• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৪, ২০২০, ০৬:১৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৪, ২০২০, ০৬:১৪ পিএম

কোপা আমেরিকা ও অলিম্পিকে নেইমারের পাখির চোখ

ক্রীড়া ডেস্ক
কোপা আমেরিকা ও অলিম্পিকে নেইমারের পাখির চোখ
২০১৬ সালে নিজ দেশে অনুষ্ঠিত গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে খেলে ব্রাজিলকে সোনা জিতিয়েছেন নেইমার। ফটো : গেটি ইমেজ

এক সময় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এবং লিওনেল মেসির যোগ্য প্রতিপক্ষ হিসেবে ধরা হতো নেইমার জুনিয়রকে। মাঠের খেলায় রোনালদো আর মেসির পরেই নিজেকে প্রমাণটাও করছিলেন তিনি। কিন্তু গত দুই মৌসুমে একের পর ইনজুরি সেরা ফুটবলারের দৌড়ে অনেকটাই পিছিয়ে দিয়েছে এই ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টারকে।

কিন্তু নেইমার আবারও ফিরতে চান সেরাদের কাতারে। আর সেজন্য পাখির চোখ করেছেন ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য কোপা আমেরিকা আর টোকিও অলিম্পিকের ফুটবল ইভেন্টকে। ২

২০১৪ বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার বিপক্ষে প্রথম ভয়াবহ ইনজুরিতে পড়েন নেইমার। যদিও সেই ইনজুরি কাটিয়ে পরবর্তী দুই বছর দাপটের সাথে ব্রাজিল আর বার্সেলোনার হয়ে খেলেছেন নেইমার। ২০১৭ সালে তিনি যোগ দেন ফ্রান্সের ক্লাব পিএসজিতে। গড়েন ট্র্যান্সফার ফি এর বিশ্বরেকর্ড; হয়ে যান বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। পিএসজির হয়ে শুরুটা দারুণ হলেও মাঝপথে বাঁধ সাধে ইনজুরি। ২০১৭-১৮ মৌসুমের শেষটা তার হয় মাঠের বাইরে থেকে।

এক সময় বিশ্বকাপ মিস করার সম্ভাবনাও ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে মাঠে ফেরেন। কিন্তু ২০১৯ সালে আবারও ইনজুরি, সেটাও একাধিকবার। যে কারণে খেলা হয়নি ব্রাজিলের হয়ে সর্বশেষ কোপা আমেরিকায়।

ইউরোপে আসার পর ক্যারিয়ারে ছোট-বড় মিলে মোট ১৬ বার চোটে পড়েছেন নেইমার। শুধু পিএসজিতে প্রথম দুই মৌসুমে প্রায় অর্ধেক সময় মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে তাকে! বর্তমান সময়ে নেইমারের চেয়ে এত বেশি সময় ইনজুরির জন্য মাঠের বাইরে থাকার রেকর্ড আর কারোর নেই। ফলাফল, সাম্প্রতিক সময়ে সেরা দশ বিশ্বসেরা ফুটবলারের তালিকাতেও নেই নেইমার।

তবে ২০২০ সালটা নতুন করে শুরু করতে চান নেইমার জুনিয়র। এই মুহূর্তে পিএসজির হয়ে ফর্মেও আছেন। সর্বশেষ মোনাকোর বিপক্ষে করেছেন দুই গোল। তিনি আশা করছেন, নতুন ইনজুরিতে না পড়লে মৌসুমটা শেষ হবে ভালভাবে।

নেইমার জানিয়েছেন, আমি এখন পুরো ফিট আছি। ফর্মটাও ভালো। সুস্থ থাকলে আমি ব্রাজিলের হয়ে আগামী কোপা আমেরিকা আর অলিম্পিকে খেলতে চাই। 

২০১৬ সালে নিজ দেশে অনুষ্ঠিত গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে খেলে ব্রাজিলকে সোনা জিতিয়েছেন নেইমার। তবে বার্সেলোনার আপত্তির কারণে তার খেলা হয়নি কোপা শতবর্ষের উদযাপন আসরে।

এবারেও প্রায় একই সাথে অনুষ্ঠিত হবে কোপা আমেরিকা আর অলিম্পিক। জুনে আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়ায় বসবে কোপা আমেরিকার ৪৭তম আসর। পরের মাসে টোকিওতে শুরু হবে অলিম্পিক।

অলিম্পিক ফুটবলে মূলত কোনো দেশের অনূর্ধ্ব-২৩ দল খেলে। তবে কোচ চাইলে তিনজন বেশি বয়সী খেলোয়াড় দলে নিতে পারেন। ব্রাজিল দলে বেশি বয়সী খেলোয়াড়দের একজন হিসেবে খেলার সু্যোগ পেলে তা লুফে নিতে চান নেইমার।

এই নিয়ে ২৮ বছর বয়সী নেইমার বলেন, আমি তো কোপা আর অলিম্পিক দুই আসরেই খেলতে চাই। কিন্তু পিএসজি সেই অনুমতি দেবে কি না কে জানে । এটা আসলেই একটু কঠিন। পিএসজিকে জিজ্ঞেস করুন। 

এই দুই আসরে খুব ভাল কিছু করতে পারলে যে আবার হারিয়ে যাওয়া নেইমারকে নিয়ে মাতবে ফুটবল-বিশ্ব, সেটা হয়ত বুঝতে পেরেছেন তিনি। কারণ এই মুহূর্তে পিএসজিতে অনেক বেশি আলোচনায় কিলিয়ান এমবাপ্পে। তাকে ছাড়াতে ক্লাবের সাথে সাথে আন্তর্জাতিক ফুটবলেও নিজের সেরাটা দিতে হবে নেইমারকে।

আরআইএস  

আরও পড়ুন