• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: মার্চ ২৫, ২০২১, ০৪:৫০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মার্চ ২৫, ২০২১, ১১:৩৪ এএম

পৃথিবীতে রাজনীতির ভূমিকা খুব দুর্বল হয়ে যাবে : আফসান চৌধুরী

পৃথিবীতে রাজনীতির ভূমিকা খুব দুর্বল হয়ে যাবে : আফসান চৌধুরী

লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক আফসান চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে অবদানের জন্য তিনি ২০১৮ সালে পেয়েছেন বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার। দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, স্বাধীনতাসংগ্রাম, গ্রামীণ মানুষের ভূমিকা, মহান মুক্তিযুদ্ধসহ নানা বিষয় নিয়ে জাগরণ অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সেসব তুলে ধরেছেন শাহাদাত হোসেন তৌহিদ


জাগরণ : আমাদের যুদ্ধ নিয়ে যে প্রচলিত বয়ান, সেখানে মধ্যবিত্ত শ্রেণিকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়, নিম্নবিত্ত মানুষ, গরিব কৃষকদের বয়ান আপনার আগে তেমন কেউ তুলে আনেননি। আপনি কেন এ বিষয়ে আগ্রহী হয়ে উঠলেন?
আফসান চৌধুরী :
আমি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করতে গিয়ে প্রথম পর্যায়ে দলিলভিত্তিক গবেষণা করেছি। পরবর্তীকালে কাজ করতে গিয়ে দেখি, দলিলেরও অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। আমরা তখনই খেয়াল করেছি যে নারীর কোনো কথা আসে না। দলিলের মধ্যে তো আসার কোনো কারণ নেই। তারপরে গরিব মানুষের কথা আসে না, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কথা আসে না। সেখান থেকে সীমাবদ্ধতাটাকে লক্ষ্য করে আমরা এ বিষয়ে কাজ করা শুরু করি। এবং আমরা এ কাজ করতে গিয়ে প্রথম ২০০০ সালে বিবিসির সঙ্গে যখন যুক্ত ছিলাম, তখন আমার সুযোগটা হয়। বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে কথা বলেছি। গ্রামেও গিয়েছি। তখন আমার মনে হয়েছিল যে এটা আমার পক্ষে সম্ভব। তো, অনেক দীর্ঘদিনের গবেষণার পরে ২০০৭-এ ‘বাংলাদেশে ১৯৭১’ নামে চার খণ্ডের একটা একটা বই প্রকাশ করি। সেখানে প্রথম আমি বিষয়গুলো এনেছি। এরপরে ২০১২-তে এসে আবার নতুন করে শুরু করি। খুব প্রশ্ন ছিল যে যারা একাত্তর দেখেছে, তারাই জানে সাধারণ প্রান্তিক মানুষ আশ্রয় নিয়েছে গ্রামে।  কিন্তু ইতিহাস তাদের কথা লেখে না। কারণ, লেখে মধ্যবিত্ত। মধ্যবিত্ত তার নিজের ভাবনাচিন্তা নিয়েই লেখে। ক্ষমতাবানরা লেখে। ক্ষমতাবানদের ইতিহাস অনেকটাই। তো, সেখান থেকে সরে আসাটা আমার চেষ্টা। আমার সঙ্গে আরও কয়েকজন আছে, আমি হয়তো সংগঠিতভাবে দীর্ঘদিন ধরে একটানা করছি।

