• ঢাকা
  • বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮
প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২১, ০৪:৩৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২৩, ২০২১, ১০:৩৬ এএম

বিরক্ত শিল্পী সমিতি

পরীমণির ফ্ল্যাটে থরে থরে সাজানো মদ

পরীমণির ফ্ল্যাটে থরে থরে সাজানো মদ
প্রতীকী ছবি

দেশের আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। তিনি চলচ্চিত্র শিল্পীদের নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির একজন সদস্য। তবে সংগঠনটিতে এই অভিনেত্রী তার আস্থার জায়গাটুকু হারিয়ে ফেলেছেন। তার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের দেয়া বক্তব্যের পর এমনই আলোচনা ঢালিউডের অন্দরে।

পরীমনির একাধিক সিনেমার নায়িক জায়েদ খান। এমনকী, ২০১৫ সালে জায়েদের ছবিতেই অভিষেক হয়েছিল পরীমনির। কিন্তু সহকর্মীর বর্তমান বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ শিল্পী সমিতির সকল নেতারাই। তাদের প্রতিনিধি হিসেবে জায়েদ খান সম্প্রতি জানিয়ে দিয়েছেন, পরীমনির ব্যক্তিগত কোনো অপরাধের দায়ভার শিল্পী সমিতি কখনোই নেবে না।

গত ১৩ জুন বনানীতে নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে পরীমনি অভিযোগ করেন, তুহিন সিদ্দিকী অমি নামে এক আদম ব্যবসায়ীর সহযোগিতায় নাসির উদ্দিন মাহমুদ নামে আরেক ব্যবসায়ী তাকে যৌন হেনস্তা ও মারধর করেছেন। গত ৯ জুন সাভারের বোট ক্লাবে ঘটে এই ঘটনা। এই ঘটনায় মামলা হয়েছে। ব্যবসায়ী নাসির ও অমি গ্রেপ্তারও হয়েছেন। তারা এখন রিমাণ্ডে রয়েছেন।

কিন্তু বের হয়ে পড়ছে থলের বিড়াল। পরীমনির অভিযোগগুলো একে একে মিথ্যা প্রমাণিত হচ্ছে। প্রকাশ হয়ে পড়ছে তার বেপরোয়া চলাফেরার নানা ঘটনা। সম্প্রতি গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাব কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করে, গত ৮ জুন রাতে পরীমনি তাদের ক্লাবে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। পরে আবার ট্রিপল নাইনে ফোন দিয়ে পুলিশ ডেকে ক্লাবের কর্মীদের ওপরেই দোষ চাপান। সেই রাতের ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজও ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এছাড়া বনানীর একটি ক্লাবেও তিনি ভাঙচুর করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এরপর বোট ক্লাবে গিয়ে পরীমনির মদপানের একটি ভিডিও-ও মঙ্গলবার ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক মাধ্যমে। ওই ভিডিওতে পরীমনিকে চেয়ারে বসে স্বাভাবিকভাবেই মদপান করতে দেখা যায়। অথচ সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, তাকে নাকি জোর করে মদপান করানো হয়েছিল। এছাড়া অতো রাতে তিনি কেন বোট ক্লাবে গিয়েছিলেন, তারও কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

এতসব কর্মকাণ্ডে নাখোশ শিল্পী সমিতির নেতারা। তার প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার জায়েদ খান গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, পরীমনি একজন শিল্পী, তাই তার পাশে শিল্পী সমিতি ছিল, আছে, থাকবে। কিন্তু তার ব্যক্তিগত অপরাধের দায় নেবে না সংগঠন। শিল্পীদের বিপদে পাশে থাকাই শিল্পী সমিতির কাজ। কিন্তু কেউ যদি কোনো অপরাধ করে থাকেন, তবে তার দায় তাকেই নিতে হবে।

গুলশান ও বনানীতে ক্লাব ভাঙচুরের অভিযোগের বিষয়ে জায়েদ খান বলেন, এ ঘটনার দায় পরীমনির একান্ত নিজের। আমরা এটাকে তার ব্যক্তিগত বিষয় হিসেবেই দেখছি। এতে আমাদের কিছু করার নেই। কারণ সে যা করেছে, তা আমাদের পেশার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয়। এ বিষয়ে আমাদের অবস্থান একেবারে পরিষ্কার। আমরা এমন অপরাধ সমর্থন করি না। তাই শিল্পী হলেও তার অপরাধের দায় আমরা নেবো না।

এর আগে শিল্পী সমিতির সভাপতি ও খল অভিনেতা মিশা সওদাগর গভীর রাতে পরীমনির বোট ক্লাবে যাওয়ার সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, পরীমনি অতো রাতে বোট ক্লাবে না গেলেও পারত। শুনেছি সিনেমা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়েছিল। কিন্তু ও যে লেভেলের নায়িকা, সিনেমার কথা বলতে হলে প্রযোজককে ওর কাছে আসতে হবে। ওর বাসায় গিয়ে সিনেমা সাইন করাতে হবে। পরীমনির তাদের কাছে যাওয়া উচিত হয়নি।

তবে শুধু ক্লাবে ভাঙচুর নয়, বনানীতে পরীমনি যে ফ্ল্যাটে থাকেন, তার ভেতরের চিত্র দেখেও অবাক হয়েছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকলেই। পরীমনির ফ্ল্যাটের একটি কক্ষে তাকে সাজানো দেশি-বিদেশি ব্র্যান্ডের মদ এবং মদের বোতল। ঘর তো নয়, যেন আস্ত একটা বার। সেখানে সাজানো মদ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। জানতে চেয়েছেন, রুমের ভেতরে এভাবে মদ রাখার লাইসেন্স নায়িকার আছে কি না। যদিও এ বিষয় নিয়ে পরীমনি বা শিল্পী সমিতি কোনো মন্তব্য করেননি।

জাগরণ/এসকে