• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮
প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২১, ০১:৩৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ১০, ২০২১, ০৫:৫৩ পিএম

কানে যাচ্ছে নুহাশের ‍‍‘মুভিং বাংলাদেশ‍‍’

কানে যাচ্ছে নুহাশের ‍‍‘মুভিং বাংলাদেশ‍‍’

ফ্রান্সের কান চলচ্চিত্র উৎসবে আমন্ত্রণ পেয়েছে আরও একটি বাংলাদেশের ছবি। মার্শে দ্যু ফিল্ম উৎসবে বাণিজ্যিক শাখায় আমন্ত্রণ পেয়েছে নুহাশ হুমায়ূনের প্রথম চলচ্চিত্র ‘মুভিং বাংলাদেশ’। আরিফুর রহমান ও বিজন ইমতিয়াজ এই ছবির প্রযোজক। একই সঙ্গে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘গুপি বাঘা’ আমন্ত্রণ পেয়েছে ভারতীয় নির্মাতা সুমন সেন পরিচালিত ‘সলো’ ছবির জন্য উৎসবের ‘লা ফেব্রিকে’। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে প্রযোজক আরিফুর রহমান ও বিজয় ইমতিয়াজ অংশ নিচ্ছেন কানের ৭৪তম আসরে।

‘মুভিং বাংলাদেশ’ গত বছর ভারতের গোয়া ফিল্ম বাজারের কো-প্রোডাকশন মার্কেটে নির্বাচিত হয়। কো-প্রোডাকশন মার্কেটের সেরা প্রজেক্টগুলো ফিল্ম বাজার ও কানের মধ্যকার সহযোগিতার অংশ হিসেবে মার্শে দ্যু ফিল্মে আমন্ত্রণ পায়। ‘মুভিং বাংলাদেশ’ সেভাবেই আমন্ত্রিত হয়েছে। পরিচালক নুহাশ হুমায়ূন এই অর্জনে দারুণ আনন্দিত। বলছেন, ‘গত বছর ছবিটা নিয়ে আমরা গোয়া ফিল্ম বাজারে যাই। এর কো-প্রোডাকশন মার্কেটে ছবিটি দারুণ রেসপন্স করে। প্রজেক্টটা সবার কাছে ইউনিক লেগেছিল। এখান থেকে আমরা দুই কো-প্রডিউসার পাই। একটি ফ্রেঞ্চ, অপরটি তাইওয়ান। এটা খুব ভালো খবর, আমার প্রথম ফিল্ম ‘মুভিং বাংলাদেশ’ ইন্টারন্যাশনাল কো-প্রোডাকশন মার্কেটে আমন্ত্রণ পেয়েছে। ইটস হিউজ।’

কানের মার্শে দ্যু ফিল্মে বাংলাদেশের যেসব ছবি আগে অংশ নিয়েছে সেগুলো ছিল প্রেক্ষাগৃহ ভাড়া করে দেখানো প্রদর্শনী। এবারই প্রথম বাংলাদেশের কোনো ছবি মার্শে দ্যু ফিল্মের কো-প্রোডাকশন ডের আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণ পেল।

‘মুভিং বাংলাদেশ’-এর গল্প, ঢাকা শহরের তরুণ একজন উদ্যোক্তাকে কেন্দ্র করে। অ্যাপ তৈরি করে পরিবহনের ধরন বদলে দেয় সে। পাঠাও-এর গল্পে অনুপ্রাণিত হলেও প্রতিষ্ঠানটি আর্থিক বা সৃজনশীল কোনোভাবেই ছবিটির সঙ্গে যুক্ত নয়।

একই সঙ্গে, কানের লা ফেব্রিকে প্রযোজক হিসেবে আমন্ত্রণ পেয়ে আনন্দিত প্রযোজক আরিফুর রহমান। বলছেন, ‘ গুপি-বাঘা প্রোডাকশন থেকে আমরা অনেকগুলো ছবি কো প্রোডাকশন করছি। ২০১৭ সাল থেকে আমরা কাজ করছিলাম ভারতীয় পরিচালক সুমন সেনের সঙ্গে। তার প্রথম ছবি ‘সলো’ প্রডিউস করছি আমরা। এই ছবিটা বাংলাদেশ, ভারত ও ফ্রান্সের কো-প্রোডাকশন হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে কানে। সারা বিশ্ব থেকে ১০টি ছবি আমন্ত্রণ পেয়েছে এই বিভাগে। তাতে বাংলাদেশের আমন্ত্রণ পাওয়া নিঃসন্দেহে গর্বের।’

এবারের কান উৎসবের আঁ সাখতাঁ খগার্দ (আ সার্টেন রিগার্ড) বিভাগে আছে বাংলাদেশের আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ পরিচালিত ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ ছবিটি। কান উৎসবের অফিশিয়াল সিলেকশনে এটিই বাংলাদেশের প্রথম ছবি।