• ঢাকা
  • বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২২, ২০২২, ০৪:০৫ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২২, ২০২২, ০৪:০৬ পিএম

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ প্রশ্নফাঁস চক্রের ১০ সদস্য গ্রেপ্তার

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ প্রশ্নফাঁস চক্রের ১০ সদস্য গ্রেপ্তার

প্রতিরক্ষা মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয়ে অডিটর নিয়োগ পরীক্ষায় ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্নফাঁসে জড়িত থাকার অভিযোগে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যানসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কাকরাইল ও কাফরুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, চক্রের অন্যতম হোতা হচ্ছেন ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবা নাসরিন ও সিজিএ অফিসের সহকারী কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান। নিয়োগের কথা বলে চাকরি প্রার্থী সংগ্রহ করতেন তাঁরা। মাহমুদুল হাসান ২০১৯ সালে প্রশ্নফাঁসে জড়িত থাকার অপরাধে বরখাস্ত হয়েছেন। তাঁর বাড়ি সিরাজগঞ্জে।

সংবাদ সম্মেলনে হাফিজ আক্তার বলেন, পরীক্ষার্থী সেজে কেন্দ্রে ডিজিটাল ডিভাইস নিয়ে প্রবেশ করেন চক্রের সদস্যরা। পরীক্ষার হল থেকে ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্ন বাইরে পাঠানো হয়। বাইরে থাকা চক্রের সদস্যরা প্রশ্ন দ্রুত সমাধান করে আবার পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠান। এভাবেই প্রশ্নফাঁস করে এমসিকিউ পরীক্ষায় পাস করানো হয় চাকরি প্রার্থীদের। পরে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় পাস করিয়ে দেওয়ার কথা বলে ১৬ লাখ টাকা চুক্তি করা হয়। দুই থেকে পাঁচ লাখ টাকা অগ্রিম হিসেবে দেন চক্রের সদস্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবি জানায়, ৫৫০ পদে নিয়োগের পরীক্ষা ছিল গতকাল। অসদুপায় অবলম্বন করে কিছু চাকরি প্রার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছেন, এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ২ পরীক্ষার্থীসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে ডিবি।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন, নোমান সিদ্দিকী, মাহমুদুল হাসান, আল আমিন, নাহিদ হাসান, শহীদ উল্লাহ, তানজির আহমেদ, মাহবুবা নাসরিন, রাজু আহমেদ, হাসিবুল হাসান ও রাকিবুল হাসান।

ডিবি জানায়, গ্রেপ্তার মাহমুদুল হাসান, নাহিদ হাসান ও আল আমিন সিদ্দিকী প্রশ্নফাঁসে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৩, ২০১৬ ও ২০১৯ সালে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। জামিনে এসে আবার একই অপরাধে জড়িয়েছেন তাঁরা।

ডিবি সূত্র জানায়, এই চক্রে আরও সদস্য রয়েছেন। তাঁদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।