• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: মার্চ ১১, ২০২১, ০৩:২৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ২০, ২০২১, ০৯:১৬ এএম

গান সারাবে মনের অসুখ

গান সারাবে মনের অসুখ

গান শোনা, বিনোদনের একটি অন্যতম মাধ্যম। এর সঙ্গে পরিচিত কম বেশি আমরা সবাই। কাজের ফাঁকে মনোরঞ্জনের জন্য হোক কিংবা অবসরের সময় কাটাতে আমরা গান শুনে থাকি। অনেকে আবার ঘুমের আগে গান না শুনলে ভালো ঘুমও হয় না। গান শুনে একরকম প্রশান্তি পায় মন। উদাসীন মনের সঙ্গীও হতে পারে এই মাধ্যমটি।

গান শুনলে মন ভালো থাকে, এটা সবাই কম বেশি জানে। তবে এবার গবেষণায় এ বিষয়ে আরও সংযোজন দিয়েছেন গবেষকরা। তাদের মতে, গান কেবল মন ভালো রাখে না, মনকে শান্ত এবং মনের অসুখও সারাতে পারে।

এ নিয়ে বেশকিছু উপকারিতার কথাও নির্দেশ করেছেন গবেষকরা। তাদের মতে_

  • গান মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে। গবেষকরা বলছেন, বিশেষ করে পূর্ণবয়স্ক মানুষদের মস্তিস্ককে সচল রাখতে গানের গুরুত্ব অপরিসীম।
  • এক গবেষণায় উঠে এসেছে, যারা হতাশায় ভুগছেন তারা তাদের দুঃখ-কষ্ট ভুলে যেতে পারে গান শোনার মাধ্যমে। এই মানুষগুলো গান শোনার মাধ্যমে চাঙ্গা হয়ে উঠতে পারেন। কারণ, পছন্দের গান মস্তিষ্কের আবেগের কেন্দ্র হাইপোথ্যালামাস নামের অংশে আঘাত করে। তাই অনেক ডাক্তারই রোগীকে ওষুধের পরিবর্তে মিউজিক থেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা করেন।
  • উচ্চ রক্তচাপ, অনিদ্রা, বাত, সেরিব্রাল পাল‌্‌সি ও অটিজমের মতো কঠিন রোগগুলো থেকে মুক্তি পেতে মিউজিক থেরাপি দেওয়া হয়। গবেষকরা বলছেন, এতে রোগী তাড়াতাড়ি সুস্থ হন।
  • কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত গান শোনার অভ্যাস শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। আর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়লে  নানা সংক্রমণ থেকেও রক্ষা পাওয়া যায়।
  • মার্কিন গবেষকরা দাবি করছেন, গান বুদ্ধিমত্তা বিকাশে সাহায্য করে। তাদের মতে, অঙ্ক করার সময় কেউ যদি গান শোনেন তবে সেটা সঠিক হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। আবার আরেকদল গবেষক বলছেন, খাওয়ার সময় গান শুনলে বেশি খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমে যায়। ফলে ওজন বাড়ার আশঙ্কাও কমে।

 

সূত্র: বোল্ডস্কাই