• ঢাকা
  • বুধবার, ২৫ মে, ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: মে ৮, ২০২২, ০৪:৫৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ৮, ২০২২, ১০:৫৫ এএম

যে কারণে দুই মেয়ে ও স্ত্রীকে হ*ত্যা, নিজেই জানালেন চিকিৎসক

যে কারণে দুই মেয়ে ও স্ত্রীকে হ*ত্যা, নিজেই জানালেন চিকিৎসক

মানিকগঞ্জে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হ*ত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত আসাদুজ্জামান রুবেলকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার সকালে ঘিওর উপজেলার পাচুরিয়া এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হত্যার কারণ জানিয়েছেন তিনি।

আটককৃত আসাদুজ্জামান রুবেল ঐ উপজেলার বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের আঙ্গারপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে। তিনি পেশায় একজন দন্ত চিকিৎসক। বানিয়াজুরি এলাকায় তার চেম্বার রয়েছে।

নিহত লাভলী আক্তার গৃহিণী। বড় মেয়ে ছোঁয়া আক্তার বানিয়াজুরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে দশম শ্রেণির এবং ছোট মেয়ে কথা আক্তার বানিয়াজুরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ১৭-১৮ বছর আগে আসাদুজ্জামান রুবেল ও সাইজুদ্দিনের মেয়ে লাভলী আক্তার ভালবেসে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই আসাদ স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে থাকতেন। প্যারামেডিকেল কোর্স শেষে দন্ত চিকিৎসায় নামেন তিনি। কিছুদিন আগে ভুল চিকিৎসার কারণে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা হয় তার। যা ঋণ করে পরিশোধ করেন আসাদ। সেই ঋণের ২০ হাজার টাকা ফেরত দিয়েছিলেন, আজ বাকি টাকা দেওয়ার কথা ছিল। এ কারণে হতাশাগ্রস্ত হয়ে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে গলা কেটে হ-ত্যার পর নিজেও আত্মহ*ত্যার চেষ্টা করেন।

ঘিওর থানার ওসি মো. রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বিপ্লব বলেন, স্ত্রী ও দুই মেয়েকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত রুবেলকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে  তিনি হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। ঋণগ্রস্ত থাকায় হতাশা থেকেই এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন চিকিৎসক আসাদ। এ ঘটনায় নিহত লাভলী আক্তারের বাবা সাইজউদ্দিন হত্যা মামলা করেছেন।

ইউএম