• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৭, ২০২৩, ১২:৩৯ এএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৭, ২০২৩, ১২:৩৯ এএম

নির্বাচনী সমঝোতায় আওয়ামী লীগ–জাতীয় পার্টি

নির্বাচনী সমঝোতায় আওয়ামী লীগ–জাতীয় পার্টি

সমঝোতা করে নির্বাচনে অংশ নেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং বিরোধী দল জাতীয় পার্টি (জাপা)।

বুধবার দুই দলের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। বৈঠক সূত্র এ তথ্য জানালেও, কোন প্রক্রিয়ায় সমঝোতা হবে, তা জানায়নি। 

বৃহস্পতিবার জাপার সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানান হবে বলে সমকালকে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু।

আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির বৈঠক নিয়ে বুধবার দিনভর লুকোচুরি ছিল। দুই দল আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি, কখন কোথায় বৈঠক হয়েছে।

সূত্রের খবর, গুলশানের একটি বাড়িতে বুধবার রাত ৮টায় এই বৈঠক শুরু হয়ে চলে ঘণ্টা দুয়েক। 

আওয়ামী লীগের পক্ষে ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব–উল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম। জাপার পক্ষে মুজিবুল হক চন্নু ছাড়াও দলের সিনিয়র কো–চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কী আলোচনা বা কী সিদ্ধান্ত হয়েছে– তা জানায়নি জাপা। দলটির সূত্র জানিয়েছে, দুই উপায়ে সমঝোতা হতে পারে। প্রথম উপায়ে, আওয়ামী লীগ যেসব আসন জাপাকে ছাড়বে, সেখানে নৌকার প্রার্থী থাকবে না।

বিএনপিবিহীন ৭ জানুয়ারির নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ দেখাতে অন্যত্র নৌকার বিরুদ্ধে ভোটে থাকবে লাঙল। সমঝোতার দ্বিতীয় উপায়ে প্রার্থিতা বৈধ হওয়ার সাপেক্ষে সব আসনে নৌকা এবং লাঙলের প্রার্থী থাকবে। কিছু আসনে জাতীয় পার্টিকে জিতিয়ে দেওয়া হবে। আওয়ামী লীগ কতটি আসন ছাড়বে বা ছাড় দেবে, তা জানা যায়নি। 

জাপার একটি সূত্রের দাবি, ৩৫টি আসন চেয়ে ওবায়দুল কাদেরকে তালিকা দেয়া হয়েছে। তবে আসন সমঝোতার কথা না বলে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনের কথা বলেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘কীভাবে শান্তিপূর্ণ এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন করা যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। জাতীয় পার্টি তাদের প্রার্থী দিয়েছে। আমরা আমাদের প্রার্থী দিয়েছি। আমরা আমাদের নির্বাচন করব।’

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে বৈঠক হয়েছে। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হবে বলে আশা করে জাতীয় পার্টি। তাই, নির্বাচনে তারা সর্বশক্তি দিয়ে অংশগ্রহণ করবে। জনগণের মেন্ডেট নিয়ে সংসদে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে জাপা।

জাগরণ/দ্বাদশসংসদনির্বাচন/এসএসকে/কেএপি