জাগরণ : স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে বাংলাদেশ। একটি শ্রেণি বাংলাদেশকে যা করতে চেয়েছিল, তাই হয়েছে, ২২ পরিবার থেকে ২২ হাজার পরিবার হয়েছে। আর গরিব আরও নিঃস্ব হয়েছে, এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়?
আফসান চৌধুরী :
না, প্রথমত একাত্তরে যে ২২ পরিবার ছিল, বড়লোক ২২টি পরিবার। সেটা একটা প্রতীকী ছিল। হাজার হাজার পরিবার বড়লোক ছিল পাকিস্তান আমলে, বাংলাদেশেও স্বল্পসংখ্যক লোক বড়লোক ছিল। কিন্তু বাইশ পরিবার বলে আমরা বলি বাইশ হাজার পরিবার হয়েছে। সেখানে বড়লোকেরা সংখ্যায় ছিলেন এখনো। কারণ, একাত্তর সালের পরে  যে মধ্যবিত্ত শ্রেণি আন্দোলন করেছিল এবং নেতৃত্বে ছিল সে মধ্যবিত্ত শ্রেণি বড়লোক হয়েছে। ব্যবসায়ের জায়গাটা যেটা পাকিস্তানিদের, সেটা দখল করেছে বাঙালি মধ্যবিত্ত শ্রেণি। বাড়িঘর লুটের কথা তো আর বলারই কোনো দরকার নেই। শহরে ও গ্রামে উভয় জায়গাতেই লুট হয়েছে। এই মধ্যবিত্তের শ্রেণির লোক এবং সব সুবিধা ও ক্ষমতার জায়গায় সেই মধ্যবিত্ত শ্রেণিই প্রবেশ করেছে। মধ্যবিত্ত শ্রেণির খুব বড় একটা উত্তরণ হয়েছে।
কিন্তু দ্বিতীয়ত আমাদের গরিবরা নিঃস্ব হয়েছে, এটা ভ্রান্ত ধারণা। গরিবরা মোটেও নিঃস্ব হয়নি। গরিবদের অবস্থা তুলনামূলকভাবে তো বটেই, অ্যাবসুলুটলি আগের চেয়ে অনেক ভালো হয়েছে। এবং আজকের গরিব সে তিনটা জায়গা থেকে সুবিধা পায়, তিনটা জায়গা থেকে সে অর্থ উপার্জন করে—এক হচ্ছে সবচেয়ে বেশি উপার্জন করে সে কৃষি থেকে। দ্বিতীয়ত, বড়মাপের মধ্যবিত্ত তৈরি হয়েছে যেটা, সেটা হচ্ছে রেমিট্যান্স থেকে। তৃতীয়ত, গরিবরা এসে গার্মেন্টস সেক্টরে কাজ করছে। অর্থাৎ চরম দারিদ্র্য যেটা ছিল, সেটাও চলে গেছে। কারণ, চরম দারিদ্র্য দূর করতে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করেছে ফলে চরম দারিদ্র্য নিঃশেষ হয়েছে। কেউ যদি বলে যে বাংলাদেশে গরিবের অবস্থা আগের চেয়ে খারাপ হয়েছে, এটা একেবারেই ভুল। যেটা হচ্ছে তুলনামূলকভাবে বৈষম্য বেড়েছে। বড়লোকের তুলনায় অন্যরা হয়নি। কিন্তু জনগোষ্ঠী হিসেবে বাংলাদেশের গরিবরা অনেক সবল। এই বাংলাদেশের গরিবরা অস্বীকার করে বাংলাদেশে রাজনীতি আর সমাজনীতি করা সম্ভব নয়।

এই অর্থনীতি বড়লোকের, যে অর্থনীতি চোর-বাটপারদের, যে অর্থনীতি এর বাইরে কিন্তু গ্রামের মানুষ বসবাস করে। ঢাকা শহরেও সাধারণ মানুষ বসবাসের চেষ্টা করে কিন্তু পারে না। কারণ, তারা হচ্ছে এই অসৎ মানুষদের সঙ্গে তার নৈকট্য এই কারণেই এই সমস্যাটা তৈরি হেয়েছে কিন্তু সাংঘর্ষিক একটা প্রশ্ন আসে না, গ্রামের মানুষ আজকে যে অবস্থায় আছে ইতিহাসে এত ভালো অবস্থায় ছিল না। কারণ, স্বাভাবিকভাবে সে মুক্ত তো, সে নির্ভর করে না। সে সংগ্রাম করে এসে একটা পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। আমি যখন গ্রামে কাজ করেছি, একেবারে গ্রামে দেখেছি গ্রাম পরিবর্তিত হয়েছে। গ্রাম এখন আর আগের মতো নেই। গ্রাম চেঞ্জ হয়েছে আস্তে আস্তে তখনো চেঞ্জ হচ্ছিল। গ্রামের মধ্যে যে সম্পর্কগুলো প্রবল, সেটা শহরের রাজনীতি দিয়ে ভাঙা যায় না। আর গ্রামে যারা রাজনীতি করে তারা তো শহরনির্ভর। তারা আওয়ামী লীগ করে অথবা বিএনপি করে। গ্রামের মধ্যে শহর নির্ভরশীলতা অনেক কমে গেছে। সুবিধাজনক হয়েছে তাদের জন্য। তবে একটা মধ্যবিত্ত শ্রেণি আছে গ্রাম থেকে শহরে আসছে বা মফস্বল থেকে যারা শহরে এসেছে তাদের অবস্থান ভালো না। কারণ শহরে তো তাদের সুযোগ নেই। তাদের সুযোগ কোথায়? এ জন্য তারা যুদ্ধ করছে তাদেরই অনেক দুঃখ পেতে হয়। তারা নিজেরা যতক্ষণ না স্বাধীন হওয়ার চেষ্টা করবে, স্বাধীন হতে পারবে না।

