• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৪:৪৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৪:৪৪ পিএম

স্পন্সরের সংকটে বিসিবি 

ক্রীড়া ডেস্ক
স্পন্সরের সংকটে বিসিবি 

মাঠের খেলায় জাতীয় ক্রিকেট দলের বাজে পারফরম্যান্সের নেতিবাচক প্রভাব এখন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে (বিসিবি) পড়তে শুরু করেছে। জাতীয় দল তো বটেই, ‘এ’ দল, অনূর্ধ্ব-১৯ এবং নারী দলের জন্য টাইটেল স্পন্সর চেয়ে দরপত্র আহ্বান করেও বোর্ড এখন পর্যন্ত কারোর কাছ থেকে কোনো সাড়াই পায়নি।

নির্ধারিত সময় পার হয়ে গেলেও কোনো প্রতিষ্ঠানই টাইটেল স্পন্সর হওয়ার জন্য দরপত্র জমা দেয়নি। বিসিবি ‘বিড’ করার সময় বাড়ালেও তাতে লাভ হয়নি। বরং পরিস্থিতি সামলাতে এখন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বোর্ডকে বাধ্য হয়ে অনানুষ্ঠানিকভাবে দর-কষাকষিতে যাচ্ছে। 

গত ৮ জানুয়ারি নতুন চুক্তির জন্য দরপত্র আহ্বান করে বিসিবি। আগ্রহী প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের দর প্রস্তাব জমা দেয়ার জন্য ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়। কিন্তু প্রথম দফায় কোনো প্রতিষ্ঠান বিড না করায় সময় বাড়ানো হলেও তাতে কোনো ফল হয়নি।

অথচ ২০১৮ সালের ৭ আগস্টে দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় মোবাইল ফোন অপারেটর রবির সঙ্গে চুক্তি বাতিলের পর ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে ৩১ জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত ১৭ মাসের চুক্তির জন্য বিসিবিকে ইউনিলিভার দিয়েছিল ৩৩ কোটি টাকা। 

এবার ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ থেকে ৩১ মার্চ ২০২৩ পর্যন্ত ৩৮ মাসের চুক্তির জন্য সর্বশেষ প্রাপ্তির প্রায় ৩ গুণ প্রত্যাশা করেছিল দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা। তারা এবার দরপত্রে ভিত্তিমূল্য ধরেছে ৮৫ কোটি টাকা। এই ভিত্তিমূল্যে কেউ সাড়া দিচ্ছে না। 

বিসিবি এক পরিচালক বিষয়টি নিয়ে বলেন, এটি আমাদের জন্য বিব্রতকরই। এর আগে আমরা বরং অন্য রকমই দেখেছি। অবশ্য জাতীয় দলের বাজে পারফরম্যান্সই এর মূল কারণ হতে পারে। ২০১৫-র বিশ্বকাপ থেকে জাতীয় দল দারুণ পারফর্ম করতে শুরু করার পর আমরা স্পন্সরদের হুমড়ি খেয়েই পড়তে দেখেছি। এখন মুখ ফিরিয়ে নেয়াকে তাই বাজে পারফরম্যান্সের ফলই ধরতে হবে।

তবে বিসিবি আশা করছে, যুব বিশ্বকাপ শিরোপা জিতে আসা আকবর আলীদের কারণে হলেও স্পন্সর আসবে। সোয়া তিন বছর মেয়াদি চুক্তির বিপরীতে প্রত্যাশিত মূল্যও পাওয়া যাবে। বিসিবির ওই পরিচালকের ভাষ্য, কোনো বিডই যখন জমা পড়েনি, তখন হয়তো অন্য ব্যবস্থায় আমাদের যেতে হবে। কিছু প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বসতে হবে। আশা করি আকবরদের সাফল্যে এবার টাইটেল স্পন্সর হওয়ার আগ্রহ দেখাবে অনেক প্রতিষ্ঠানই।

আরআইএস 
 

আরও পড়ুন