• ঢাকা
  • শনিবার, ০৬ জুন, ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
প্রকাশিত: এপ্রিল ৮, ২০২০, ০১:৪১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ৮, ২০২০, ০১:৪৪ পিএম

হজ নিবন্ধনের সময় ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ল

জাগরণ প্রতিবেদক
হজ নিবন্ধনের সময় ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ল

কোভিড-১৯ কারণে চলতি বছর হজে গমনেচ্ছুদের জন্য হজ নিবন্ধন কার্যক্রমের সময়সীমা আরও একদফা বাড়ানো হয়েছে। ১৬ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) পর্যন্ত সময় বাড়িয়েছে সরকার।

বুধবার (৮ এপ্রিল) ধর্ম মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘‘২০২০ সালে হজ করতে আগ্রহী অনেকে নিবন্ধনের জন্য পাসপোর্ট জমা দিলেও দীর্ঘ ছুটির কারণে ব্যাংক থেকে নিবন্ধন ভাউচার নিতে পারেননি। তাদের কথা বিবেচনা করেই সময় বাড়ানো হলো।এরই মধ্যে অনেকে টাকা জমা করতে না পারায় নিবন্ধন করতে পারেননি। এ অবস্থায় ২০২০ সালে সরকারি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের নিবন্ধনের সুবিধার্থে নিবন্ধনের সময়সীমা ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হল।’’

ধর্ম মন্ত্রণালয় আরও জানায়, ‘‘এ অবস্থায় চলতি বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের নিবন্ধনের সুবিধার্থে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’’

১ মার্চ (রোববার) থেকে হজযাত্রী নিবন্ধন শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে নিবন্ধনের সময়সীমা ১৫ মার্চ (রোববার) পর্যন্ত বেঁধে দেয়া হয়েছিল। পরে তা ২৫ মার্চ (বুধবার) পর্যন্ত সময় বাড়নো হয়। তাতেও ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জনের কোটা পূরণ না হওয়ায় ৮ এপ্রিল (বুধবার) পর্যন্ত বাড়ানোর ঘোষণা দেয়া হয়। আজ আবার নতুন করে তারিখ ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়।

এখন পর্যন্ত সরকারিভাবে ৭ হাজার ১৯৮ জনের মধ্যে নিবন্ধন করেছেন ৩ হাজার ৩৭৯ জন এবং বেসরকারি ১ লাখ ২০ হাজার জনের মধ্যে চুড়ান্ত নিবন্ধন হয়েছে ৪৬ হাজার ১৫২ জনের। তবে করোনাভাইরাসের কারণে নিবন্ধিতরা হজে যেতে না পারলে টাকা ফেরত দেয়া হবে বলেও জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

এবার হজে যেতে আগ্রহীদের জন্য তিন ধরনের প্যাকেজ রেখেছে সরকার। এর মধ্যে প্রথম প্যাকেজে ৪ লাখ ২৫ হাজার টাকা, দ্বিতীয় প্যাকেজে ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং তৃতীয় প্যাকেজে ৩ লাখ ১৫ হাজার টাকা খরচ হবে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৩০ জুলাই অর্থাৎ ৯ জিলহজ হজ হবে এবার। সে অনুযায়ী ২৩ জুন হজ ফ্লাইট শুরু করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করে আসছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন।

এসএমএম