• ঢাকা
  • সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: আগস্ট ১, ২০১৯, ০৫:৫৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ১, ২০১৯, ০৫:৫৪ পিএম

‘১৫ আগস্ট থেকে ৯৬ পর্যন্ত বাংলাদেশকে পাকিস্তানে পরিণত করা হয়’ 

জবি প্রতিনিধি
‘১৫ আগস্ট থেকে ৯৬ পর্যন্ত বাংলাদেশকে পাকিস্তানে পরিণত করা হয়’ 
জবি উপাচার্য ড.মীজানুর রহমান

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) উপাচার্য ড.মীজানুর রহমান বলেছেন, একাত্তরের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশকে পূর্ব পাকিস্তানে পরিণত করা হয়। আর আমাদের ধর্ম নিরপেক্ষতা, সাম্য সবকিছু বন্দি করা হয় ক্যান্টমেন্টের ভেতর।

বৃহস্পতিবার (১ আগষ্ট) বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ আয়োজিত ‘জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অন্তরালে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন। 

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ড.এস এম আনোয়ারা বেগম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য ড.মীজানুর রহমান বলেন, ক্যান্টনমেন্টে আমাদের রাষ্ট্রপতি থাকতেন,আমাদের প্রধানমন্ত্রী থাকতেন। সেখান থেকেই সরকার পরিচালনা করা হত। গত পঞ্চাশ বছরে আমাদের বড় সফলতা শেখ হাসিনা সরকার ক্যান্টনমেন্ট থেকে এরশাদ ও খালেদা জিয়াকে বের করে এনেছেন। বার বার আমাদের সংবিধানের পরিবর্তন করার কারণে ৭১ সালে আমাদের যে বাংলাদেশ ছিল সেখানে এখনো আমরা ফিরে যেতে পারিনি। বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে এ ধারায় ফেরার চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধী যে চক্র তারা এখনো সক্রিয়। 

উপাচার্য বলেন, দেশীয় এই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি শুধুই দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করেনি। বাংলাদেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রে চীন ও মধ্যপ্রাচের কিছু রাষ্ট্রও ছিল। তাদের ষড়যন্ত্রেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। 

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এস. এম. আনোয়ারা বেগমের সভাপতিত্বে এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক লামিয়া ইসলামের সঞ্চালনায় সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন-  কোষাধ্যাক্ষ অধ্যাপক সেলিম ভূঁইয়া, লাইফ অ্যান্ড আর্থ সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড.কাজী সাইফুদ্দীন, ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তপন কুমার পালিত, সহকারী অধ্যাপক তারিক হোসেন খান। 

এসময় অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন- জবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. নূর মোহাম্মদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল, বিভিন্ন অনুষদের ডিনসহ, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।

বিএস