• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল, ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: মার্চ ২৬, ২০২০, ০২:৫৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ২৬, ২০২০, ০২:৫৫ পিএম

কোভিড-১৯

কার্যত লকডাউনে বাংলাদেশ

জাগরণ ডেস্ক
কার্যত লকডাউনে বাংলাদেশ
সকাল থেকে ঢাকার রাস্তা-ঘাট ছিল অস্বাভাবিক রকম ফাঁকা ● বিবিসি

দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে ওষুধ বা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ব্যতীত সরকারি-বেসরকারি অফিস, দোকানপাট ও গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে। 

২৬ মার্চ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে অন্যান্য বছর সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের আয়োজন থাকলেও এবারে গণজমায়েতের ওপর সরকারের নিষেধাজ্ঞা থাকায় স্বাধীনতা দিবসে কোনও ধরনের অনুষ্ঠান হচ্ছে না।

সবকিছু বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে একসাথে কার্যকর হওয়ায় হঠাৎ করেই থমকে গেছে মানুষের দৈনন্দিন জীবন এবং পুরো দেশের কার্যক্রম।

প্রায় দুই কোটি মানুষের শহর ঢাকার রাস্তা-ঘাট সকাল থেকে সম্পূর্ণ ফাঁকা। দোকানপাট বা বাজারের আশেপাশে কিছু মানুষের হঠাৎ দেখা মিললেও তা অন্যান্য সময়ের তুলনায় একেবারেই নগণ্য।

রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা ছিল হাতেগোনা। বেশ খানিকক্ষণ পর দেখা যায় একটি-দু’টি রিকশা বা একজন-দু’জন মানুষ।

রাস্তায় বিভিন্ন জায়গায় ছিল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চেকপোস্ট। অপ্রয়োজনে মানুষজন যেন রাস্তায় ঘোরাঘুরি না করে তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছেন তারা।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা করতে বিভিন্ন জেলা শহরে রাস্তায় নেমেছে সেনাবাহিনী।

বাংলাদেশের সরকার যদিও এই পরিস্থিতিকে ‘লকডাউন’ বলে অভিহিত করছে না, তবে অবস্থা কার্যত লকডাউনের মতই অর্থাৎ পুরো দেশ জুড়েই অবরুদ্ধ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহ অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছিল সরকারের পক্ষ থেকে। তবে বেশ কিছু জায়গায় পুলিশ পণ্যবাহী ট্রাক আটকে দিচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

পণ্যবাহী ট্রাক জেলা শহরগুলোতে প্রবেশ করতে না দেয়ায় বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। বিশেষ করে দুধ, ডিম, মাছ, সবজির মতো পচনশীল পণ্যের ব্যবসায়ীরা আশঙ্কা করছেন এই পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে বড় ধরণের ক্ষতির মুখে পড়বেন তারা।

২৬ মার্চ থেকে শুরু করে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ দিন বাংলাদেশে সবকিছু বন্ধ থাকবে বলে কথা রয়েছে। বিবিসি বাংলা।

এসএমএম