• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৭ মে, ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১, ১২:০৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১, ০১:৪০ পিএম

হঠাৎ লেবুর দাম বেড়ে তিন গুণ

হঠাৎ লেবুর দাম বেড়ে তিন গুণ

সাধারণত শীতকালে লেবুর চাহিদা কম থাকে। কিন্তু এবার করোনার কারণে ভিটামিন ‘সি’ যুক্ত এ ফলটির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সে তুলনায় নেই সরবরাহ। ফলে দাম বেড়েছে তিন গুণের বেশি।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, দুই-তিনটি দোকান ছাড়া কোথাও লেবু নেই। পাইকারি দোকানগুলোতেও সরবরাহ একেবারেই কম। ক্রেতারা লেবুর আকাশছোঁয়া দামের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়েই ফিরছেন বাড়ি।

খুচরা বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে বাজারে প্রতি হালি এলাচি লেবু বিক্রি করা হচ্ছে ৭০ টাকা। যেখানে এক মাস আগেও এই জাতের লেবুর হালি বিক্রি করা হয়েছে মাত্র ২০ টাকা। অর্থাৎ গত এক মাসে এলাচি লেবুর দাম বেড়েছে তিন গুণের বেশি।

এ ছাড়া কলম্বো লেবু ও কাগজি লেবু বিক্রি করা হচ্ছে ৬০ টাকা। এক মাস আগে এসব লেবু বিক্রি করা হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা। কিছু লেবু রয়েছে যেগুলো ৪০ টাকা হালি বিক্রি করা হচ্ছে। এক মাস আগে এই লেবুর হালি ছিল ১০ টাকারও কম।

বিক্রেতারা জানান, আগে যেখানে ২০ বস্তা লেবু আসত এখন আসে ২ বস্তা। বাজারে লেবুর সরবরাহ একেবারেই কম। তাই দাম চওড়া। এই মৌসুমে লেবুর ফলন খারাপ হওয়ায় সরবরাহ নেই।

কামাল নামের এক বিক্রেতা জানান, প্রতিবছর শীতকালে লেবুর চাহিদা কম থাকলেও এবার করোনার কারণে অনেকে লেবু কিনছেন। কিন্তু নানা কারণে এবার লেবুর তেমন ফলন হয়নি। তাই সরবরাহও নেই দামও বেশি।

বাচ্চু মিয়া নামের এক পাইকারি বিক্রেতা জানান, প্রতি পিস এলাচি লেবু কিনে আনছেন ১৫ টাকা করে। বিক্রি করছেন ১৭ টাকা। আর নিম্নমানের লেবু প্রতি পিস কিনতে হচ্ছে ৭ টাকা করে। তাই এই জাতের লেবু বিক্রি করছেন ৮ টাকা করে।

এই বিক্রেতা আরো বলেন, “শীতকালে লেবুর ফলন এমনিতেই কম হয়। তার ওপর এবার ফলন ভালো হয়নি। তাই চাহিদার তুলনায় বাজারে সরবরাহ নেই।”

ইউসুফ নামের আরেক বিক্রেতা বলেন, “আরো এক মাস এমন বাড়তি দাম থাকবে। এরপর দাম কমতে পারে। বৃষ্টি হলেই ১৫-২০ দিনের মধ্যে দাম কমে যাবে।”

বাজারে লেবু কিনতে এসেছিলেন একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করা তানজির রহমান। কিন্তু দাম শুনে লেবু না কিনেই বাড়ি ফিরে যাচ্ছিলেন তিনি।

এই প্রতিবেদককে তানজির বলেন, “যে লেবু আগে এক কুড়ি কিনতাম ৬০ থেকে ৭০ টাকা। সেই লেবুই এখন ৩০০ টাকা চাইছে। বিক্রেতারা সরবরাহ নেই বললেও আমার মনে হয়ে এটা তাদের কারসাজি।”

একই অভিযোগ করেছেন সেলিম নামের অনেক ক্রেতা। তিনি বলেন, “পুরো বাজারেই লেবু নেই। দুই-একটা দোকানে যাও আছে, সেখানে দাম শুনে অবাক হয়ে গেছি। শীতকালে লেবুর দাম কিছুটা বাড়ে। তাই বলে তিন গুণ বাড়তে কখনো শুনিনি। সরকারের উচিত বিষয়টি নজরদারি করা।”