• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১, ২০২৩, ১১:৩৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ১, ২০২৩, ১১:৩৬ পিএম

প্রথমবার ‘টাইম বম্ব’ উদ্ধার

প্রথমবার ‘টাইম বম্ব’ উদ্ধার
ছবি ● সংগৃহীত

বাসে আগুন নাশকতার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে সময় নিয়ন্ত্রিত বোমা। বিএনপি-জামায়াতের ডাকা হরতাল কর্মসূচির মধ্যে রাজধানীতে উদ্ধার হয়েছে তেমনি সময় নিয়ন্ত্রিত ‘অগ্নিবোমা’।

এই বোমায় স্প্লিন্টার বা বিস্ফোরকের পরিবর্তে পেট্রোল, অকটেন বা ডিজেলের মতো দাহ্য বস্তু থাকে।

নির্দিষ্ট স্থানে গোপনে রেখে আসার পর এটি বেঁধে দেয়া সময়ে আগুন ধরিয়ে দেয় লক্ষ্যবস্তুতে। এ ধরনের বোমা সাধারণত উগ্রবাদী জঙ্গি সংগঠনগুলো ব্যবহার করে। তবে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে এ ধরনের বোমা উদ্ধারের ঘটনা দেশে প্রথম। 

রাজধানীর কোতোয়ালি থানা পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে কেরানীগঞ্জ থেকে দিশারী পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস (ঢাকা মেট্রো ব ১৩-০৩৭০) ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। দুপুর ১টা ২০ মিনিটে বাবুবাজার ব্রিজের ওপর উঠলে যাত্রীরা পেছন দিকের সিটে ধোঁয়া দেখতে পান।

আতঙ্কিত হয়ে যাত্রীরা বাস থেকে নেমে যাওয়ার পর খালি গাড়িটি চালক ও সহযোগী নয়াবাজার ঢালে পুলিশ চেকপোস্টের কাছে নিয়ে আসেন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ গিয়ে তাতে বোমা দেখতে পায়। এরপর বোম্ব ডিসপোজাল বিভাগের সদস্যদের খবর দেয়া হলে সেটি তারা উদ্ধার করেন।

 

সিটিটিসির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের বিশেষজ্ঞ জানান, ওই বোমায় উচ্চমাত্রার কোনো বিস্ফোরকের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। তবে সময় নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি টেবিল ঘড়ি ব্যবহার করা হয়েছে। যাতে সংযুক্ত ছিল ১.৫ ভোল্টের ব্যাটারি। সেফটি সুইচ বা আরমিং সুইচ হিসেবে ছোট সাইজের লাল-কালো রঙের রকার সুইচ ব্যবহার করা হয়। 

দুটি ইলেকট্রিক তার দিয়ে একটি দিয়াশলাইয়ের কাঠি মুড়িয়া ইম্প্রোভাইজড ডেটোনেটর হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে, যা ৩.৭ ভোল্টের লিথিয়াম ইয়ন ব্যাটারির সঙ্গে যুক্ত ছিলো।

তিনি আরও জানান, এই বোমায় বিস্ফোরকের পরিবর্তে পেট্রোল, অকটেন বা ডিজেলের মতো দাহ্য বস্তু থাকে। নির্দিষ্ট স্থানে গোপনে রেখে আসার পর এটি বেঁধে দেয়া সময়ে আগুন ধরিয়ে দেয় লক্ষ্য বস্তুতে।

সিটিটিসির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত উপকমিশনার রহমত উল্লাহ চৌধুরী জানান, উদ্ধার করা আইইডি একটি টাইম ইনিশিয়েটেড আইইডি।

এর আগে ২০ নভেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কদমতলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় একই ধরনের একটি আইইডি উদ্ধার করা হয়। আগেরটার সঙ্গে ৩০ নভেম্বর উদ্ধার করা আইইডির হুবহু মিল পাওয়া গেছে, যা একই সংগঠন বা ব্যক্তি এই আইইডি তৈরি করেছে।

সময় নিয়ন্ত্রিত এ ধরনের পেট্রোল বোমা বা অগ্নিবোমা সাধারণত উগ্রবাদী জঙ্গি সংগঠনের প্রশিক্ষিত সদস্যরা লক্ষ্যবস্তুতে আগুন ধরাতে গোপনে রেখে আসে।

কিন্তু রাজনৈতিক কর্মসূচি চলাকালে এ ধরনের ডিভাইস বোমা উদ্ধারের ঘটনা দেশে এই প্রথম। এ নিয়ে বিশেষ তদন্ত শুরু করেছে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। 

জাগরণ/আইনশৃঙ্খলাবাহিনী/এসএসকে