জাগরণ : মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে তো আজকাল প্রচুর গবেষণা হচ্ছে। আপনি তো একজন গবেষক। এ নিয়ে আপনার মূল্যায়ন কী?
আফসান চৌধুরী :
মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণা হচ্ছে কি না, আমি বলতে পারব না। একাত্তর সাল নিয়ে গবেষণা হচ্ছে। বিভিন্ন শ্রেণি তাদের নিজেদের অবস্থানটাকে কিছুটা হলেও রক্ষা করে গবেষণাটা করে। আমাদের দেশে যেমন আমি তিনজন গবেষকের কথা বলি। আমার সঙ্গে একজন আছেন এনামুল হক। তাঁর কথা তো খুব মানুষ জানে। এবারে কিন্তু তার একটা বই বের হয়েছে যে শেখ সাহেব হত্যার পরে যে প্রতিবাদটা হয়েছিল, সেটা নিয়ে। এই এনামুল হক কিন্তু একসময় সরকারি কর্মচারী ছিলেন, অবসর নিয়েছেন, সারা জীবন মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কাজ করেছেন। গণহত্যা নিয়ে কাজ করেছেন এবং আমার কাছে মনে হয়েছে শ্রেষ্ঠ গণহত্যার কাজ করেন এই লোকটা। আমরা তাঁকে চিনিই না, জানিই না। তিনি কিন্তু একেবারে মুক্তভাবে গবেষণাটা করেন। তাঁর অন্য কোনো অর্জনেই ইচ্ছে নেই। তিনি মেডেল চান না, পুরস্কার চান না, কোনো জায়গায় দাওয়াত চান না। কিছুই চান না। সুদূর রাজশাহী থেকে, যেখান থেকেই হোক না কেন আমি মনে করি এটাই হচ্ছে আমাদের ভালো। আমি যখন ডিস্ট্রিক্টগুলোতে গবেষণা করেছিলাম এনামুলের সাহায্যেই। ২০০৭-এ আমরা গণহত্যার জরিপ করেছি। নির্যাতনের জরিপ করেছি। আমি মনে করি এই কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমি ধন্য। এই হলো একদল গবেষক।

দ্বিতীয় একটা আছে যারা হলো ইউনিভার্সিটিতে কাজ করে বা ইত্যাদি তারা একধরনের গবেষণা করে। চাকরি হচ্ছে তাদের ইতিহাসচর্চা হয়তো। সেই গবেষণা অনেক বেশি প্রাতিষ্ঠানিক হয়। কিন্তু তাদের যে সমস্যাটা তারা বাংলাদেশ সম্পর্কে অতটা জানে কি না, আমি বলতে পারব না। তাদের কোনো কাজে গ্রাম আসে না। তাদের কাজে আসে আন্তর্জাতিক পলিসি, আন্তর্জাতিক নীতি বা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বা দল বা সেনাবাহিনী কে কী করেছে।

তৃতীয় এক দল গবেষক হলেন—সেনাবাহিনীর মানুষরা অনেক গবেষণা করে তাদের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার ওপর। চতুর্থত আছে হয়তো বাকিরা যারা। কিন্তু মোটামুটি সাধারণ মানুষের ওপর গবেষণা খুব বেশি হয় না।

জাগরণ : জনযুদ্ধ যা হয়েছিল, যে পরিবর্তনের প্রত্যাশা ছিল মানুষের, তা কি স্বাধীনতার ৫০ বছর পর বেহাত হয়ে গেছে? আমরা কি স্বাধীন আছি আদৌ?
আফসান চৌধুরী :
হ্যাঁ হ্যাঁ, অবশ্যই স্বাধীন। স্বাধীন থাকবে না কেন? আমাদের প্রত্যাশা কোথায় ছিল না। যদি গ্রামের মানুষকে জিজ্ঞাসা করা হয়। হ্যাঁ, অবশ্যই প্রত্যাশা অনেকটাই হয়েছে কিন্তু পুরো প্রত্যাশা হয়েছি কি না বলতে পারব না। এটা হচ্ছে মধ্যবিত্ত শ্রেণির দুঃখ আজকে। আমরা কি এ রকম স্বাধীনতা চেয়েছিলাম? কি রকম স্বাধীনতা চেয়েছিল? যে লোকটা একাত্তর সালে একটা চাকরিবাকরি করত সে তো এখন বড়লোক হয়ে গেছে। এটা কি প্রত্যাশা ছিল না? আমাকে অনেকে বলেছে যে ভাই আমি যদি পাকিস্তানে থাকতাম তাহলে একটা অফিসার হতাম এখন তো আমি শৌখিন হয়ে গেছি। সেখানে কি প্রত্যাশা পূরণ হয়নি? সেটাই তো তার জীবনের প্রত্যাশা ছিল। এই বড়লোক শ্রেণিটার প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে।

