• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮
প্রকাশিত: আগস্ট ১৭, ২০২১, ০২:১২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ১৭, ২০২১, ০৮:১২ এএম

ব্যক্তি মাশরাফীকে না চেনাতেই তাকে প্রতারক মনে হয়

ব্যক্তি মাশরাফীকে না চেনাতেই তাকে প্রতারক মনে হয়

দিবাকর বিশ্বাস 

মাশরাফীকে নিয়ে এই নোংরামি কেন? কিছুদিন আগেও যারা মাশরাফীকে মাথায় তুলে রাখত, মাশরাফী অবসরে গেলে দলের কি হবে সেটা নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় ছিল এদের অনেকেই এখন মাশরাফীকে লোভী বলতেও ছাড়ছে না। নিউজ পোর্টালের কমেন্টে অনেককে মাশরাফীকে গালাগালি করতেও দেখলাম। মাশরাফী লোভী? প্রতারক? সিরিয়াসলি? মাশরাফীকে চেনেন ভাই? তার সাথে মিশেছেন? মনে হয় না। তার সাথে কিছু সময় কাটালে আপনি আপনার ঐ কমেন্টের জন্য লজ্জিত হবেন। যে লোক ফিক্সিংয়ের লোভনীয়  প্রস্তাব পায়ে ঠেলে দেয় আপনি/ আপনারা তাকে লোভী বানিয়ে দিলেন? 

মাশরাফীর দোষ কি? তিনিই -অরেঞ্জের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর। এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের অভিযোগের শেষ নেই। তারা অর্ডার করা পণ্য দিচ্ছে না। মাশরাফীর সাথে এদের চুক্তির মেয়াদ ১ জুলাইতেই শেষ। চাইলেই কি মাশরাফী দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারতেন না? তিনি তো ঐ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হোল্ডার নন। ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর।  তবু মাশরাফী কিন্ত দায়িত্ব এড়িয়ে যান  নাই। মাশরাফীর সাক্ষাৎকার দেখেছেন? তিনি স্পষ্ট বলে দিয়েছেন....ঐ প্রতিষ্ঠানের সাথে তার বর্তমানে সম্পর্ক না থাকলেও  তিনি গ্রাহকদের ন্যায্য পাওনা পাওয়ার ক্ষেত্রে শেষ পর্যন্ত তাদের পাশে থাকবেন। তবু তিনি লোভী? প্রতারক? 

একজন লোক কতোটা সৎ হলে ঐ প্রতিষ্ঠানের সাথে বর্তমানে তার সম্পৃক্ততা না থাকা সত্ত্বেও গ্রাহকদের তার বাসার সামনে যেতে বলেন। গ্রাহকদের পাওনা বুঝে পাওয়ার ক্ষেত্রে তাদের সর্বোচ্চ সাহায্য করার আশ্বাস দিতে পারেন। ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে তিনি কি দায়িত্ব এড়াতে পারেন? দেখুন জেনেশুনে বুঝে কোন তারকাই কিন্ত চাইবে না প্রতিষ্ঠানের নেতিবাচক কাজের জন্য তার ইমেজ ক্ষুণ্ণ হোক। আর মাশরাফীর যে ভাবমূর্তি তিনি তো আরও চাইবেন না। মাশরাফীর কপাল খারাপ তিনি তাই বোঝেন নাই ঐ প্রতিষ্ঠান ঐ কাজ করবে। এর জন্য তাকে লোভী বানিয়ে দিতে হবে? তিনিই কি শুধু টাকা ইনকামের জন্য ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হয়েছেন? পৃথিবীতে অন্য কোন তারকা কি কখনো ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হয় নাই? অপরাধ না করে যদি কেউ টাকা ইনকাম করেন তিনি লোভী হবেন কিভাবে?

আসল সমস্যা অন্য জায়গায়। তিনি যেহেতু এখন জাতীয় দলে নেই, মাঠে তার দেয়ার কিছু নেই। এরপর আবার তিনি একটি রাজনৈতিক দলের এমপি। আমাদের অনেকের ভালোবাসাও তাই একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর শেষ হয়ে গেছে। একজন মানুষের ধর্ম, বর্ণ, রাজনৈতিক মতাদর্শ ভিন্ন হতেই পারে৷  শুধু এর ওপর ভিত্তি করে তাকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমন করা যায়? লোভী, প্রতারক বলা যায়? 

স্যরি বস, আপনি মাশরাফীকে চেনেন নাই। তার প্রতি আপনার যেটা ছিল ঐটা ভালোবাসা নয়, গিভ এন্ড টেক রিলেশন। তাই জাতীয় দলে না থাকায় তার প্রতি ভালোবাসাও আপনার কর্পুরের মত উড়ে গেছে। আর ব্যক্তি মাশরাফীকে চেনেন না বলেই তাকে লোভী, প্রতারক মনে হয়।

সম্পাদনায়- রিয়াজুল ইসলাম শুভ