• ঢাকা
  • বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮
প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২১, ০৩:১৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২২, ২০২১, ০৯:১৫ পিএম

স্টার্লিংয়ের গোলে শেষ ষোলোতে ইংল্যান্ড

স্টার্লিংয়ের গোলে শেষ ষোলোতে ইংল্যান্ড

স্ট্রাইকার রাহিম স্টার্লিংয়ের করা একমাত্র গোলে চেক প্রজাতন্ত্রকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের  শেষ ষোলোতে খেলা ভালোভাবেই নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ড। 

মঙ্গলবার (২২ জুন) বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাতে লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই গোল পেতে যাচ্ছিল ইংল্যান্ড। লুক শয়ের সেট পিস থেকে বাড়িয়ে দেয়া বল নিতে রাহিম স্টার্লিং গোলরক্ষককে সামনে পেয়ে তার শরীরের উপর দিয়ে দারুণভাবে ভলি করেন। কিন্তু বল জালের ভেতর না গিয়ে পোস্টের বাঁ পাশের বারে লেগে ফিরে আসে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে তাই ইংলিশরা লিড পায়নি। 

১০ মিনিটে জন স্টোনসের দুরহ কোণ থেকে নেয়া হেড অল্পের জন্য হেডে থাকেনি। পরের মিনিটে ডান পায়ের শট পোস্টের উপর দিয়ে পাঠিয়ে দেন ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেন। 

খেলার ১২ মিনিটে স্বাগতিকদের কপাল খোলে। জ্যাক গ্রেলিশের ডি বক্সে দেয়া দারুণ পাসের সময় বুকায়ো সাকাকে মার্কিংয়ে ব্যস্ত ছিল চেক ডিফেন্ডাররা। বল সাকার নাগাল না পেলেও পেছনে থাকা রাহিম স্টার্লিং হেডে বল কাঙ্ক্ষিত ঠিকানায় পাঠিয়ে দিয়ে খানিক আগে গোল না পাওয়ার আক্ষেপ দূর করেন। 

২৬ মিনিটে হ্যারি মিগুয়েরের বাড়ানো বল পেরে কেনের নেয়া শট বাঁ হাতে চমৎকারভাবে ফিরিয়ে দেন টমাস ভালিক।  দুই মিনিট পর চেক প্রজাতন্ত্র প্রথম সুযোগ সৃষ্টি করে। টমাস সুসেকের অ্যাসিস্টে বল পেয়ে টমাস হোলসের দূরপাল্লার জোরালো শট প্রতিহত করেন ইংলিশ গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড।  খানিক পর হোলসএর হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। 

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে সুসেকের শট অল্পের জন্য নিশানাভেদ করেনি। দুই মিনিট পর লুক শয়ের নেয়া শট ঝাঁপিয়ে পড়ে বাঁচান ভালিক। বিরতির একটু আগে কেনের শটও ভালিক প্রতিহত করেন। যদিও স্টার্লিং অফসাইডে থাকায় রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজান। 

বিরতির পর দুই দল জমজমাট ফুটবল উপহার দিতে পারেনি। ইংল্যান্ডের আধিপত্য দেখা গেলেও তা গোল বাড়ানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না। ৮৩ মিনিটে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে জোড়া গোল করা প্যাটিক শিখের বদলি হিসেবে নামা টমাস পেকহার্টের কিক পোস্টের অনেক উপর দিয়ে চলে যায় তাই চেকদের সমতায় ফেরা হয়নি।

ম্যাচের ৮৬ মিনিটে ইংল্যান্ডের জার্সিতে প্রথম আন্তর্জাতিক গোল পাওয়ার আনন্দে মেতেছিলেন হেন্ডারসন। কিন্তু রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজালে তার আনন্দ আর টেকেনি। ইনজুরি সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে অ্যালেক্স কার্লের ডান পায়ের শট পোস্টের উপর দিয়ে যাওয়ায় চেকরা পরাজয় ঠেকাতে পারেনি। 

এই জয়ের ফলে ৩ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট পাওয়া ইংল্যান্ড ডি গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ডের টিকেট কেটেছে। ক্রোয়েশিয়া এবং চেক প্রজাতন্ত্র সমান ৪ পয়েন্ট পাওয়ার পাশাপাশি গোল পার্থক্যেও সমান থাকলেও বেশি গোল করার কারণে গ্রুপ রানার্সআপ হয়েছে ক্রোয়েশিয়া। চেক প্রজাতন্ত্রের ভাগ্য আপাতত ঝুলন্ত থাকছে। ছয় গ্রুপের তিন নম্বর অবস্থানে থাকা সেরা ৪ দলের মধ্যে তাদের থাকাটা মোটামুটি নিশ্চিত যেহেতু তারা ৪ পয়েন্ট পাওয়ার পাশাপাশি এক গোলের ব্যবধানে এগিয়ে আছে।