• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৩, ২০২৩, ১১:১৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৩, ২০২৩, ০৫:১৯ পিএম

আরও এক কূপে গ্যাসের সন্ধান

আরও এক কূপে গ্যাসের সন্ধান
ছবি ● সংগৃহীত

দেশে চলমান জ্বালানি সংকটের মাঝে ভোলা নর্থ-২ কূপে গ্যাস পাওয়া গেছে। রাষ্ট্রীয় কোম্পানি বাপেক্সের মালিকানাধীন এই গ্যাসক্ষেত্রে এটি দ্বিতীয় কূপ।

এর আগে ভোলা নর্থ ১ কূপে ২০১৮ সালে গ্যাস পাওয়া যায়।

বাপেক্সের তত্ত্বাবধানে ভোলা নর্থ-২ কূপ খনন করছে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় কোম্পানি গ্যাজপ্রম। গত ডিসেম্বরে এখানে কূপ খনন কাজ শুরু হয়। কূপটি থেকে দিনে ২ কোটি ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করা সম্ভব হবে বলে আশা করছে পেট্রোবাংলা।

চাহিদা না থাকায় অবকাঠামো থাকা সত্ত্বেও ভোলা নর্থ গ্যাসক্ষেত্র থেকে গ্যাস তোলা হচ্ছে না। তবে জ্বালানি সংকটের সময় এই গ্যাস সিএনজি আকারে ঢাকা সহ দেশের অন্য অঞ্চলে সরবরাহের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে জ্বালানি বিভাগ।

এর আগে এ গ্যাসক্ষেত্রের টবগী ১ কূপ খননের পর প্রায় ২৩৯ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের (বিসিএফ) সম্ভাব্য মজুদ পাওয়া গেছে বলে গত ১৯ নভেম্বর জানিয়েছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

শাহবাজপুর গ্যাসক্ষেত্রের এ কূপ খননের কাজ বাপেক্সের তত্ত্বাবধানে গ্যাজপ্রম শুরু হয়েছিল ১৯ অগাস্ট।

আর বছর দুই আগে বাপেক্সের একটি অনুসন্ধান দল ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ করে ভোলা নর্থ ২ নম্বর কূপে গ্যাস থাকার সম্ভাবনার কথা জানায়। ওই সময় এ কূপের কিছুটা অদূরে একই গ্যাসক্ষেত্রের ইলিশা ১ কূপেও গ্যাস পাওয়ার কথা জানান হয়েছিল।

এই তিনটি কূপ নিয়ে দ্বীপ জেলা ভোলায় গ্যাস কূপের সংখ্যা দাঁড়ায় ৯টি।

দেশে বর্তমানে ২২টি গ্যাসক্ষেত্রের মোট ৪৩টি কূপ থেকে গ্যাস উত্তোলন করা হচ্ছে। ২ কোটি বা ২০ মিলিয়ন ঘনফুটের চেয়ে বেশি গ্যাস আসে এমন গ্যাসক্ষেত্র রয়েছে ১০টি। সেই হিসাবে ভোলার নতুন এ কূপকে 'বড়' হিসেবেই বিবেচনা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জাগরণ/জ্বালানি/এসএসকে