• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ২১, ২০১৯, ০১:১০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২১, ২০১৯, ০১:১০ পিএম

দুর্দশার কবলে পাকিস্তান ক্রিকেট 

ক্রীড়া ডেস্ক
দুর্দশার কবলে পাকিস্তান ক্রিকেট 
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টুয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার কারণে নিজ দেশের সমর্থকদের তোপের মুখে পড়ে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। ফটো : সংগৃহীত

দীর্ঘ সময় কোনো দেশ নিরাপত্তাজনিত কারণে পাকিস্তান সফরে যায়নি। শ্রীলঙ্কার দলের আসাকে পাকিস্তানিরা তাদের দেশের ক্রিকেটের পুনরুত্থান বলেই ভেবে নিয়েছিল। দ্বিতীয় সারির লঙ্কানদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতলেও টি-টুয়েন্টিতে ঘরের মাঠে পাকিস্তানর হোয়াইটওয়াশ হওয়াটা স্বাগতিক দর্শকরা এখনো মেনে নিতে পারছে না। মাঠের পারফরম্যান্স ভালো না হওয়ায় পাকিস্তানে ক্রিকেট ফেরার আনন্দ দেশটির জনগণের কাছে এখন অনেকটাই ম্লান হয়ে পড়েছে। 

সম্প্রতি, ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতলেও টি-টুয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার কারণে পাকিস্তান দল তাদের দেশের সমর্থকদের তোপের মুখে পড়তে শুরু করে। 

নিরাপত্তাজনিত কারণে ১০ ক্রিকেটার পাকিস্তান সফরে না যাওয়ায় দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে আসা শ্রীলঙ্কার কাছে টি-টুয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষ দল পাকিস্তান হোয়াইটওয়াশ হয়ে রীতিমতো লজ্জায় নিমজ্জিত হয়। আর তাতেই নড়েচড়ে বসে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। 

উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান সরফরাজ আহমেদকে টেস্ট এবং টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটের অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছে পিসিবি। সরফরাজ যে শুধুমাত্র অধিনায়কত্ব হারিয়েছেন তাই নয়, টেস্ট ও টি-টুয়েন্টি দল থেকেও তাকে বাদ দেয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদে গত রোববার সরফরাজের সমর্থকরা তার বাড়ির সামনে এসে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন।

বিক্ষোভকারীরা সরফরাজের পক্ষে প্ল্যাকার্ডে বিভিন্ন লেখা নিয়ে আসেন, অনেকে আবার তার এই পরিণতির জন্য প্রধান কোচ ও প্রধান নির্বাচক মিজবাহ উল হককে দায়ী করে তার সরে যাওয়ার দাবিও জানান। 

এদিকে, প্রধান কোচ ও প্রধান নির্বাচকের দ্বৈত দায়িত্ব দিয়ে মিজবাহ উল হককে পিসিবি অতিরিক্ত চাপে ফেলে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার জাভেদ মিয়াদাদ।

পাকিস্তানি একটি বার্তা সংস্থাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মিয়াদাদ বলেন, ব্যাটসম্যান হিসেবে সরফরাজ ভালো করছিল না। তবে একজন উইকেটরক্ষক হিসেবে সে খুবই ভালো করছিল এবং ছন্দে ফিরতে তাকে বোর্ডের আরও সময় দেয়া উচিৎ ছিল।  

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপকে মাথায় রেখে পাকিস্তানের সাদা পোশাকের অধিনায়ক করা হয়েছে আজহার আলীকে। তবে মিয়াদাদের ভাষ্য, অস্ট্রেলিয়া সিরিজে সরফরাজকেই অধিনায়ক রাখা উচিৎ ছিল এবং বাবরকে তার সহকারীর দায়িত্ব দেয়া যেতে পারতো। এই সিরিজের জন্য কেবলমাত্র মেধা ও শারীরিক ফিটনেস দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে একমাত্র রাস্তা হওয়া উচিৎ। 

মিয়াদাদ একইসঙ্গে পাকিস্তান দলের বর্তমান দুর্দশা কাটাতে ওয়াসিম আকরাম, শোয়েব মোহাম্মদ এবং সাদিক মোহাম্মদদের মতো সাবেক খেলোয়াড়দের সাহায্য নিতে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে (পিসিবি) পরামর্শ দিয়েছেন।

২০২০ টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে পাকিস্তানের বিভিন্ন স্টেডিয়ামে ভিন্ন ধর্মী পিচ তৈরী করতে পিসিবিকে পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এমন ধরনের পিচ হওয়া উচিৎ যেখানে ব্যাটসম্যান ও বোলাররা সমান সুযোগ পাবে। খেলার মানোন্নয়নে সব নিয়ম নীতি বজায়ে রাখা দরকার।

আরআইএস  
 

আরও পড়ুন