• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ২৩, ২০২১, ১২:৪১ এএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২৩, ২০২১, ০৩:১১ পিএম

ঈদের আগে যানবাহন বন্ধ রাখতে হবে: ডা. লেলিন

ঈদের আগে যানবাহন বন্ধ রাখতে হবে: ডা. লেলিন

ডা. লেলিন চৌধুরী। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ। হেলথ অ্যান্ড হোপ স্পেশালাইজড হাসপাতালের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। করোনা সংক্রমণ, চলমান লকডাউন নিয়ে দৈনিক জাগরণের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন শাহাদাত হোসেন তৌহিদ। 


জাগরণ : লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। সেটি কতটুকু কার্যকর হচ্ছে বলেন আপনি মনে করেন?
ডা. লেলিন চৌধুরী :
করোনা ভাইরাসের বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী লনডাউনের সময় অন্তত দুই সপ্তাহ হওয়া উচিত। সেই বিবেচনায় লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানো বিজ্ঞানসম্মত হচ্ছে বলে আমি মনে করি। সারাদেশে লকডাউন শতভাগ হচ্ছে তেমনটা বলা যাবে না। তবে আমার বিবেচনায় ৭০-৭৫ ভাগ কার্যকর হচ্ছে। এটি ইতিবাচক দিক।

জাগরণ : লকডাউন কি আবারো দেওয়ার প্রয়োজন আছে? হলে সেটি কতো দিনের জন্য?
ডা. লেলিন চৌধুরী :
করোনা নিয়ন্ত্রণে লকডাউন একটি সাময়িক পদক্ষেপ মাত্র। দুই সপ্তাহ অতিক্রান্ত হওয়ার পরে বাংলাদেশের সার্বিক অবস্থার বিবেচনায় সেটির সময়সীমা বাড়ানো সঠিক হবে বলে আমি মনে করি না। তবে বর্তমানে লকডাউন থেকে ধাপে ধাপে বেরিয়ে আসার পদক্ষেপ নির্ধারণ করতে হবে এবং সেগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন করতে হবে। যদি কাজগুলো করা যায় তাহলে লকডাউনের লাগাম টেনে ধরা সম্ভব।

জাগরণ : সামনে সামনে ঈদ। ঈদরে সময় মানুষ গ্রামে যাব। এ ক্ষেত্রে কী করা উচিত?
ডা. লেলিন চৌধুরী:
 ঐতিহ্যগতভাবে ঈদে লোকজন বড় শহর থেকে মফস্বলে এবং গ্রামে যেতে চাইবে। গত বছরের অভিজ্ঞতায় আমরা দেখেছি যে, ঈদের আগে জনচলাচলের কারণে করোনার বিস্তৃতি ঘটেছিল। তাই সেই অবস্থার পুনরাবৃত্তিরোধে এবার ঈদের অন্তত পাঁচ দিন আগে থেকে জরুরি সেবা বাদে আন্তঃসহ সকল ধরনের যানবাহন বন্ধ রাখতে হবে। যদি আমরা এটি সঠিকভাবে করতে পারি, তাহলে কিন্তু করোনার বিস্তৃতিরোধে সেটি যথার্থ এবং সঠিকভাবে কাজ দেবে। আমরা মনে করি, ঈদের বিষয়টিকে আমাদের ভিন্ন চোখে দেখা উচিত।