, দেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা রয়েছে। এর ধরণও ক্রমাগত পরিবর্তন হচ্ছে। দুর্নীতির নানা চিত্র আমাদের কাছে পরিস্কার হচ্ছে। যে বা যারা সজ্ঞানে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছে, তাদেরকে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে। তিনি বলে, দুর্নীতি করে কেউ পার পাবে না। 

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- দুদক মহাপরিচাল (বিশেষ তদন্ত) সাঈদ মাহবুব খান, পরিচালক নাসিম আনোয়ার, সৈয়দ ইকবাল হোসেন, মঞ্জুর মোরশেদ প্রমুখ।

এইচএস/টিএফ

আরও পড়ুন