• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: জানুয়ারি ৪, ২০২২, ০৪:৪৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ৪, ২০২২, ১০:৪৯ এএম

এবার অপারেশনের ১৯ বছর পর রোগীর পেটে মিলল কাঁচি

এবার অপারেশনের ১৯ বছর পর রোগীর পেটে মিলল কাঁচি
ছবি- জাগরণ।

মেহেরপুরের গাংনীর রাজা ক্লিনিকে অপারেশনের দীর্ঘ ১৯ বছর পর রোগীর পেটে পাওয়া গেছে কাঁচির সন্ধান। গত রোববার রাজশাহীর একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে গেলে বিষয়টি ধরা পড়ে। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বাচেনা খাতুন চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার নওদা হাপানিয়া গ্রামের আব্দুল হামিদের স্ত্রী।

বাচেনা খাতুন বলেন, ১৯ বছর পূর্বে পিত্তথলির পাথর অপারেশনের জন্য ২০ হাজার টাকায় চুক্তি করেন ক্লিনিক মালিক পারভিয়াস হোসেন রাজার সাথে। একমাত্র সম্বল ১০ কাঠা জমি বিক্রি করে চুক্তিকৃত টাকা পরিশোধ করা হয় । 

অপারেশন করার পর সুস্থ হওয়ার কথা কিন্তু বাচেঁনা খাতুনের পেটের যন্ত্রণা দিনদিন বাড়তেই থাকে। পেটের ব্যথার অসহ্য যন্ত্রনায় বছরের পর বছর বিভিন্ন ডাক্তারের কাছে ছুটেছেন তিনি। খুইয়েছেন অর্থ সম্পদ সব কিছু। তবুও ভালো হয়নি।

স্থানীয়দের পরামর্শে শেষ পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজের নিউরোমেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ রেজা নাসিমের কাছে চিকিৎসা নিতে গেলে তার পরামর্শে এক্স-রে করানো হয়। এক্স-রে রিপোর্টে পেটের মধ্যে ৪/৫ ইঞ্চি’র একটি কাঁচির সন্ধান মেলে।

বাচেনা খাতুনের স্বামী আব্দুল হামিদ বলেন, তিনি শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ার কারণে তেমন কাজ-কর্ম করতে পারেন না। তবুও স্ত্রীর অসুস্থতার কথা মাথায় নিয়ে কমবেশি কাজকর্ম করে ও একমাত্র সম্বল ১০ কাটা জমি বিক্রি করে অপারেশন করানো হলেও তার স্ত্রী সুস্থ হতে পারেনি। 

নানা সময়ে স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে তিনি পথে বসেছেন। একদিকে স্ত্রীর ঔষধপত্র অন্য দিকে সংসার নিয়ে গত ১৯ বছর যাবৎ তিনি মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

রাজা ক্লিনিকের মালিক ডাক্তার পারভিয়াস হোসেন রাজা বলেন, আমি বিষয়টি এড়িয়ে যেতে পারিনা। আমিও ওই অপারেশনের সময় সহকারি হিসেবে ছিলাম। তবে মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সহযোগিতা করা হবে। 

মেহেরপুরের সিভিল সার্জন  ডাঃ জওয়াহেরুল আনাম সিদ্দিকী বলেন লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

উল্লেখ্য, সম্প্রতি পেটে কাঁচি রেখেই অপারেশন সম্পন্ন করার অভিযোগে ওঠে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনায় অপারেশনের দেড় বছর পর এক্সরের মাধ্যমে চিকিৎসকরা পেটের ভেতরে কাঁচিটি দেখতে পান। 

 

এসকেএইচ//