• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯
প্রকাশিত: জুন ৩০, ২০২১, ০৭:৩৮ এএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, ১২:৪৯ এএম

টিকা বাণিজ্যে চীনের চালবাজি

টিকা বাণিজ্যে চীনের চালবাজি
প্রতীকী ছবি

করোনা প্রতিরোধে চীনের সিনোফার্মের দেড় কোটি ডোজ কেনার কথা হয় বাংলাদেশের। সম্প্রতি মন্ত্রিপরিষদের ভ্যাকসিন ক্রয় কমিটি চীনের এই ভ্যাকসিন কেনার অনুমোদন দিয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে চীনা ভ্যাকসিন কেনার বিষয়টি অনুমোদন দেয়। প্রস্তাবিত চুক্তি অনুযায়ী, বাংলাদেশকে প্রতি চালানে ৫০ লাখ করে তিন ধাপে দেড় কোটি ডোজ টিকা দেয়ার কথা হয় চীনের সঙ্গে। এই টিকার ডোজপ্রতি যে দাম ধরা হয়েছিল তা যেন বাংলাদেশের কাছ থেকে টিকার চাহিদাপত্র পাওয়ার পর বাণিজ্যিক স্বার্থে টিকার দাম কোনোভাবে প্রকাশ করা না হয়, সেটিও বলে দেয় চীন। 

চলতি বছরের ১২ জুন, বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর দুটি বিমান চীন থেকে উপহার হিসাবে ছয় লাখ সিনোফার্ম কভিড-১৯ ভ্যাকসিন আনতে বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিল। এক মাস আগে, চীন থেকে বাংলাদেশ পাঁচ লাখ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন উপহার হিসেবে পেয়েছিল। তবে, চীন থেকে আসা তথাকথিত এই "উপহারগুলি" পরিবহণের শর্তাদি এবং আরও গুরুত্বপূর্ণ হলো এর উচ্চমূল্য সত্যিকার অর্থেই ভাববার বিষয়ে পরিণত হয়। 

অনুরূপভাবে, প্রথমে শ্রীলঙ্কায় এবং এখন নেপালে সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের ক্রয়মূল্য প্রকাশের বিষয়টি সামনে আসার পর সমস্ত যায়গায় এক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে যে, চীন দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে বিভিন্ন মূল্যে এই ভ্যাকসিন বিক্রি করছে। 

ভারতও সিরাম ইনস্টিটিউট বা এসআইআই (SII) উৎপাদিত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়-অ্যাস্ট্রাজেনেকা কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন তার প্রতিবেশী বন্ধুদের যেমন- বাংলাদেশ, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কায় সরবরাহ করেছিল। দুর্ভাগ্যক্রমে, ভারতে কোভিডের মারাত্মক দ্বিতীয় ঢেউ, দেশীয় চাহিদা এবং এর মারাত্মক ঘাটতি বিবেচনা ভারতের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন কূটনীতি- 'ভ্যাকসিন মৈত্রী'- এর সরবরাহ বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছিল। ভারতে উৎপাদিত ভ্যাকসিনগুলি দেশের নিজস্ব চাহিদা মেটাতে "পুনঃপ্রেরণ" করতে হয়েছিল এবং রফতানি পুনরায় চালু করার কোনও তাৎক্ষণিক পরিকল্পনা তাদের ছিল না। এমনই বাজে পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কাকে চাইনিজ ভ্যাকসিনের দ্বারস্থ হতে হয়েছিল। পরবর্তীতে, বাংলাদেশের ড্রাগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা গত এপ্রিলে সিনোফফার্ম ভ্যাকসিনের জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দেয়।

এরই মধ্যে ভারতের সঙ্কটের সুযোগ নিয়ে চীন তার স্বদেশে তৈরি ভ্যাকসিনগুলি -সিনোফার্ম এবং সিনোভ্যাক সরবরাহ করে নয়াদিল্লিতে পা রাখে। এদিকে মে মাসের শেষের মধ্যে বাংলাদেশ সরকার চীন থেকে ১৫ মিলিয়ন কোভিড-১৯  ভ্যাকসিন ডোজ কেনার অনুমোদন দেয় এবং সিনোফার্ম শট কেনার জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। চীনের পক্ষ থেকে এমন একটি শর্ত ছিল যে, বাংলাদেশ ভ্যাকসিন ডোজের দাম বা পরিমাণ প্রকাশ করতে পারবে না। কিন্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন অতিরিক্ত সচিব শাহিদা আক্তার গণমাধ্যমকে সে তথ্য তুলে ধরে বলেন, চীনের সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রতিটি ডোজের দাম পড়বে ১০ ডলার। ভ্যাকসিনের এই দামের প্রকাশ পরিস্থিতিকে কিছুটা জটিল করে তোলে। অনুরূপভাবে, প্রথমে শ্রীলঙ্কায় এবং এখন নেপালে সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের ক্রয়মূল্য প্রকাশের বিষয়টি সামনে আসার পর সমস্ত যায়গায় এক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে যে, চীন দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে বিভিন্ন মূল্যে এই ভ্যাকসিন বিক্রি করছে। 