গ্রামে যে দরিদ্র শ্রেণি ছিল, সেদিক থেকে প্রত্যাশা যদি হয়ে থাকে তা নিশ্চয়ই পূরণ হয়েছে। দরিদ্র নেই, এটা বলে লাভ নেই। এটা তথ্য দেখাতে হবে যে দারিদ্র্য কমে গেছে এবং অনেক কমে গেছে। অবশ্যই এখনো দারিদ্র্য আছে এর চেয়ে অনেক। শহরে দারিদ্র্য আছে। কিন্তু শহরে যে শ্রেণি দরিদ্র আছে তারা যদি উন্নতি না-ও হয়, না খেয়ে মরে না। বাংলাদেশে না খেয়ে মরার অভিজ্ঞতা আমরা দেখেছি। হয়েছে এটা। কিন্তু আজকে সেটার আশঙ্কা নেই। এত কোভিডের মধ্যে কোনো মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু না খেয়ে তো কেউ মরেনি।

আমি মনে করি, মানুষ যেটা নিরিখ করে মধ্যবিত্ত শ্রেণি সে দেখে চুরি হচ্ছে, আইনশৃঙ্খলাই নেই ইত্যাদি ইত্যাদি। এগুলো তো নিশ্চয়ই খারাপ। কিন্তু মনে রাখতে হবে এটা কিন্তু শ্রেণিসীমাবদ্ধতা। বাংলাদেশ বেশির ভাগই এখন গ্রামীণ। এবং সে গ্রামের ওপর প্রভাব ফেলেনি। বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষ কিন্তু এই নষ্ট বলয়ের মানুষ না।

উত্তর-রাজনৈতিক একটা রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। পৃথিবীতে রাজনীতির ভূমিকা খুব দুর্বল হয়ে যাবে। পৃথিবীতে ভূমিকা আসবে অর্থনীতির। এবং যে কারণে আমি শুধু ইন্ডিয়ানদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছিল, তারা এত বেশি চিন্তিত এবং তারা বুঝতে পারে না কী করে বাংলাদেশের এত উন্নতি হলো। পাকিস্তানের কথা বাদই দিলাম। গত বছরে আমাদের জিডিপি বেশি হয়েছে, যেটা একেবারেই এমন কোনো বড় কিছু না। কিন্তু তারা মনে করে যে তারা কোনো একটা জায়গায় পারেনি, যা বাংলাদেশে পেরেছে। কোন জায়গাটা পেরেছে মনে করে, তারা মনে করে সমাজের মানুষ অনেক বেশি সামাজিক কাজকর্মে সম্পৃক্ত হয়েছে এবং আমি এটার সঙ্গে একমত। আমাদের সমাজের মানুষ যতটা ভূমিকা পালন করে অন্য দেশের মানুষ কম পালন করে।

আমি একটা গবেষণামূলক কাজ করেছি আমার জাহাঙ্গীরনগরের ইউনিভার্সিটির কলিগের সঙ্গে। সেখানে আমরা দেখাতে চেষ্টা করেছি যে, কত বড় সফল কার্যক্রম আমাদের দেশে এসেছিল সামাজিক ক্ষেত্রে। কেন সফল হয়েছিল? আমরা দেখেছি প্রতিটা ক্ষেত্রে দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে অনেকটা সফল হয়েছে। সেখানে গ্রামের মানুষরা ভূমিকা রেখেছে। আমাদের দেশে টিকাদান কর্মসূচি সফল হয়েছে এবং এখন টিকাদান সহজ হচ্ছে। কারণ, আমাদের টিকাদানের একটা কাঠামো আছে। এবং সেটাও সাধারণ মানুষও বড় ভূমিকা পালন করেছে। এই যে মাতবর শ্রেণি, দেখা যাচ্ছে যে সমাজে পরিবর্তনটা হয়েছে। সংখ্যায় যদি বলা হয় শহরে পরিবর্তন হয়েছে। মধ্যবিত্ত ও বিত্তবানরা তারা তো খুব ভালো আছে। 

যেটা অসুবিধায় আছে নিম্নমধ্যবিত্তরা। আর বস্তিবাসী যারা আছে তাদের তো হিসাবই করি না। তাদের অনেকের অবস্থা ভালো। যেটা আমাদের ব্যর্থতা, দুর্বলতা, ক্ষমতাবান শ্রেণি মানে আমলা শ্রেণি যেটা তৈরি হয়েছে, ব্যবসায়ী শ্রেণি যেটা তৈরি হয়েছে, কবি-সাহিত্যিক শ্রেণি তৈরি হয়েছে তারা ঐতিহাসিকভাবে বাদ পড়ে গেছে। তাদের কে কেউ পাত্তা দেয় না। বাসায় যে লোকটা বসে থাকে তাকে কেউ পাত্তা দেয় নাকি?