• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯
প্রকাশিত: মার্চ ২১, ২০২২, ১২:৪২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ২১, ২০২২, ০৬:৪২ এএম

রায়পুরার মানবপাচারকারীর অন্যতম হোতা গ্রেপ্তার

রায়পুরার মানবপাচারকারীর অন্যতম হোতা গ্রেপ্তার

ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবে নরসিংদীর ১৫ যুবক নিখোঁজের ঘটনায় মানব পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা নরসিংদীর রায়পুরার তারেক মোল্লা নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। 

রবিবার (২০মার্চ) তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ বাগেরহাট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। এই ঘটনায় এ পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত তারেক মোল্লা (৩২) নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামের বাচ্চু মোল্লার ছেলে। রায়পুরা থেকে ইতালী পাঠানোর চক্রের মূলহোতা হচ্ছে এই তারেক মোল্লা।

জানা যায়, চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি এই চক্রের খপ্পরে পড়ে লিবিয়া থেকে নৌকাযোগে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি যাচ্ছিলেন অভিবাসন প্রত্যাশী ৩৫ বাংলাদেশি। ইতালি পৌঁছার ঘণ্টাখানেক আগে মাল্টা সীমানার জলরাশিতে অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই নৌকাটি উল্টে গেলে সবাই ডুবে যান। এসময় প্রচন্ড ঠান্ডায় ১১ ঘণ্টা ভেসে থাকার পর কোস্টগার্ডের সদস্যরা জীবিত সাতজনকে উদ্ধার করেন। তবে তীরে পৌঁছার আগেই ঠান্ডা জমে একজনের মৃত্যু হয়। ভূমধ্যসাগরে এখনও নিখোঁজ আছেন ২৮ জন, তাদের মধ্যে ১৫ জনই হল নরসিংদীর। বেঁচে ফিরে আসা রায়পুরার এক যুবক পুলিশের নিকট মানব পাঁচারের ঘটনার বর্ণনা করেন। 

স্বজনদের অভিযোগ, লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের মূলহোতা মনির শিকদার ও বাংলাদেশে তার সহযোগী প্রধান স্থানীয় এজেন্ট হিসেবে তারেকের কারণেই ১৫ যুবকের এই করুণ পরিণতি হয়েছে।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান জানান, ইতালী যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগওে নৌকা ডুবির ঘটনায় নরসিংদীর ১৫ যুবক নিখোঁজের বিষয়ে রায়পুরা থেকে একটি মানবপাচার আইনে মামলা হয়েছে। এই মামলায় কিছুদিন পূর্বে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু তারেক পাঠান নামে অন্যতম হোতা গা ঢাকা দিতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। বিভিন্ন তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে বাগেরহাট থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

জাগরণ/আরকে