• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর, ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯
প্রকাশিত: এপ্রিল ৮, ২০২২, ০১:১২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ৮, ২০২২, ০৭:১২ এএম

আইএফআইসিতে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

আইএফআইসিতে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

নরসিংদী জেলার ঘোড়াশাল শাখার আইএফআইসি ব্যাংকের গ্রাহকের পৌনে দুই লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া উঠেছে। 

এ ঘটনায় দুই কর্মকর্তার যোগসাজশের অভিযোগ এনে বুধবার (৬ এপ্রিল) রাতে দুই ভুক্তভোগী গ্রাহক ব্যাংকটির শাখা ব্যবস্থাপকসহ তিনজনের নামে পলাশ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বুধবার দুপুরে জালিয়াতির মাধ্যমে ওই দুই গ্রাহকের ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্তরা হলো- আইএফআইসি ব্যাংকের ঘোড়াশাল শাখার ব্যবস্থাপক আমান উল্লাহ খান ও কাস্টমার সার্ভিস ম্যানেজার সোমা সাহা এবং কথিত হেড অফিসের কর্মকর্তা অজ্ঞাতনামা একজন। ভুক্তভোগী দুই গ্রাহক হলো- ঘোড়াশালের ঠিকাদার জিয়াউল হক ও মুদি ব্যবসায়ী দেবল চন্দ্র মিত্র।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে আইএফআইসি ব্যাংকের ঘোড়াশাল শাখার কাস্টমার সার্ভিস ম্যানেজার সোমা সাহা, শাখা ব্যবস্থাপক আমান উল্লাহ খানের মুঠোফোন নম্বর থেকে জিয়াউল হক ও দেবল চন্দ্র মিত্রকে কল দেন। এ সময় সোমা সাহা তাদের জানান, আপনার অ্যাকাউন্টের এটিএম কার্ড নিয়ে সমস্যা হয়েছে, এ বিষয়ে হেড অফিসের এক কর্মকর্তাকে কিছু তথ্য দিতে হবে। এর পরপরই এক ব্যক্তি তাদের মুঠোফোন নম্বরে কল করে হেড অফিসের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে তাদের এটিএম কার্ডের গোপন তথ্য জানতে চান। গোপন তথ্য দেওয়ার কিছুক্ষণ পরই ওই দুই গ্রাহকের ব্যাংক হিসাব থেকে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা উত্তোলনে দেখানো হয়।

এতে আরও বলা হয়, টাকা উঠিয়ে নেওয়ার পরপরই ওই ব্যাংকের শাখায় গিয়ে যোগাযোগ করেন ভুক্তভোগী দুই গ্রাহক। কিন্তু এ বিষয়ে শাখা ব্যবস্থাপক তাদের কোনো সমাধান দিতে পারেননি। তিনি শুধু জানান, প্রতারক চক্র তাদের ব্যাংক হিসাব থেকে টাকা তুলে নিয়ে গেছে। ব্যাংক কর্মকর্তার পরামর্শেই কথিত ওই হেড অফিসের কর্মকর্তাকে তথ্য দেওয়া হলেও তাদের কাছ থেকে কোনো সমাধান না পেয়ে পরে তারা আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হন।

ভুক্তভোগী জিয়াউল হক জানান, বুধবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে সোমা সাহা ব্যাংকটির শাখা ব্যবস্থাপকের ফোন নম্বর থেকে কল দেন। এ সময় তিনি জানান, কিছুক্ষণের মধ্যে হেড অফিস থেকে আমার মোবাইলে একটি কল আসবে। এটিএম কার্ড সংক্রান্ত আপডেটের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চাওয়া হবে। একটু পরই মোবাইলে একটি নম্বর থেকে কল দিয়ে ব্যাংকটির প্রধান কার্লালয়ের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিয়ে জানতে চান, ঘোড়াশাল শাখা থেকে তথ্য আপডেটের বিষয়টি জানানো হয়েছিল কি না? তাকে এটিএম কার্ড সংক্রান্ত বেশ কিছু তথ্য দেওয়ার পরেই দেখি আইএফআইসি ব্যাংক ঘোড়াশাল শাখার এই হিসাব থেকে একাধিকবারে এক লাখ টাকা তোলা হয়েছে।

হুবহু কায়দায় প্রতারণার শিকার হয়েছেন একই ব্যাংকের আরেক গ্রাহক দেবল চন্দ্র মিত্র। তিনি জানান, বুধবার সকালে ব্যাংকটির একজন নিরাপত্তাকর্মীকে দিয়ে সোমা সাহা আমার মুঠোফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। পরে তিনি আমাকে একইভাবে কল করে এটিএম কার্ডের তথ্য আপডেটের বিষয়টি জানান। পরে আমিও সরল বিশ্বাসে ব্যাংকটির প্রধান কার্লয়ের কর্মকর্তা পরিচয় দেওয়া ওই ব্যক্তিকে সব তথ্য জানিয়ে দেই। এরপরই এই হিসাব থেকে একাধিক বারে ৭৫ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়।

এ বিষয়ে আইএফআইসি ব্যাংকের ঘোড়াশাল শাখার ব্যবস্থাপক আমান উল্লাহ খান ও কাস্টমার সার্ভিস ম্যানেজার সোমা সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এ বিষয়ে প্রধান কার্লয়ের অনুমতি ছাড়া কোনো বক্তব্য বা মন্তব্য করা সম্ভব নয় বলে জানান। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে, তারা বিষয়টি দেখছেন।

পলাশ থানার অফিসার ইনচার (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে পলাশ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

জাগরণ/আরকে