• ঢাকা
  • শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: মে ২৬, ২০২১, ০৩:১২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ২৬, ২০২১, ০৯:৪৩ এএম

অ্যাকুয়ারিয়ামে শখের মাছ

অ্যাকুয়ারিয়ামে শখের মাছ

হাজার বছর ধরে খাদ্য হিসেবে জলাশয়ে চাষ হয় মাছ। কেউ শখের বসে ভিন্ন প্রজাতির মাছ সংরক্ষণ করেন বাড়িতে। অ্যাকুয়ারিয়ামের মধ্য়ে নানা প্রজাতির মাছ রাখেন, যার সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয় ঘরের শোভা।

ইতিহাস থেকে পাওয়া যায়, ১৭০০ সালের গোড়ার দিকে ইংরেজরা কাচের পাত্রে গোল্ড ফিশ পালতেন। পরবর্তী সময়ে ১৮৩২ সালে জেনি ভিলিপ্রেক্স নামক ফরাসি প্রকৃতিবিদ প্রথম গ্লাস অ্যাকুয়ারিয়াম ধারণার প্রচলন করেন।

মাছের একটি অ্যাকুয়ারিয়ামের দিকে তাকিয়ে পানির কাল্পনিক বিশ্বে হারিয়ে যেতে কার না ভালো লাগে। অ্যাকুয়ারিয়ামে শখের মাছ লালন-পালন একই সঙ্গে মজার এবং শিক্ষামূলক বটে, যা বাড়ি বা অফিসের জন্য় একটি আকর্ষণীয় সংযোজন।

পোষা মাছের জন্য একটি স্বাস্থ্যকর অ্যাকুয়ারিয়ামে জরুরি। তবে কাজটি তখনই সহজ যখন আপনি পোষা মাছের এবং অ্যাকুয়ারিয়ামের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ জানবেন।

  • অ্যাকুয়ারিয়ামে ফিল্টার এবং আলো ছাড়াও মাছ পুষতে আপনার আরও লাগবে পরিষ্কার নুড়ি পাথর, সজ্জার জন্য কৃত্রিম উদ্ভিদ এবং খেলনা শো-পিস। 
  • পানির জন্য লাগবে বিশেষ কন্ডিশনার, মাছ ধরার ছোট ছাকনি, মাছ রাখার অস্থায়ী পাত্র এবং অবশ্যই মাছের খাবার। 
  • অ্যাকুরিয়াম স্থাপনে একটি নিরাপদ জায়গা নির্বাচন করুন। এর ভেতরে পেছন থেকে সামনে ঢাল করে নুরিপাথর বিছিয়ে দিন। পেছন দিকে বড় মাপের কৃত্রিম উদ্ভিদ রাখুন।
  • শ্যাওলা প্রতিরোধে ৭-১০ ঘণ্টার বেশি বাতি জ্বালাবেন না। এর যন্ত্রপাতি ১-২ দিন চালু রাখুন।
  • অ্যাকুয়ারিয়ামের জন্য উপযুক্ত ২-৩টি মাছ ছাড়ুন। কেনার আগে মাছের স্বাস্থ্য দেখে নিন।
  • ব্যাগ থেকে মাছ সরাসরি অ্যাকুয়ারিয়ামে দেবেন না। ব্যাগটি ভালো করে পরিষ্কার করে মাছসহ তা পানিতে ১০-১৫ মিনিট ডুবিয়ে রাখুন। এরপর ব্যাগ থেকে মাছটি ছাকনি দিয়ে তুলে হালকা করে পানিতে নামিয়ে দিন।
  • দিনে দুইবার খাবার পেলেই আপনার জলজ বন্ধুরা খুশি থাকবে। আপনার ছোট্ট জলীয় বন্ধুদের আবাসস্থল আবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন।
  • ২-৪ সপ্তাহ পরপর নুড়ি পাথর ও ফিল্টার পরিষ্কার করুন এবং পানি বদলিয়ে দিন। কিছু ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ পানি না বদলে অ্যাকুরিয়ামের ২৫-৫০ ভাগ পানি বদলে দিতে পারেন। পুনরায় পানি দেওয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই ফিল্টার পানিতে প্রয়োজনীয়ও কেমিকেল মিশিয়ে দিন।
  • খেয়াল রাখবেন যেন অস্থায়ী পাত্রের এবং অ্যাকুরিয়ামের পানি একই তাপমাত্রার থাকে।
  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ শুরুর আগে অবশ্যই বিদ্যুতের সংযোগ বন্ধ করতে ভুলবেন না। 
  • ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় থাকাটা কার পছন্দ বলুন। তাই অ্যাকুয়ারিয়ামের আকার অনুযায়ী মাছের সংখ্যা নির্দিষ্ট হওয়া চাই। দেখবেন আপনার ছোট্ট জলজ বন্ধুরা তাদের নতুন আবাসে কী সুন্দর খেলা করছে।