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনটি ভারত থেকে ডোজ প্রতি ৫ ডলারে সংগ্রহ করে করোনোভাইরাসের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ তার টিকা কার্যক্রম শুরু করেছিল। পরিস্থিতি যেমন দাঁড়াচ্ছে, চাইনিজ ভ্যাকসিনটি  যে দাম হাঁকাচ্ছে তা ইন্ডিয়ার সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে বাংলাদেশের কেনা টিকার দামের দ্বিগুণ। একইভাবে, শ্রীলঙ্কা অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের একটি ডোজ ৫.৫০ ডলারে কিনেছে বলে জানা গেছে- যা বাংলাদেশকে বেইজিংয়ের দেয়া প্রস্তাবের  প্রায় তিন ভাগের এক ভাগ। (অঘোষিত মূল্যে বাংলাদেশকে চাইনিজ কোভিড -১৯  ভ্যাকসিন কিনবে হবে - Livemint,১৩ জুন ২০২১)।

নেপালের জন্য এই চুক্তিটি আরও ব্যয়বহুল। নেপালি মিডিয়া একজন মন্ত্রীর প্রতিবেদনে জানিয়েছে যে, চীনা ভ্যাকসিনের দুটি মাত্রার জন্য প্রায় ২০ ডলার ব্যয় হতে পারে। নেপালের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক আধিকারিকের মতে, যেখানে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে ৪ ডলারে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের জন্য চুক্তি হয়েছিল, সেই তুলনায় নেপালের জন্য দুই ডোজের দাম ২০ ডলার হবে যা খুবই ব্যয়সাধ্য ব্যাপার। নেপালি মিডিয়া প্রকাশিত নেপালের বিদেশ বিষয়ক মন্ত্রকের ফাঁস হওয়া একটি দলিল অনুসারে, চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ি নেপালী পক্ষের প্রদীপ কুমার জ্ঞাওয়ালিকে সিনিফর্মের ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিশ্চিত না করেই গ্রহণ করার জন্য ব্যাপক চাপ প্রয়োগ করেছিলেন। চীনা পক্ষ থেকে নেপালকে তাদের ভ্যাকসিনের পূর্ণাঙ্গ বিবরণ এখনও প্রকাশ করেনি বলে জানা যায়।

দামের বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ায় এখন চীন সরকার ঢাকাকে নিয়ে বিরক্ত বলে মনে হচ্ছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে দেশের পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিংয়ের সাথে বৈঠক করেন এবং দাম প্রকাশের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনের মতে, বাংলাদেশকে "ভ্যাকসিন ইস্যুতে চীনের সাথে কোনোরকমে যাত্রা শুরু করতে হয়েছিল", কারণ চীনারা "দাম প্রকাশে ইচ্ছুক নন"। চীনের সাথে দু'দেশের সরকারের মধ্যে ভ্যাকসিনের ১৫০ মিলিয়ন ডলারের যে চুক্তি হয়েছিলো সেখানে সেই ভ্যাকসিনের ঢাকায় 'সরবরাহে'র ব্যাপারটি চুক্তিভুক্ত ছিল না। পরবর্তীতে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর একটি সি-১৩০ জে পরিবহণ বিমানের সাহায্যে চীনের অনুদানের কভিড-১৯ ভ্যাকসিন এবং এডি সিরিঞ্জ আনতে হয়।

