• ঢাকা
  • বুধবার, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: অক্টোবর ১৫, ২০২১, ০১:১৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ১৪, ২০২১, ০৭:১৫ পিএম

হার্ডলাইনে সরকার

হার্ডলাইনে সরকার
ফাইল ফটো

কুমিল্লায় একটি মন্দিরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন এলাকায় হামলা-ভাঙচুরের পরিপ্রেক্ষিতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে সরকার। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

২২টি জেলায় এরই মধ্যে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। প্রয়োজনে অন্যান্য জেলায়ও বিজিবি মোতায়েন করার প্রস্তুতি রয়েছে।

‘যে কোনও মূল্যে’ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ-র‌্যাব।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

কুমিল্লা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ‘ধর্মকে ব্যবহার করে যারা সহিংসতা’ সৃষ্টি করছে, তাদের অবশ্যই খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক সাজা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে ঢাকেশ্বরী মন্দিরের পূজামণ্ডপে ভক্তদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় এই হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিশ্লেষণে বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে এ বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট প্রধান, গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান সহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, দীর্ঘ আলাপ-আলোচনার পর বৈঠকের সবাই মনে করছেন, ঘটনাটি উদ্দেশ্যমূলক। কোনও স্বার্থান্বেষী মহল, ষড়যন্ত্রকারী বা চক্রান্তকারী এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

মন্ত্রী জানান, কুমিল্লার পূজামণ্ডপের ঘটনায় কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। শিগগিরই তাদের গ্রেফতার করা হবে। এরই মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কুমিল্লার ঘটনার জেরে দেশের আরও কিছু জায়গায় এমন ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে চারজন নিহত হয়েছেন। যারা জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউ উস্কানি দিলে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও গুজব ছড়ানো হচ্ছে। যারা এসব অপচেষ্টা করছে ও করবে, তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

তিনি বলেন, ‘দুর্গাপূজা শুরুর আগে সভায় সিদ্ধান্ত ছিল, যেখানে পূজা হবে, সেখানে পূজা কমিটি সিসিটিভি ক্যামেরা বসাবে। নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তাদেরও ভলান্টিয়ার থাকবে। কিন্তু অনেক পূজামণ্ডপেই সেগুলো করা হয়নি।’

‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি দিয়ে’ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার কথা জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) তিনি রাজধানীর গোপীবাগে রামকৃষ্ণ মিশন পূজামণ্ডপ পরিদর্শনের সময় বলেন, ‘সারাদেশে প্রতিটি পূজামণ্ডপে শান্তিপূর্ণভাবে পূজা হচ্ছে বলে যাদের গাত্রদাহ, তারা দেশকে পিছিয়ে দিতে চায়। তাদের অপকৌশলের একটি হচ্ছে হিন্দু-মুসলমানের বৈরিতা সৃষ্টি করা। কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার এই অপশক্তিকে মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে দেবে না। প্রধানমন্ত্রী এরই মধ্যে প্রশাসনকে সব ধরনের সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে বথ্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।’

পুলিশ সদর দপ্তরের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানিয়েছে, কুমিল্লার ঘটনাকে পুঁজি করে কেউ যাতে 'পরিস্থিতি ঘোলাটে' করতে না পারে, সেজন্য সারাদেশে পুলিশের ইউনিটগুলোকে সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। 'যে কোনো মূল্যে' আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বলা হয়েছে।

র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন  বলেন, ধর্মীয় সম্প্রীতি বাঙালির দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য। এটা কেউ বিনষ্ট করার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাইবার নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি টহলও জোরদার করেছে র‌্যাব। দেশজুড়ে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। কেউ বিশৃঙ্খলা করলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা  বলেন, পুলিশ সারাদেশে তৎপর রয়েছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের কঠোরভাবে মোকাবিলার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদর দফতর জানায়, দুর্গাপূজায় নিরাপত্তা রক্ষার্থে সারাদেশের বিভিন্ন জেলায় বিজিবি সদস্যদের মোতায়েন করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কুমিল্লা, নরসিংদী ও মুন্সীগঞ্জসহ ২২টি জেলায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

বিজিবির পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান জানান, সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে দুর্গাপূজায় নিরাপত্তা রক্ষার্থে দেশব্যাপী বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত হয়।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চাহিদা থাকলে রাজধানী ঢাকায়ও বিজিবি মোতায়েন করা হবে।

জাগরণ/এসএসকে/এমএ