• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮
প্রকাশিত: জুলাই ৩১, ২০২১, ০৪:৪২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ৩১, ২০২১, ১০:৪২ এএম

বাফুফের লীগ স্থগিত কাণ্ডে ফুটবলার-কোচদের ক্ষোভ

বাফুফের লীগ স্থগিত কাণ্ডে ফুটবলার-কোচদের ক্ষোভ

গত শুক্রবার বিকাল ৪টায় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের দুইটি ম্যাচ ছিল। ম্যাচ খেলার জন্য পুরান ঢাকার ক্লাব রহমতগঞ্জ ও গোপীবাগের ব্রাদার্স ইউনিয়ন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিল। চট্টগ্রাম আবাহনী ও উত্তর বারিধারার ম্যাচ ছিল কমলাপুর স্টেডিয়ামে। এই দুই দলও মাঝপথ থেকে ফেরত এসেছে। চার ক্লাবকে বেলা ৩টার দিকে বাফুফে থেকে বিষয়টি জানানো হয়েছে লীগ স্থগিতের খবর।  ফুটবলার, কোচ ও সংগঠকদের পাশাপাশি বাফুফের এমন সিদ্ধান্তে চটেছে সাধারণ ফুটবল প্রেমীরাও

বাফুফের এমন সিদ্ধান্তে এক প্রকার অবাক ও হতাশা প্রকাশ করেছেন চিটাগাং আবাহনীর ফুটবলাররা। এমন ঘটনা ফুটবলারদের মানসিক ভাবে পিছিয়ে দেয় বলে জানালেন চিটাগাং আবাহনীর ফুটবলার রাকিব হোসেন। ক্রীড়া বিষয়ক ওয়েবসাইট ডেইলিস্পোর্টসবিডিকে তিনি বলেন, “মাঠে যাওয়ার জন্য আমরা মাত্র বাসে উঠেছি ঠিক সেই মুহুর্তে জানতে পারি খেলা হচ্ছে না। বাফুফের এমন সিদ্ধান্তে আমরা সবাই হতাশ। এমন করলেও খেলার প্রতি মন থাকে না। আমরা চাই দ্রুত লীগ মাঠে গড়াক, আগের বারের মতো যেন বাতিল না হয়।”

রাকিব হোসেন হতাশা প্রকাশ করলেও দলের কোচ মারুফুল হক হতাশার পাশাপাশি বাফুফের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বাফুফের এমন কর্মকান্ড নিয়ে এরপর আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি দেশ সেরা এই কোচ।

মারুফুল হকের পাশাপাশি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বসুন্ধরা কিংসের স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজন। তার মতে সূচি দেয়ার পর ম্যাচের ঘন্টা খানেক আগে এরকম সিদ্ধান্ত জানানো কোন ভাবেই কাম্য নয়। তিনি বলেন, “এই লীগের কারণে এবারের ঈদ ফুটবলাররা ক্লাবেই কাটিয়েছে। সামনে আমাদের এএফসি কাপ, তার আগে যদি লীগের ম্যাচ না হয় সেটা আমাদের জন্য ভালো কিছু নয়।”

ব্রাদার্স ইউনিয়নে অভিজ্ঞ ফুটবলার জাহিদ হাসান এমিলি জানালেন বাফুফের এমন সিদ্ধান্ত এক প্রকার হাস্যকর। তিনি  বলেন, “এটা সবাই জানে যে ৫ আগস্টের আগে কোনোভাবেই খেলা সম্ভব না। শুধু খেলাধূলাই না, সব বন্ধ। বিষয়টা জানার পরও কীভাবে সরকারের অনুমতি ছাড়া খেলার সূচি ৩০ জুলাই দিয়ে দেয়া হয়? এটা হাস্যকর একটা বিষয়। এভাবে সূচি পাল্টে বাফুফে নিজে কেন হাস্যরসের শিকার হচ্ছে আর আমাদেরকেই কেন চাপের মধ্যে রাখছে?”

উত্তর বারিধারার উজবেকিস্তানি ফুটবলার ইভজেনি কোচনেভ তার ফেসবুক প্রোফাইলে বাফুফের এমন কর্মকান্ডকে সার্কাস হিসেবে উল্লেখ করে লিখেছেন, “দয়া করে লীগ বন্ধ করে দেন, যথেষ্ট সার্কাস হয়েছে। ম্যাচ শুরুর দুই ঘন্টা আগে আপনি কিভাবে ম্যাচ স্থগিত করতে পারেন? এটা ক্লাব, খেলোয়াড় এং বাংলাদেশের সকল মানুষদের প্রতি অসম্মান করা।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ফুটবলার বললেন, “বাফুফেকে নিয়ে অনেক বলেছি। এখন বাফুফের এসব থার্ড ক্লাস কর্মকান্ড নিয়ে কথা বলতেও লজ্জা লাগে। তাই এসব নিয়ে কোন কিছু বলতে চাই না।”

পুরান ঢাকার ক্লাব রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটির অধিকাংশ অর্থ আসে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও কুরবানির ঈদে গরুর হাটের ইজারদারের টাকা থেকে। বার বার লিগ পেছানোয় ক্লাবের খরচ বেড়েই চলেছে বলে জানান ক্লাবটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ হামিদ সবুজ। তিনি আরো বলেন, “খরচ তো বাড়ছেই, কোভিডের সময়ে আমরা তো পরিস্থতির শিকার। বার বার এমন ঘটনার কারনে আমাদের সমস্যা হচ্ছে।”

এবারের প্রিমিয়ার লিগে বাফুফের লিগ স্থগিত রাখার এমন তামাশার সিদ্ধান্ত এর আগেও কয়েকবার নিয়েছে। এর আগে লকডাউনের মধ্যে লীগ চালাতে চাইলেও ১ জুলাই মধ্য রাতে নোটিশ দিয়ে লীগ সাময়িক স্থগিত রাখার ঘোষণা দেয় বাফুফে। এরপর ১৪ জুলাই লীগ মাঠে গড়ালেও ঈদের কারণে ১৯ জুলাই থেকে আবারও বন্ধ থাকে লীগ। ঈদের পর ২৪ জুলাই থেকে লীগ শুরুর কথা থাকলেও ২৩ জুলাই রাতে হুট করেই লীগ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বাফুফে। এরপর গতকাল ২৯ জুলাই রাতে নতুন সূচি দেয়ার পর আজ লীগ মাঠে গড়ানোর কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তা আবারও সাময়িক স্থগিত ঘোষণা করে।