• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৯, ২০১৯, ০৭:৪৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ১৯, ২০১৯, ০৭:৪৭ পিএম

গণতন্ত্র হত্যা থেকে জাতিকে উদ্ধারে আন্দোলনের বিকল্প নেই: জেএসডি

জাগরণ প্রতিবেদক 
গণতন্ত্র হত্যা থেকে জাতিকে উদ্ধারে আন্দোলনের বিকল্প নেই: জেএসডি
জেএসডির সভাপতি আ স ম রব

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ভিত্তিক আন্দোলনের সঙ্গে জেএসডি’র দশ দফা ভিত্তিক আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। 

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের উত্তরার বাসভবনে দলের বিশেষ প্রতিনিধি সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব। 

সভার প্রস্তাবে বলা হয়েছে, গণতন্ত্র হত্যা, ভোট ডাকাতি, হত্যা-ধর্ষণ, অপহরণ, দখলবাজি থেকে জাতিকে উদ্ধার করার জন্য আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। সভায় রমজান মাসে ইফতার পার্টির মাধ্যমে আলাপ আলোচনা করে উপজেলা, থানা, পৌরসভা, মহানগর, জেলা ভিত্তিক, কাউন্সিল, সম্মেলন আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
 
সভার শুরুতেই জেএসডি’র গণসংযোগ বিষয়ক সম্পাদক সাহিদ সিরাজী ও জেএসডি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মজিবুর রহমানের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয় ও তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

এছাড়া সভা থেকে আরও বলা হয়, রোহিঙ্গা সমস্যা আজকে জটিল আকার ধারন করেছে। উপ আঞ্চলিক সহযোগিতা না থাকলে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের পরিবর্তে যুদ্ধ, সংঘাত, সহিংসতার রূপ নেবে। যা এই অঞ্চলের উন্নয়ন, অগ্রগতির জন্য বিরাট প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়াবে। এ জন্য সরকার ও বিরোধীদল সবাইকে ঐক্যবদ্ধ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। এ ঐক্যের জন্য প্রয়োজন অবাধ গণতন্ত্র, সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ পুন:নির্বাচন এবং এই উপ অঞ্চল ভিত্তিতে বিভিন্ন শ্রম-কর্ম-পেশার জনগণের মধ্যে অভ্যন্তরীণভাবে ও অঞ্চল ভিত্তিক ঐক্য গড়ে তোলা। এ লক্ষ্যে  জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ভিত্তিক আন্দোলনের পাশাপাশি জেএসডি’র দশ দফা ভিত্তিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য সর্বস্তরের জনগণকে এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্য জেএসডি নেতা-সংগঠক-কর্মীদের ঝাপিয়ে পড়তে হবে। 

সভায় বক্তব্য রাখেন- জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, সিনিয়র সহসভাপতি এমএ গোফরান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. সিরাজ মিয়া, সহ-সভাপতি মিসেস তানিয়া রব, খোশ লেহাজ উদ্দিন খোকা, বাবু হীরালাল চক্রবর্তী, অ্যাড. আবদুর রহমান, আবদুল জলিল চৌধুরী, অধ্যাপক মোহাম্মদ শফিক, অ্যাড. সানোয়ার হোসেন তালুকদার, ড. সাইফুল ইসলাম, কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, অ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, অ্যাড. বিকাশ চন্দ্র সাহা, মোশারফ হোসেন, আবদুর রাজ্জাক রাজা, আমিন উদ্দিন বিএসসি, মতিয়ার রহমান মতি, লোকমান হাকিম, এসএম রানা চৌধুরী, আমির উদ্দিন, মীর জিল্লুর রহমান, মোস্তফা কামাল, সামসুল আলম নিক্সন, বোরহান উদ্দিন রোমান, ফকির শওকত, অ্যাড. খলিলুর রহমান, আবদুল লতিফ খান, অ্যাড. শেখ নাজিম উদ্দিন, আমিন উল্যাহ বাহার, শফিউল আলম, মোতালেব মাস্টার, সৈয়দ বিপ্লব আজাদ, অ্যাড. তৈমুর রেজা শাহজাদ ভুইয়া, নুর রহমান চেয়ারম্যান, নুরুল আবছার, মোশারফ হোসেন, হাজী আখতার হোসেন ভুইয়া, অ্যাড. আবদুল হাই সরকার, অ্যাড. আবু ইসহাক, আবুল কালাম আজাদ, আবদুল্লাহ আল মামুন, শফিকুর রহমান বাবর, অ্যাড. শহিদুল্লাহ পলাশ, রেজাউল ইসলাম, মশিউর রহমান, তৌফিকউজ জামান পীরাচাসহ বিভিন্ন জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভা, থানা থেকে আগত  জেএসডি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোট, যুব পরিষদ ও অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের নেতারা। 

টিএস/বিএস 
 

  • রাজনীতি এর আরও খবর