• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৩, ১২:০৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৩, ১২:০৫ এএম

আজ শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

আজ শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে
ছবি ● ফাইল ফটো

সোমবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সারা দেশে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ২৫ লাখ এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ১ কোটি ৯৫ লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে ভিটামিন এ-প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ-কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, দিনব্যাপী ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো কার্যক্রম চলবে। এই ক্যাপসুলের মাধ্যমে শিশুর অন্ধত্ব প্রতিরোধ ও দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধি নিশ্চিত করা হয়। সব ধরনের মৃত্যুর হার ২৪ শতাংশ কমিয়ে আনে এটি।

হাম, ডায়রিয়া এবং নিউমোনিয়ার কারণে মৃত্যুর হারও উল্লেখযোগ্য হারে কমিয়ে আনে এই ক্যাপসুল। মন্ত্রী আরও জানান, সরকার ২০১০ সাল থেকে নিয়মিতভাবে বছরে দুবার ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো চালু রেখেছে। এতে ভিটামিন এ-এর অভাবজনিত রাতকানা রোগে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা প্রায় নেই বললেই চলে। এবার ১ লাখ ২০ হাজার কেন্দ্রে কাজ করবেন ২ লাখ ৪০ হাজার স্বেচ্ছাসেবী।

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় ঔষধাগার থেকে জেলা, সিটি করপোরেশন ও মাঠপর্যায়ে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল পাঠানো হয়েছে। সরকারি ও বেসরকারি টিভি ও রেডিও এবং জাতীয় দৈনিক পত্রিকা এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার করা হচ্ছে।

বিটিআরসির সাহায্যে দেশব্যাপী সব মোবাইল অপারেটরের মধ্যমে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনের তথ্য সংবলিত খুদেবার্তা পাঠান হয়েছে। দেশের সব শিশু বিশেষজ্ঞকে (সরকারি ও বেসরকারি) তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণের জন্য এসএমএসের মাধ্যমে অবহিত করা হয়েছে।

দিনব্যাপী কর্মসূচিতে দেশের সব সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং ভ্রাম্যমাণ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। ভিটামিন-এ ক্যাপসুল খাওয়াতে শিশুদের ভরা পেটে কেন্দ্রে আনতে হবে।

ছয় মাসের কম বয়সী এবং পাঁচ বছরের বেশি বয়সী এবং অসুস্থ শিশুদের ভিটামিন-এ ক্যাপসুল খাওয়ানো যাবে না।

জাগরণ/স্বাস্থ্য/এসএসকে