• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১, ২০১৯, ০৮:৪৩ এএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১, ২০১৯, ০৮:৪৩ এএম

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন : পদত্যাগ করলেন আহছানউল্লাহর ভিসি

জাগরণ প্রতিবেদক
শিক্ষার্থীদের আন্দোলন : পদত্যাগ করলেন আহছানউল্লাহর ভিসি

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে অবশেষে পদত্যাগ করেছেন আহছানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. কাজী শরিফুল আলম। তার বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতাসহ একাধিক অভিযোগে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিলেনি এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। 

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) রাতে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে এক নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এছাড়া পরবর্তী উপাচার্য নিয়োগ না দেয়া পর্যন্ত এ পদে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে অধ্যাপক মো. আমানউল্লাহ দায়িত্ব পালন করবেন। তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কোষাধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব পালন করতেন।

জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিতে পদত্যাগপত্র জমা দেন উপাচার্য।

তবে শিক্ষার্থীরা বলছেন, শুধু উপাচার্য পদত্যাগ করলেই হবে না। তাদের বাকি দাবিগুলোর বিষয়ে আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে তাদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বসতে হবে। অন্যথায় তারা আরও কঠোর আন্দোলনে যাবেন। এছাড়া শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদী বিভিন্ন কর্মসূচিও চলবে।

এর আগে, গত সোমবার থেকে আহছানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন করেন। শিক্ষার্থীরা বলেন, দাবি পূরণ না হলে ২ নভেম্বর (শনিবার) ভর্তি পরীক্ষা হতে দেয়া হবে না। এছাড়া একাডেমি ও প্রশাসনিক সব কার্যক্রমও বন্ধ থাকবে।

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- ভিসির জন্য যে ১০ জন সিনিয়র ফ্যাকাল্টিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে দিতে হয়েছিল তাদের ফিরিয়ে আনতে হবে। সেমিস্টার ফি বাবদ যে অর্থ আদায় করা হচ্ছে তা কী খাতে ব্যয় হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে তা জানাতে হবে। ক্লিয়ারেন্সে টাকা দেয়ার নতুন নিয়ম বাতিল ও ক্যারি ক্লিয়ারেন্সে সর্বোচ্চ সিজিপিএ ৩ করতে হবে। ইউনিভার্সিটিতে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন গঠনে সম্মতি দিতে হবে। সেমিস্টারে এস্টাবলিস্টমেন্ট এবং ডেভেলপমেন্ট ফি নেয়া হলেও তার সব সুবিধা দেয়া হয় না, এ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। ল্যাব সুবিধা, ক্লাসরুম উন্নয়ন, ওয়াশরুম সংস্কার, নিরাপত্তার জোরদার, ক্যান্টিনের খাবার ও পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত, যাতায়াত ব্যবস্থা ও গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি অরাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন গঠনের অনুমতি দিতে হবে, যেখানে বর্তমান শিক্ষার্থীরা প্রতিনিধিত্ব করবে। নতুন করে একাডেমিক ক্যালেন্ডার বর্তমান সেমিস্টার রুটিনের আদলেই তৈরি করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে হবে। ক্যাম্পাসে সাংস্কৃতিক ও প্রগতিশীল কর্মকাণ্ড সহজ ও সাবলীল করার লক্ষ্যে র‌্যাগ ফেস্টসহ সব ধরনের সাংস্কৃতিক আয়োজন ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করতে হবে।

এইচএম/টিএফ

আরও পড়ুন