• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১০, ২০২০, ০৯:০৪ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১০, ২০২০, ০৯:১০ এএম

আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমা শুরু 

জাগরণ প্রতিবেদক 
আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমা শুরু 
কানায় কানায় পূর্ণ ইজতেমা ময়দান

টঙ্গীর তুরাগ তীরে আজ শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।পাকিস্তানের মাওলানা খুরশিদ আলম এ বয়ান করেন। তবে এর আগেই বৃহস্পতিবার বাদ ফজর থেকেই শুরু হয় তালিমি বয়ান।

ইজতেমা উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বিশ্ব ইজতেমার মতো মহান ধর্মীয় সমাবেশ বিশ্বশানি্ত প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা রাখবে। মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে সুদৃঢ় করবে।

ইজতেমায় অংশ নিতে বুধবার থেকেই ময়দানে আসতে শুরু করেন মুসল্লিরা। বৃহস্পতিবার দুপুর না গড়াতেই ভরে যায় ইজতেমা ময়দান।

আজ  ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজে ইমামতি করবেন কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফিজ মাওলানা মুহম্মদ জুবায়ের আহমেদ।

ইজতেমায় এখন পর্যন্ত ৫১টি দেশের প্রায় ২ হাজার বিদেশি মেহমান অবস্থান নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন গণমাধ্যম সমন্বয়কারী মুফতি জহির ইবনে মুসলিম। তিনি বলেন, এর মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক এসেছেন ভারত থেকে।বৃহস্পতিবার বাদ ফজর তালিমি বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা রবিউল হক, বাদ আসর পাকিস্তানের মাওলানা ফাহিম, বাদ মাগরিব ভারতের মাওলানা ইব্রাহীম দেওলা। 

কানায় কানায় পূর্ণ ইজতেমা ময়দান 

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো.আবদুল্লাহ বৃহস্পতিবার দুপুরে ইজতেমা ময়দান পরিদর্শন করেন এবং তাবলিগের মুরব্বিদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় ময়দানের উত্তর পাশে নিউ মুন্নু ফাইন কটন মিলস মাঠে ইসলামী ফাউন্ডেশন ও হামদর্দ ল্যাবরেটরিজের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উদ্বোধন করেন।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব ইজতেমার খাতিরে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ অতি পরিচিত নাম। আগত মুসল্লিদের যাতে কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য সব বিভাগকে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রথম পর্বে খিত্তাভিত্তিক অবস্থান: গাজীপুর (খিত্তা-১), টঙ্গী (২, ৩ ও ৪), ঢাকা (৫-১৯ ও ২৪-২৫, ২৭-২৯, ৩২), রাজশাহী (২০), নওগাঁ (২১), নাটোর (২২), চাঁপাইনবাবগঞ্জ (২৩), সিরাজগঞ্জ (২৬), টাঙ্গাইল (৩০), নড়াইল (৩১), রংপুর (৩৩), নীলফামারী (৩৪), কুড়িগ্রাম (৩৫), লালমনিরহাট (৩৬), গাইবান্ধা (৩৭), মুন্সীগঞ্জ (৩৮), মাগুরা (৩৯), ঝিনাইদহ (৪০), বগুড়া (৪১), নারায়ণগঞ্জ (৪২), ফরিদপুর (৪৩), যশোর (৪৪), সাতক্ষীরা (৪৫), বাগেরহাট (৪৬), নরসিংদী (৪৭), ভোলা (৪৮), জামালপুর (৪৯), ময়মনসিংহ (৫০-৫১), মেহেরপুর (৫২), চুয়াডাঙ্গা (৫৩), নেত্রকোনা (৫৪), কিশোরগঞ্জ (৫৫), গোপালগঞ্জ (৫৬), বরিশাল (৫৭), রাজবাড়ী (৫৮), শেরপুর (৫৯), শরীয়তপুর (৬০), মাদারীপুর (৬১), সিলেট (৬২), কক্সবাজার (৬৩), রাঙ্গামাটি (তুরাগ নদের পশ্চিমপাড়) (৬৪), খাগড়াছড়ি (তুরাগ নদের পশ্চিমপাড়) (৬৫), সুন্দরবন (৬৬), ফেনী (৬৭), নোয়াখালী (৬৮), লক্ষ্মীপুর (৬৯), চঁাদপুর (৭০), ব্রাহ্মণবাড়িয়া (৭১), খুলনা (৭২), পটুয়াখালী (৭৩), বরগুনা (৭৪), চট্টগ্রাম (৭৫), কুমিল্লা (৭৬), পিরোজপুর (৭৭), ঝালকাঠি (৭৮), সুনামগঞ্জ (৭৯), হবিগঞ্জ (৮০), মৌলভীবাজার (৮১), পাবনা (৮২), ঠাকুরগাঁও (৮৩), পঞ্চগড় (৮৪), দিনাজপুর (৮৫), জয়পুরহাট (৮৬), কুষ্টিয়া (৮৭)। রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, পাবনা, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, দিনাজপুরের খিত্তাগুলোর অবস্থান তুরাগ নদের পশ্চিম পাড়ে।

এ ছাড়াও ১৫(খ), ৮৮, ৮৯, ৯০, ৯১, ৯২নং খিত্তাগুলো সংরক্ষিত হিসেবে রাখা হয়েছে।

বিএস