তাহলে এবার ভারত থেকে ভ্যাকসিন সরবরাহের সাথে তুলনা করুন। ২০ জানুয়ারী ২০২১, ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট কর্তৃক স্থানীয়ভাবে তৈরিকৃত কোভিশিল্ড ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন উপহার হিসাবে ভারত থেকে একটি বিশেষ বিমান শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেছিল। গত বছর ঢাকা সফরকালে বিদেশ সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা জোর দিয়েছিলেন যে, বাংলাদেশ ভারতে তৈরি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের অগ্রাধিকার প্রাপ্ত হবে। গত মার্চ মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকালে ভারত অ্যাস্ট্রাজেনেকা করোনভাইরাস ভ্যাকসিনের অতিরিক্ত ১.২ মিলিয়ন ডোজ বিনামূল্যে উপহার হিসেবে পাঠিয়েছিল। ভারত পুনে-ভিত্তিক এসআইআইয়ের সাথে ৩০ মিলিয়ন টিকার ডোজের বাণিজ্যিক চুক্তিও করেছিল। ২১ শে ফেব্রুয়ারি বাণিজ্যিক চালানের অংশ হিসাবে ২০ মিলিয়ন ডোজ পাঠানোও হয়েছিল। গত ২ এপ্রিল ভারতের সর্বশেষ চালানটি ছিল এক লক্ষ ডোজের অনুদান যখন মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ ভারতে আঘাত হেনেছে। সেই কারণে তাদের নিজস্ব চাহিদা বেড়ে যায় এবং ভ্যাকসিনের সরবরাহও বাধাগ্রস্ত হয়। 

এর আগে চীন পরামর্শ দিয়েছিল বাংলাদেশ যদি চাইনিজ সংস্থাগুলির তৈরি ভ্যাকসিন চায়, তাহলে  তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের ব্যয়ভার বাংলাদেশকে ভাগাভাগি করা উচিত। ঢাকা যখন এই পরামর্শ প্রত্যাখ্যান করে তখন  চীনা সংস্থা জানায় যে বাংলাদেশ ব্যয় ভাগাভাগি না করার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হতে পারে না; কারণ সিনোভাক যেসব দেশগুলিতে টিকা সরবরাহের অগ্রদূত হিসাবে ক্লিনিকাল ট্রায়াল হিসেবে পরিচালিত হয়েছিল, তাদের জন্য একই শর্ত রেখেছিল। এরপরে ঢাকা ভারতের দিকে ঝুঁকে এবং দ্রুততার সাথে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সিরামের সাথে একটি চুক্তি করে।

চীনের ভ্যাকসিন এখন বিতর্কের জালে আটকে পড়েছে। চীন থেকে আসা কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলো বিভিন্ন মহলের অভিযোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে- 'সেগুলি যথেষ্ট কার্যকর নয়'। এপ্রিলে বিতর্কটি আরও জোরদার করে তুলেছিল যখন ১১ ই এপ্রিল কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সম্পর্কিত চেঙ্গদু সম্মেলনে চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-এর প্রধান জর্জ গৈ বলেছিলেন, “বর্তমান টিকাগুলোর যে উচ্চ সুরক্ষা ক্ষমতা যথেষ্ট নেই, আমরা এই সমস্যার সমাধান করব।" বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিন সংকট নিরসনে এই বছর মে মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক সিনোফার্ম ভ্যাকসিনকে জরুরি অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। চীনা ভ্যাকসিনকে স্বীকৃতি দেয়ার পেছনের ধারণাটি ছিল বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিনের বৈষম্যের বিষয়টি বিবেচনা করা, যেহেতু উন্নত বিশ্ব ভ্যাকসিনগুলিকে বিশ্বকে সরবরাহের ক্ষেত্রে কোণঠাসা করে রেখেছে। চীনের বিদ্যমান ভ্যাকসিনগুলির তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালগুলি অপ্রকাশিতই রয়েছে। বেসরকারী সংস্থা সিনোভাকের তৈরি টিকাটির (করোনাভ্যাক) প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের তথ্য প্রকাশিত হয়েছে যেখানে এন্টিবডির একটি সীমাবদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। অন্যদিকে রাষ্ট্রায়ত্ত সিনোফার্ম কেবল বলেছে যে, এর দুটি ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা অন্তর্বর্তীকালীন ফলাফলে ৭৯.৪ শতাংশ এবং ৭২.৫ শতাংশ রয়েছে । এদিকে বাহরাইন তার নাগরিক এবং প্রবাসীদের সিনোভাকের তৃতীয় "বুস্টার ডোজ" গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে। কারণ টিকা গ্রহীতাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাতে প্রথম এবং দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োজনীয় পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি করতে পারেনি। 

সারা বাংলাদেশে ওয়ার্কসাইটে কোভিড সংক্রমণের কারণে বিপুল সংখ্যক চীনা শ্রমিক অসুস্থ হওয়ার খবর রয়েছে। সূত্র মতে জানা যায়, বেশিরভাগ চীনা শ্রমিক বাংলাদেশে আসার আগেই চীনে তাদেরকে কোভিড-১৯ এর টিকা দেয়া হয়েছিল। সুতরাং, এটি বাংলাদেশের ভ্যাকসিন নীতিমালায় একটি বড় প্রশ্ন চিহ্ন ফেলেছে। আমরা কি গলাকাটা দাম দিয়ে নিম্নমানের টিকাগুলি কিনছি মানুষের জীবন ও জীবিকার ঝুঁকি নিয়ে? যেহেতু চীনা ভ্যাকসিনগুলি সর্বজনীনভাবে স্বীকৃত নয়, বিশেষত মধ্য প্রাচ্যে, যেখানে আমাদের প্রবাসী জনগণ- যারা এই দেশের জন্য মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করে চলেছে তারা চীনা ভ্যাকসিনের টিকা দেয়ার পরে সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশে ভ্রমণ করার অনুমতি পাবে না।

..............‘’..............

