• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ মে, ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ৫, ২০২১, ০৪:০১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ৬, ২০২১, ১০:১১ এএম

সকালে বেশি সময় ঘুম, অকাল মৃত্যুর কারণ

সকালে বেশি সময় ঘুম, অকাল মৃত্যুর কারণ

মানবদেহ সুস্থ রাখতে রাতে জলদি ঘুমাতে যাওয়া যেমন গুরত্বপূর্ণ, তেমনি সকালে জলদি ঘুম থেকে ওঠারও কোনো বিকল্প নেই। প্রবাদ আছে, জলদি ঘুমাতে যাওয়া ও জলদি ঘুম থেকে ওঠা সুস্বাস্থ্য, জ্ঞান ও সম্পদের পূর্বশর্ত। সম্প্রতি এই প্রবাদকেই আরও একবার সত্য প্রমাণিত করেছেন যুক্তরাজ্যের একদল গবেষক।

যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক সম্প্রতি এই বিষয়ে বিশদ গবেষণা চালিয়েছেন। গবেষণায় অংশ নিয়েছেন ৪ লাখের বেশি মানুষ। গবেষণায় তাদের দাবি, যারা দেরি করে ঘুম থেকে ওঠেন তাদের অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়।

গবেষকদের মতে, যাদের রাতে জেগে থাকার বদভ্যাস রয়েছে, তাদের ৯০ ভাগই নানা মানসিক রোগের শিকার। অন্যদিকে দেরি করে ঘুম থেকে উঠলে অকাল মৃত্যুর ঝুঁকিও বাড়ে।

গবেষণা হয় যুক্তরাজ্যের ৪ লাখ ৩৩ হাজার মানুষের ওপর। যারা নিয়মিত সকালে ওঠেন, মাঝে মাঝে সকালে ওঠেন, যারা মাঝে মাঝে রাত জাগেন এবং যারা নিয়মিত রাত জেগে থাকেন-এমন ব্যক্তিদের ওপর গবেষণা চালানো হয়। যাদের বয়স ছিল ৩৮ থেকে ৭৩ বছর। 

গবেষণার ফলাফলে দেখা যায়, যারা নিয়মিত সকালে ঘুম থেকে ওঠেন তাদের অকাল মৃত্যুর হার সবচেয়ে কম। আর যারা অনিয়মেই চলতে থাকেন তাদের এই ঝুঁকি বাড়তেই থাকে।

বিজ্ঞানীরা বলেন, “আমরা দেখেছি রাতে জেগে থাকার অভ্যাস যারা গড়ে তুলেছেন তাদের ৯০ শতাংশই মানসিক রোগের শিকার। আর ৩০ শতাংশের থাকে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি। এছাড়া স্নায়ুবিকসহ নানা রোগের ঝুঁকিও বেড়ে যায়। এছাড়া যারা দেরি করে ঘুম থেকে ওঠেন তাদের গড় আয়ু নিয়মিত ঘুমাতে যাওয়া ব্যক্তিদের তুলনায় ৬ বছর কম।”

মানবদেহের দেহঘড়ি সুস্থ রাখতে তাই নিয়ম করে ঘুম থেকে ওঠার কড়া পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা। পাশাপাশি ভালো ঘুমের জন্য় ঘুমের সময় মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ব্যবহার না করার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে।