• ঢাকা
  • রবিবার, ৩১ মে, ২০২০, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
প্রকাশিত: মে ৩, ২০২০, ০৪:৩২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ৩, ২০২০, ০৪:৩২ পিএম

দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দিল জহিরুল

বরগুনা সংবাদদাতা
দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দিল জহিরুল
শনিবার সন্ধ্যায় র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হয় জহিরুল আকন ● জাগরণ

বরগুনার তালতলীর শুভসন্ধ্যা পর্যটনকেন্দ্রে ২২ এপ্রিল (বুধবার) ৭ বছরের কন্যা সন্তানকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তার সামনেই মাকে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার জহিরুল আকন ‘ধর্ষণ’ এর কথা স্বীকার করেছে র‌্যাবের কাছে।

শনিবার (২ মে) সন্ধ্যায় র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হবার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের বর্ণনা দিয়েছে জহিরুল আকন।

র‌্যাব-৮ এর পটুয়াখালী ক্যাম্পের একটি সূত্র জানায়, ২২ এপ্রিল নির্যাতিত ওই গৃহবধূ ট্রলারে ওঠার পরই তাকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে তেতুলবাড়িয়া এলাকার সোহাগসহ আরও তিনজন। জহিরুলের ভাড়ায় চালিত মটরসাইকেলে উঠে নিশানবাড়িয়ায় বাবার বাড়ি যেতে চায় ওই গৃহবধূ ও তার সাত বছরের মেয়ে। এরপর ভুলপথে শুভসন্ধ্যার গহীন বনে নিয়ে গাড়ি থামায় জহিরুল। ওই নারী গাড়ি থামানোর কারণ জানতে চাইলে গাড়ির পেট্রোল শেষ হবার বাহানা করে একই এলাকার সোহাগকে ফোন দিলে সোহাগ, এমাদুল, ও সাইদুল মটর সাইকেলে যায় তাদের কাছে আর নজরুল যায় পায়ে হেটে। তারপর তার মেয়ের গলায় ছুরি ধরে জিম্মি করে পর্যায়ক্রমে সোহাগ, এমাদুল, সাইদুল ও নজরুল ওই নারীকে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দফায় দফায় ধর্ষণ করে তাকে ফেলে রেখে চলে যায়। তবে জহিরুল ধর্ষণ করেনি বলে জানায় র‌্যাবকে।

এ বিষয়ে র‌্যাব-৮ এর পটুয়াখালী ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার রইছ উদ্দিন জানান,  জহিরুলকে গ্রেফতারের পর প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে তাদের কাছে ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন তারা।

এনএমএইচ/এসএমএম

আরও পড়ুন