• ঢাকা
  • বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮
প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২১, ১২:৫৭ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২০, ২০২১, ০৬:৫৭ পিএম

নিউজিল্যান্ডের হাতে ফাইনালের নিয়ন্ত্রণ

নিউজিল্যান্ডের হাতে ফাইনালের নিয়ন্ত্রণ

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের তৃতীয় দিনটা নিশ্চয়ই ভুলে যেতে চাইবে ভারত। দিনের শুরুতেই ৭১ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে তাদের প্রথম ইনিংস থেমেছে মাত্র ২১৭ রানে। যার পুরো কৃতিত্ব কাইল জেমিসনের। জবাবে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ডের মাত্র ২টি উইকেট তুলে নিতে পেরেছেন ভারতের বোলাররা। ডেভন কনওয়ের হাফ সেঞ্চুরিতে দিন শেষে কিউদের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১০১ রান।

উদ্বোধনী জুটিতে দুই ওপেনার ৭০ রান যোগ করেন। ৩০ রান করা টম লাথামকে বিরাট কোহলির ক্যাচ বানিয়ে ভারতকে ব্রেক থ্রু এনে দেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। লাথামের ওপেনিং সঙ্গি কনওয়ে দেখা পেয়েছেন হাফ সেঞ্চুরির। যদিও ৫৪ রানের বেশি করতে পারেননি, আউট হয়েছেন ইশান্ত শর্মার বলে।

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন অপরাজিত আছেন ১২ রান নিয়ে। তার সঙ্গি হিসেবে অপর প্রান্তে শূন্য রানে অপরাজিত আছেন রস টেলর। অবশ্য এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান ২ বল খেলার পরই দিনের খেলার সমাপ্তি ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। ভারতের হয়ে ১টি করে উইকেট অশ্বিন আর ইশান্তের।

এদিকে ৩ উইকেটে ১৪৬ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে ভারত। ব্যাটিংয়ে নেমে খুব বেশি সুবিধা করতে পারেননি দ্বিতীয় দিন মন্থর ব্যাটিং করে ভারতের হাল ধরা বিরাট কোহলি। তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনের তৃতীয় ওভারেই সাজঘরে ফেরেন ভারতের এই অধিনায়ক।

জেমিসনের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে আউট হন তিনি। এরপর আজিঙ্কা রাহানে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করলেও হাফ সেঞ্চুরির আগে ফিরতে হয় রাহানেকে। ওয়াগন্যারের বলে টম লাথামের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটেন তিনি।

শেষ দিকে রবীন্দ্র জাদেজা ও রবীচন্দ্রন অশ্বিন জুটি গড়ার চেষ্টা করলেও বাকিরা সুবিধা করতে পারেননি। অশ্বিন ২২ রানে ফেরার পর জাদেজা ফিরেছেন ১৫ রানে। ইশান্ত শর্মাকে সাজঘরে ফিরিয়ে ৫ উইকেট পূর্ণ করেন জেমিসন। ওয়েগনার এবং বোল্ট নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

এর আগে বৃষ্টির কারণে প্রায় ৩৪ ওভার বাকি থাকতেই দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করতে বাধ্য হয় ম্যাচ অফিসিয়ালরা। যেখানে দ্বিতীয় দিন শেষে ৩ উইকেটে ভারতের সংগ্রহ ১৪৬ রান। মন্থর ব্যাটিংয়ে ৪৪ রানে অপরাজিত রয়েছেন বিরাট কোহলি আর ২৯ রানে অপরাজিত আজিঙ্কা রাহানে।

আগে ফিল্ডিং করার ইচ্ছে থাকলেও টস ভাগ্য পক্ষে যায়নি কোহলির। তাতে কেন উইলিয়ামসনের কাছে টসে হেরে আগে ব্যাট করতে নামতে হয় রোহিত শর্মা-শুভমান গিলদের। প্রথম দিন টানা বৃষ্টি হওয়ায় উইকেট থেকে কিছুটা বাড়তি সুবিধা পাচ্ছিলেন বোল্ট-টিম সাউদিরা।

নিউজিল্যান্ডের পেসাররা দারুণ লাইন লেন্থ বজায় রেখে বল করলেও তাঁদের বিপক্ষে দারুণ শুরু করেন ভারতের দুই ওপেনার রোহিত ও গিল। উদ্বোধনী জুটিতে এই দুজনে মিলে করেছেন ৬২ রান। কাইল জেমিসনের বল ফুলার লেন্থে পেড়ে কিছুটা সুইং করে। আর সেটা খেলতে গিয়েই থার্ড স্লিপে দাঁড়িয়ে থাকা সাউদির হাতে ক্যাচ তুলে দেন রোহিত।

ফলে দারুণ শুরু করলেও ৬৮ বলে ৩৪ রান করে থামতে হয় তাঁকে। ইনিংসটি খেলতে ছয়টি চার মেরেছেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। রোহিতের বিদায়ের পর সাজঘরে ফেরেন গিলও। ৬৪ বলে ২৮ রান করা তরুণ এই ওপেনারকে ফেরান নেইল ওয়াগন্যার।

তিনে নেমে নিজের স্বভাবগত ব্যাটিং করতে থাকেন চেতেশ্বর পূজারা। চারে নেমে তাঁকে সঙ্গ দিয়েছেন কোহলি। তবে এই দুজন মিলে খুব বেশি রান যোগ করতে পারেননি। এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে প্রায় ১৬ ওভার খেললেও রান করেছেন মোটে ২৫। যেখানে ১৭ রানই তুলেছেন কোহলি।

বোল্টের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে ৫৪ বলে ৮ রান করে পূজারা ফিরলে ভাঙে তাঁদের এই জুটি। ৮৮ রানে ৩ উইকেট হারানো ভারতের হাল ধরেন কোহলি ও রাহানে। শুরু থেকেই কিছুটা মন্থর ব্যাটিং করতে থাকেন কোহলি। এদিকে সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানকে সঙ্গ দেয়া রাহানে এদিন দারুণ ব্যাটিং করেছেন।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে তাঁরা দুজনে খেলেছেন প্রায় ২৫ ওভার। যেখানে কোহলি ও রাহানে মিলে রান তুলেছেন ৫৮। আলোকস্বল্পতার কারণে এমন অবস্থায় দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ ঘোষণা করে ম্যাচ অফিসিয়ালরা। এদিন নিউজিল্যান্ডের হয়ে একটি করে উইকেট নিয়েছেন জেমিসন, বোল্ট ও ওয়াগন্যার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত (প্রথম ইনিংস): ২১৭/১০ (ওভার ৯২.১) (কোহলি ৪৪, রোহিত ৩৪, রাহানে ৪৯, গিল ২৮, অশ্বিন ২২, জেমিসন ৫/৩১, ওয়াগন্যার ২/৪০, বোল্ট ২/৪৭)

নিউজিল্যান্ড (প্রথম ইনিংস): ১০১/১ (ওভার ৪৯) (কনওয়ে ৫৪, লাথাম ৩০, উইলিয়ামসন ১২*; অশ্বিন ১/২০, ইশান্ত ১/১৯)