• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: মে ১, ২০২১, ০১:০৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ১, ২০২১, ০১:০৮ পিএম

সঠিক অক্সিজেনের মাত্রা কত?

সঠিক অক্সিজেনের মাত্রা কত?

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের পর সবচেয়ে মর্মান্তিক মূহুর্ত হয় যখন শ্বাসকষ্ট উঠে। বলা যায়, ওই সময় রোগীরা জীবন-মৃত্যুর মাঝে পাঞ্জা লড়েন। প্রতিটি নিশ্বাস যে কতটা অমূল্য তখনই উপলব্ধিটা হয়। ওই সময় অক্সিজেনের মাত্রা কমে যায়। প্রয়োজন হয় অক্সিজেনের। তাই তো ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির অক্সিজেনের মাত্রাটা সারাক্ষণ পর্যবেক্ষণে রাখতে হয়।

অক্সিমিটার দিয়ে অক্সিজেন পরীক্ষা করছেন অনেকে। কিন্তু অক্সিজেনের স্বাভাবিক মাত্রা কত, তা অনেকেই জানেন না। অথচ করোনা রোগীর শারীরিক জটিলতা পর্যবেক্ষণে স্বাভাবিক অক্সিজেনের মাত্রা সম্পর্কে ধারণা প্রয়োজন। 

চিকিৎসকেরা জানান, করোনায় আক্রান্তদের ফুসফুস দ্রুত দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। ফলে অক্সিজেন নেওয়ার গতিও কমে যায়।। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কত, তা মাপলেই বোঝা যাচ্ছে ফুসফুস কতটা কাজ করছে বা কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

রক্তে অক্সিজেন ঠিক কতটা আছে, তা মাপা যায়। চিকিৎসার পরিভাষায় একে বলে শরীরের ‘অক্সিজেন স্যাচুরেশন’ বা অক্সিজেনের মাত্রা।

চিকিৎসকেরা বলেন, নিশ্বাস টানার পরে ফুসফুস সেই বায়ু থেকে অক্সিজেন পাঠায় রক্তে। যা ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ে পুরো শরীরে। ফুসফুস দুর্বল হলে, শ্বাস নেওয়ার ক্ষমতাও কমে যায়। শুরু হয় শ্বাসকষ্ট। রক্তের অক্সিজেনও কমে যায়। এতে মস্তিষ্ক এবং অন্যান্য অঙ্গে কম অক্সিজেন পৌঁছোয়। এরপরই শুরু হয় শারীরিক নানা সমস্যা।

অক্সিজেনের মাত্রা তাই স্বাভাবিক রাখা প্রয়োজন। আর এই মাত্রা শুরু হয় ১০০ থেকে। তবে মাঝে মাঝে সুস্থ মানুষের ক্ষেত্রে তা ৯৭- হতে পারে। এর নিচে নামলেই সতর্ক হতে হবে। করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে অক্সিজেনের মাত্রা ৯৪-এর নিচে নেমে যাওয়াই বিপদ সংকেত। তখনই মস্তিষ্ক কাজ করা বন্ধ করে দেয়। শরীরের অনেক অঙ্গই অকেজো হয়ে যায়।

এছাড়াও একজন সাধারণ ব্যক্তির অক্সিজেনের মাত্রা কমে গেলে মাথা ঘুরতে পারে, বমি ভাব হয়। অনেকে জ্ঞানও হারিয়ে ফেলেন। সেই ক্ষেত্রে অক্সিজেনের মাত্রা ঠিক রাখতে নিয়মিত ফুসফুসের ব্যয়াম ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকেরা।