• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল, ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০, ০৪:৩০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০, ০৪:৩০ পিএম

তামিম-আল আমিনের সেঞ্চুরি, ড্রয়ে শেষ জিম্বাবুয়ের প্রস্তুতি

ক্রীড়া ডেস্ক
তামিম-আল আমিনের সেঞ্চুরি, ড্রয়ে শেষ জিম্বাবুয়ের প্রস্তুতি

বিসিবি একাদশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের প্রস্তুতি ম্যাচটা আলোচনায় ছিল বেশ। তার কারণটাও স্পষ্ট। মূলত যুব বিশ্বকাপের ছয় ক্রিকেটারের এই ম্যাচে খেলাতেই জন্ম দিয়েছে আগ্রহের। বিশ্বকাপের পর তারা তো এই প্রথম মাঠে নামলেন। সেই প্রত্যাশা পূরণ করে সেঞ্চুরিও করেছেন বিশ্বকাপে ইনিংস উদ্বোধনে নামা তানজিদ হাসান তামিম। যদিও পারভেজ হোসেন ইমন ছাড়া বাকিরা হয়েছেন ব্যর্থ। 

সাভারের বিকেএসপিতে দুই দিনের এই প্রস্তুতি ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত ড্রই হয়েছে। যদিও তার আগেই সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তানজিদ হাসান তামিম ও এই ম্যাচে বিসিবি একাদশের অধিনায়ক আল আমিন জুনিয়র। 

প্রথম দিন টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় জিম্বাবুয়ে। ব্যাটিংয়ে নেমে দলটিকে দারুণ সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার প্রিন্স মাসভাউরে এবং কেভিন কাসুজা। প্রথম সেশনে কোনো উইকেট হারায়নি জিম্বাবুয়ে। 

শুরু থেকেই দারুণ খেলতে থাকা কাসুজা ১০০ বলে ৫১ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়েন। আরেক ওপেনার মাসভাউরে ৭৭ বলে ৪৫ রান করে আল আমিন জুনিয়রের বলে উইকেটের পেছনে আকবর আলীর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন।

এরপর এই জুটি ভেঙে গেলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় বাংলাদেশের ছেলেরা। একে একে তারা তুলে নেয় আরও ৬ উইকেট। বিসিবি একাদশের অফ স্পিনার শাহাদাতের বোলিংয়েই সবচেয়ে বেশি ভুগেছেন জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানরা। তিনি একাই নেন ৩ উইকেট।

ক্রেইগ আরভিন ১০ রান করে আউট হন। ব্রায়ান মুদজিঙ্গানিমা করেন ১৭ রান। রেগিস চাকাভা আউট হয়েছেন এলবিডব্লিউ হয়ে শাহাদাতের বলে। এরপর রানের খাতা খোলার আগেই টিনোটেন্ডা মুতোম্বোদজিকে একই কায়দায় ফেরান শাহাদাত।
 
রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে ফিরে যাওয়া কাসুজা আবার ব্যাটিংয়ে নেমেও সুবিধা করতে পারেননি। ৭০ রান করে রান আউট হয়ে ফেরেন এই ব্যাটসম্যান। টিমিসেন মারুমা ৩৪ রান করে আল আমিনের বলে রিশাদ হোসেনকে ক্যাচ দিলে অল আউটের শঙ্কায় পড়ে জিম্বাবুয়ে।
 
এরপর জিম্বাবুয়েকে আর উইকেট হারাতে দেননি  কার্ল মাম্বা এবং  এইন্সলে এনদুলুভু। দুজনে অষ্টম উইকেটে গড়েছেন ৬৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি। আর তাতেই ৩ উইকেট হাতে রেখে দিন শেষ করে সফরকারীরা। মাম্বা ১০৫ বলে ৫৪ রান করে অপরাজিত আছেন। এনদুলুভু অপরাজিত আছেন ৪৪ বলে ২৫ রান করে।

দ্বিতীয় দিনের শুরুতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় জিম্বাবুয়ে। বুধবার ব্যাটিংয়ে নেমে যুব দলের তিন ব্যাটসম্যান মিলে সাকুল্যে করেছেন ৪ রান। মাহমুদুল জয় ১, শাহাদাত ২ ও আকবর আউট হয়েছেন ১ রান করে। তাদের তিনজনকেই নামানো হয়েছিল বিশ্বকাপে করা নিজেদের পজিশনেই। তবে এক ইনিংসে রান পাননি বলেই যে বাতিলের খাতায় ফেলে দিতে হবে যুবা ক্রিকেটারদের- এমনটাও কিন্তু নয়।

ওই তিন ব্যাটসম্যান না পারলেও ওপেনার হয়েও ৬ নম্বরে খেলতে নেমে ঠিকই নিজের সামর্থ্যের জানান দিচ্ছেন তানজিদ হাসান তামিম। ম্যাচের শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে ৯৯ বলে ১৪ চার ও ৫ ছক্কায় ১২৫ রান করেন তিনি। সেঞ্চুরি তুলে নেন অধিনায়ক আল আমিন জুনিয়রও। ১৪৫ বলে ১৬ চারে ১০০ রান পূর্ণ করেন আল আমিন জুনিয়র। আল আমিনের সেঞ্চুরি পূর্ণ হবার সাথে সাথে শেষ হয় খেলা।

এমএইচবি