• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৫ জুন, ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
প্রকাশিত: মার্চ ২৭, ২০২০, ১২:৪৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ২৭, ২০২০, ১২:৪৭ পিএম

কারণ ছাড়া বাইরে বেরুলেই সাজা

জাগরণ ডেস্ক
কারণ ছাড়া বাইরে বেরুলেই সাজা
সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে মাঠে সেনাবাহিনী ● সংগৃহীত

আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশবাসীকে ঘরে থাকার সরকারি আহ্বান এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর মাঠে অবস্থানের কারণে জমায়েত কিংবা অহেতুক রাস্তায় দাঁড়িয়ে গল্প-গুজব এখন নিষিদ্ধ। খাবার-দাবার, জরুরি সেবাছাড়া সব ধরনের দোকান-পাট আর গণপরিবহন বন্ধ আছে এই সময়ে। আর সরকারি নির্দেশনা অমান্যকারীদের হচ্ছে জেল-জরিমানা।

মহামারি কোভিডের যুদ্ধে সরকারের নজর সবার আগে দুই জায়গায়। বিদেশ ফেরতদের থাকবে হবে কোয়ারেন্টিনে আর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে সবাইকে সব জায়গায়।

এজন্য রয়েছে নানা নির্দেশনা। সংক্রমণ রোধে এড়িয়ে চলতে হবে জনসমাগম। বাইরে ঘোরাঘুরি থেকে বিরত থাকতে হবে। সব ধরনের গণ পরিবহন বন্ধ, চলবে না যাত্রীবাহী নৌযান।

জরুরি দরকারে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান, অ্যাম্বুলেন্স ও সংবাদপত্রবাহী গাড়ি চলবে। ওষুধ ও খাদ্যদ্রব্য ছাড়া প্রায় সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

শিল্প কারখানা, প্রতিষ্ঠান চলবে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায়। দশ দিনের ছুটি চলছে তাতে কি জরুরি সহযোগিতার জন্য বিভাগ, জেলা ও উপজেলার সরকারি কর্মকর্তাদের কর্মস্থলে থাকার নির্দেশনা আছে।

বিদেশ ফেরতদের ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিতে রাখার বাধ্যবাধকতা, না হলে আছে জেল জরিমানা। আর সরকারি নির্দেশনা অমান্য কিংবা কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা দিলে হতে পারে ৩ মাসের জেল বা ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা।

একইভাবে সংক্রমণ জীবাণু ছড়াতে বা ছড়ানোয় সহায়তার শাস্তি ৬ মাসের জেল কিংবা ১ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয়টি।

সংক্রমণ রোগের তথ্য গোপন করত যাবেন না অথবা ভুলেও ভুল তথ্য দেবেন না। যদি দেন তবে ২ মাস থাকতে হতে পারে জেলে ভাগ্যে জুটতে পারে ২৫ হাজার টাকার দণ্ডও।

এসএমএম