• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৭ মে, ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৯, ২০২১, ১০:০৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ১৯, ২০২১, ০৪:২২ পিএম

হোম অফিসের কাজ বিছানায় বসে নয়

হোম অফিসের কাজ বিছানায় বসে নয়

করোনা মহামারিতে বিশ্বের প্রায় সব স্থানেই সরকারি-বেসরকারি অফিসের কার্যক্রম চলছে ঘরে বসেই। ল্যাপটপে কিংবা কম্পিউটারের সামনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাজ করতে হচ্ছে। সেক্ষেত্রে অফিসের মতোই নির্দিষ্ট জায়গায় বসে কাজ করার পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্যবিদরা।

স্বাস্থ্যবিদদের মতে, বিছানায় বসে অফিসের কাজ একদমই নয়। অফিসের মতোই চেয়ারে বসে কাজ করুন। একটানা কাজ না করে মিনিট খানেক বিরতি নিয়ে আবার কাজ শুরু করুন। কেননা বিছানায় বসে কাজ করলে কয়েকটি সমস্যা হতে পারে। কী কী সমস্যা হতে পারে তা জানবো আজকের আয়োজনে।

পিঠ-কাঁধের ব্যথা

পিঠ ও কাঁধের পেশিতে কিংবা স্নায়ুর সমস্যাও হতে পারে। ল্যাপটপ নিয়ে দীর্ঘ সময় বিছানায় থাকলে সোজা হয়ে বসতে সমস্যা হয়। এভাবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকলে তা মেরুদণ্ডে ক্ষতি করে।

ঘুম কম হয়

দীর্ঘ সময় বিছানায় বসে অফিসের কাজ করায় ঘুমের সমস্যা হয়। সারাদিন বিছানায় কাজ করছেন, রাতেও বিছানায় থাকতে শরীর সায় দেবে না। তাই ঘুমেও ব্যাঘাত ঘটে। লকডাউনে বিছানায় বসে কাজ করে অনেকেরই এমন সমস্যায় পড়েছেন।

কাজের স্পৃহা কমে যায়

যারা বিছানায় বসে অফিসের কাজ করেন, তাদের কাজের স্পৃহা কমে যায়। যে পরিমানে শ্রম আপনি দিতে পারেন অফিসে থাকলে তা একদমই সম্ভব হয় না। কাজের গতিও কমে আসে।

মানসিক চাপ বেড়ে যায়

অফিসের কাজে মানসিক চাপ থাকে। বিছানাটা আরামের জায়গা, বিশ্রামের জায়গা। সেখানে বসে কাজ করলে অফিসের মানসিক চাপ ঘুমের সময় পড়ে। তখন তা মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে।  অফিসের চাপ যদি বিছানায় বসে সামলান, সেটিও শুধু বিশ্রামের জায়গা থাকে না।

হৃদরোগ হতে পারে

একটানা সারাদিন বিছানায় কাটালে হৃদরোগের মতো ভয়াবহ রোগ দেখা দেয়। সারাক্ষণ বসে থাকা কখনোই উচিত নয়। তবে কাজের মাঝে উঠে হেটে আসার কথা অনেকেই ভুলে যান। তাই বিছানাকে কাজের জায়গা না করে বিশ্রামের জায়গা হিসাবেই রাখুন।

খাবারের অনীহা

বিছানায় বসে কাজ করলে খাবারেও অনীহা হতে পারে। চেয়ার টেবিলে ল্যাপটপ রেখে কাজ করলে পাশে শুকনো খাবার বা পানি রাখতে পারেন। বিছানায় তা নিয়ে বসা যায় না। এতে দীর্ঘ সময় পর পেট খালি থাকে। পানি শূণ্যতাও দেখা দেয়। একসময় খাবারে অনীহা দেখা যায়।