তাহলে, ভারতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক, কোয়েডের (QUAD) প্রতি সহানুভূতিশীল দৃষ্টিভঙ্গি এবং ঘটনাক্রমে চীনের ভ্রান্ত ভ্যাকসিন দামের কাঠামোটি উন্মোচনের জন্যই কি বাংলাদেশকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে!

..............‘’..............

দক্ষিন এশিয়ার দেশগুলিকে আরও মনে রাখা উচিত যে চীনের ভ্যাকসিনগুলির কার্যকারিতা ছাড়াও, মূল্য নির্ধারণ এবং বিতরণ ব্যবস্থায় সমস্যা বা ফাঁকি রয়েছে। তুরস্ক এবং ইন্দোনেশিয়া চীনা ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের মধ্যে অন্যতম। চীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে যে তারা কৌশলে পাকিস্তানকে এড়িয়ে চলেছে এবং ইচ্ছাকৃতভাবে তাদেরকে “অপেক্ষার তালিকায়” রেখেছিল যেহেতু যে দেশগুলি "হাত নীচে" দিতে পারে সেগুলি রয়েছে এবং পাকিস্তানের অর্থনৈতিক দুর্দশার কারণে তারা অর্থ পরিশোধ করতে পারবে না- পাকিস্তানকে অপেক্ষায় রাখার এটাও একটি কারণ। আবার চীন সরকার বিদেশে নতুন নতুন অনেক প্রতিশ্রুতি দেয় এবং সেই অনুযায়ী চীনা উৎপাদন বিদ্যমান প্রতিশ্রুতিগুলি পূরণ করতে পারে কিনা- তা নিয়ে অনেক পর্যবেক্ষক প্রশ্ন তুলছেন। এমনকি ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সম্প্রতি ডিক্যাব (কূটনৈতিক প্রতিবেদক সমিতি) বাংলাদেশের সামনে ভ্যাকসিনের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি নিয়ে কৌতুক করেছেন যে, চীন অন্যান্য প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যস্ত এবং বাংলাদেশ ভ্যাকসিন সরবরাহের তালিকায় শেষের সারিতে রয়েছে এবং ডিসেম্বরের আগে কোনো সরবরাহই তাদের কাছ থেকে প্রত্যাশা করা যাবে না।

৬০টিরও বেশি দেশ চীনা ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছে। তবে উৎপাদন এবং কার্যকারিতার ঘাটতির ক্ষেত্রে স্বল্প আয়ের দেশগুলির জন্য মহামারীর দৃশ্যপটকে আরও অন্ধকার করতে পারে। চীনা সংস্থা সিনোফার্মের প্রস্তাবিত সরবরাহের তারিখ এবং অন্যান্য বিবরণীসহ একটি অপ্রকাশিত চুক্তির অধীনে ভ্যাকসিন কেনার তোড়জোড় চীন থেকে দক্ষিণ এশিয়ার সমস্ত দেশে ভ্যাকসিন সংগ্রহের ব্যাপারে উদ্বেগ জাগিয়ে তুলেছে। চীনা ভ্যাকসিনের "আন্ডার-প্রাইসিং" এর জন্য বাংলাদেশকে কি অতিরিক্ত কোনো কিছু পূরণ করতে হয়েছিল?

বাংলাদেশের জন্য চীনা ভ্যাকসিনের নির্ধারিত ডেলিভারির তারিখ এবং পরিবহন সুবিধা ছাড়াই সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের চুক্তি এই চিন্তার উদ্রেক করে যে, দেশটি বিশেষত 'চীন' দ্বারা নির্ধারণ করা হচ্ছে কিনা? তাহলে, ভারতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক, কোয়েডের (QUAD) প্রতি সহানুভূতিশীল দৃষ্টিভঙ্গি এবং ঘটনাক্রমে চীনের ভ্রান্ত ভ্যাকসিন দামের কাঠামোটি উন্মোচনের জন্যই কি বাংলাদেশকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে!

 

জাগরণ/এসকেএইচ