• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১১, ২০২১, ০৬:০৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ১১, ২০২১, ০৬:৩৫ পিএম

নভেম্বর থেকে চলবে ইজিপ্ট এয়ার

স্বাচ্ছন্দ্যে মিসর ঘুরতে পারবেন পর্যটকরা

স্বাচ্ছন্দ্যে মিসর ঘুরতে পারবেন পর্যটকরা
ছবি- জাগরণ।

দেশীয় পর্যটকদের জন্য খুলে যাচ্ছে সম্ভাবনার দুয়ার। কোনো রকম ঝামেলা ছাড়াই তারা নিরাপদে ভ্রমণ করতে পারবেন নীল নদের দেশ মিসর। সেই লক্ষ্যে ঢাকা থেকে কায়রো রুটে ফ্লাইট চালুর ঘোষণা দিয়েছে ইজিপ্ট এয়ার। আগামী ১ নভেম্বর থেকে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনার কথা জানিয়েছে মিশরের সরকারি মালিকানাধীন উড়োজাহাজ সংস্থাটি। ইজিপ্ট এয়ার প্রাথমিকভাবে ঢাকা-কায়রো-ঢাকা রুটে সপ্তাহে দুটি করে ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

আজ শনিবার রাজধানীর হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে সংবাদ সম্মেলন করে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফ্লাইট চালুর ঘোষণা দেয় ইজিপ্ট এয়ার কর্তৃপক্ষ।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশে নিযুক্ত মিশর আরব প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রদূত হাইথাম গোবাসি বলেন, আমাদের মিশর সম্পূর্ণ নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত। কায়রোর বিমানবন্দরে যাত্রীদের করোনা পরীক্ষার জন্য আরটিপিসিআর ল্যাব রয়েছে। এছাড়াও গোটা দেশের সবার করোনা টিকা দেওয়া রয়েছে। হোটেলগুলো ৫০ শতাংশ অতিথি নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। সব মিলে একজন পর্যটক খুব স্বাচ্ছন্দ্যে ইজিপ্টে ঘুরতে পারবেন।

তিনি বলেন, আমাদের ভ্রাতৃপ্রতিম দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাংলাদেশে ইজিপ্ট এয়ারের ফ্লাইট শুরু করা একটি বিশেষ মাইলফলক। ঢাকা ও কায়রোর মধ্যে ইজিপ্ট এয়ারের সরাসরি ফ্লাইট শুরুর মাধ্যমে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের জন্য বিশাল সুযোগের দ্বার উন্মোচিত হবে, বিশেষ করে যারা মিশর, ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকা ভ্রমণ করতে আগ্রহী।

ঢাকা থেকে কায়রো যেতে ৭ ঘণ্টা সময় লাগবে বলে জানান বাংলাদেশে ইজিপ্ট এয়ারের জিএসএ এএলও ঢাকা এভিয়েশনের সিইও ও পরিচালক সৈয়দ আলী সামী। তিনি বলেন, ঢাকা ও কায়রোর মধ্যে ইজিপ্ট এয়ারের সরাসরি ফ্লাইট শুরুর মাধ্যমে বিভিন্ন স্টেক হোল্ডারদের জন্য বিশাল সুযোগের দ্বার উন্মোচিত হবে। মিশর ছাড়াও ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকা যাত্রীরা যেতে পারবেন।

আলী সামী আরো বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে সপ্তাহে দুইটি ফ্লাইট পরিচালনা করা হলেও ভবিষ্যতে আমরা সপ্তাহে ৭ দিনই ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা করছি। ইজিপ্ট এয়ারের বর্তমানে ৬৯টি আধুনিক উড়োজাহাজের একটি বহর রয়েছে। উড়োজাহাজ সংস্থাটি মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, আফ্রিকা, এশিয়া এবং আমেরিকার ৮০ টির বেশি গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

উল্লেখ্য, এয়ারলাইন্সটির মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক ব্যবসা ও কার্গো পরিবহনে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। মিশরের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পাবেন এবং পর্যটকরা মিশরের বহুমুখী পর্যটনের সুবিধা ভোগ করবেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন ইজিপ্ট এয়ারের সিওও ফরহাদ হোসেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন ইজিপ্ট এয়ারের সিওও ফরহাদ হোসেন।

 

জাগরণ/এমইউ