• ঢাকা
  • রবিবার, ০৭ মার্চ, ২০২১, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২১, ০৭:১৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২০, ২০২১, ০৭:১৮ পিএম

সাবধানী টাইগারদের নতুন রেকর্ড!

সাবধানী টাইগারদের নতুন রেকর্ড!

প্রায় এক বছর পর মাঠে গড়ালো জাতীয় দলের ক্রিকেট। আর মাঠে ফিরেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিতে নিল টাইগাররা। সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে যাওয়ার পথে একটি রেকর্ডও গড়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। জাতীয় দলের ধীর গতিতে রান তাড়া করার রেকর্ড বইয়ের দ্বিতীয়স্থান অর্জন করেছে আজকের ব্যাটিং ইনিংসটি।

টসে জিতেই ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। অধিনায়কের সিদ্ধান্ত বিফলে যেতে দেননি বোলাররাও। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণি, অভিষিক্ত নবীন পেসার হাসান মাহমুদের গতি আর অভিজ্ঞ মুস্তাফিজদের ম্যাজিক বুঝে ওঠার আগেই ব্যাটিং ইনিংস শেষ ক্যারিবীয়দের। ৩৩ দশমিক ২ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১২২ রান জমা করেন ফিল সিমন্সের শিষ্যরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ চারটি উইকেট নিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব।

৫০ ওভারে বাংলাদেশের টার্গেট দাঁড়ায় মাত্র ১২৩। কিন্তু শুরু থেকেই বুঝেশুনে এগিয়েছেন দুই ওপেনার। তামিম এবং লিটন দাসের উদ্বোধনী জুটিতে রান নেয়ার জন্য কোনো তাড়া ছিলোনা বললেই চলে।

পাওয়ার প্লের প্রথম দশ ওভারে মাত্র ৩৯ রান যোগ হয়েছে বাংলাদেশের খাতায়। এরপর যেন গতি আরও কমেছে। শেষ পর্যন্ত ৩৩ দশমিক ৫ ওভারে ১২৫ রান তাড়া করে জয় পায় বাংলাদেশ। সেই হিসেবে গড়ে মাত্র ৩ দশমিক ৬৯ রান প্রতি ওভারে যোগ হয়েছে বাংলাদেশের স্কোরকার্ডে। ধীরেসুস্থে খেলে এই জয় নিশ্চিত হলেও চারটি উইকেটও হারাতে হয়েছে বাংলাদেশকে।

অবশ্য এর চেয়েও ধীরগতিতে রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। অবশ্য সেটিও প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে। ২০১১ সালে চট্টগ্রাম সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বোলিং তোপে মাত্র ৬১ রান করতে সমর্থ হয় তারা। ৬২ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশকে ২০ ওভার পর্যন্ত ব্যাট করতে হয়। সেই হিসেবে রানের গড় ওভারপ্রতি মাত্র ৩ দশমিক ১০। আশ্চর্যজনকভাবে সেই ম্যাচেও ১৬ রানের বিনিময়ে চার উইকেট নিয়েছিলেন সাকিব!

আরও পড়ুন