• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯
প্রকাশিত: এপ্রিল ২৪, ২০২২, ০৫:৩১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২৪, ২০২২, ১১:৩১ এএম

ধানক্ষেতে হাঁস, পিটুনিতে গৃহবধূ হাসপাতালে

ধানক্ষেতে হাঁস, পিটুনিতে গৃহবধূ হাসপাতালে

জামালপুরের মেলান্দহের পূর্ব মালঞ্চ গ্রামে ধানক্ষেতে হাঁস যাওয়াকে কেন্দ্র করে  রিনা বেগম এক গৃহবধূকে লাঠি, রড ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক পিটিয়েছে সন্ত্রাসীরা। তার স্বামী দুদু মিয়াকেও রক্তাক্ত জখম করেছে। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

রবিবার দুপুরে নির্যাতনের শিকার রিনা বেগমের ভাই রাশেদুল ইসলাম বাদী হয়ে আবু বক্করসহ পাঁচজনকে আসামি করে মেলান্দহ থানায় মামলা হয়েছে বলে জানিয়েছে মেলান্দহ থানার ওসি মাঈদুল ইসলাম।
 
হাসপাতালের বেডে ব্যথায় কাতরানো অবস্থায় দুদু মিয়া বলেন, তার সঙ্গে প্রতিবেশী আবু বক্করের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। শনিবার সন্ধ্যায় আবু বক্করের ধানক্ষেতে আমার পালিত হাঁস যায়। এই নিয়ে তর্ক বিতর্কের এক আবু বক্করের ছেলে হুোসাইন মাহমুদ গাজীসহ তার স্বজনরা রামদা, লাঠি ও রডসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। আমাকে বেদম পেটাতে শুরু করলে আমার স্ত্রী রিনা বেগম ফেরাতে গেল তাকেও মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমাদের রাত ৮টায় জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। নির্যাতনের শিকার রিনা বেগম হাসপাতালের বেডে তীব্র ব্যথার যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, আমি রোজা ছিলাম। তাদের হাতে পায়ে ধরে বলেছি, আমি ও আমার স্বামী রোজা রেখেছি। আমাদের মারবেন না। তারা কোনো কথাই না শুনেই আমাদের মারধর করেছে। 

মেলান্দহ থানার ওসি মাঈদুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় মেলান্দহ থানায় পাঁচজনের নাসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ইউএম